কুড়িগ্রাম-লালমনিরহাট

স্কুল-পড়া ভুলে যাচ্ছে চরাঞ্চলের শিশুরা

স্কুলে তালা। বাড়িতে পড়ানোর কেউ নেই। অনলাইন নাগালের বাইরে। এমনকি অনেকের বাড়িতে টিভি কিংবা বিদ্যুৎ সুবিধাও নেই।
এখন শাবানা ও মৌসুমীর দিন কাটে চরে ছাগল চরিয়ে। ছবি: স্টার

স্কুলে তালা। বাড়িতে পড়ানোর কেউ নেই। অনলাইন নাগালের বাইরে। এমনকি অনেকের বাড়িতে টিভি কিংবা বিদ্যুৎ সুবিধাও নেই।

এদিকে দারিদ্রপীড়িত চরাঞ্চলে করোনার অভিঘাত আরও নির্মম। অভাব বেড়েছে। অনেক শিশুর দিন কাটছে বাবা-মায়ের সঙ্গে খেত-খামারে কাজ করে কিংবা চরে চরে ছাগল চরিয়ে। ফলে পড়াশোনার সঙ্গে তৈরি হয়েছে যোজন যোজন দূরত্ব। বাড়ছে ঝরে পড়ার আশঙ্কা।

করোনার দীর্ঘ ছুটিতে কুড়িগ্রাম ও লালমনিরহাট জেলার মূল ভূখণ্ডের বাইরে দুর্গম চরগুলোতে অবস্থিত প্রায় পাঁচশ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৭০ হাজারের বেশি শিক্ষার্থীর অবস্থা এখন কম-বেশি একইরকম।

করোনাভাইরাস মহামারির শুরুর দিকে গত বছরের ১৭ মার্চ দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ হয়ে যায়। থমকে যায় শ্রেণীকক্ষে প্রথাগত পাঠদানের বিষয়টি। বিশেষ করে স্কুল পর্যায়ের শিক্ষা তার চিরায়ত ছন্দ হারিয়ে ফেলে।

সর্বশেষ চলতি মাসের ১৩ তারিখ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দেওয়ার সরকারি ঘোষণাও বাস্তবায়ন করা যায়নি।

এর মধ্যে, শিক্ষার্থীদের জীবন থেকে হারিয়ে গেছে একটা শিক্ষাবর্ষের পুরোটাই। আরেকটি শিক্ষাবর্ষের অর্ধেকটা চলে যাওয়ার পথে। এই লম্বা সময়ে বিশেষ করে কুড়িগ্রাম-লালমনিরহাটের চরাঞ্চলের মতো প্রত্যন্ত এলাকার শিশুদের মনোজগতে বিদ্যায়তনের যে কাঠামো ছিল, তা চলে এসেছে অনেকটা বিলীয়মান অবস্থায়।

যেমন: শাবানা ও মৌসুমী। তারা দুজনই এখন খাতা-কলমে লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার মহিষখোচা ইউনিয়নের চর গোবর্ধনের একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। করোনা মহামারির কারণে বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় পরীক্ষা ছাড়াই তৃতীয় শ্রেণি থেকে চতুর্থ শ্রেণিতে উঠার জন্য তাদের কোনো ধরনের বেগ পেতে হয়নি। আবার চতুর্থ শ্রেণিতে ওঠার পর প্রায় ছয় মাস পার হতে চললেও নতুন বইগুলো খুলে দেখা হয়নি এখনো। পরিবার থেকেও পড়াশোনার কোনো চাপ নেই।

এখন শাবানা ও মৌসুমীর দিন কাটে চরে ছাগল চরিয়ে। দ্য ডেইলি স্টারকে তারা জানায়, নতুন বইগুলো কোথায় রাখা হয়েছে, সেটাও মনে নেই তাদের।

আবার কুড়িগ্রামের চিলমারী ইউনিয়নে চর শাখাহাতীতে অবস্থিত একটি বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী নূর জাহান ও মমিনুল ইসলামের বক্তব্যও প্রায় একইরকম। মমিনুল বলে, ‘এখনো বই খুলেই দেখিনি। স্কুল বন্ধ। তাই বাবার সঙ্গে সারাদিন মাঠে কাজ করতে হয়। লেখাপড়ার কথা তো ভুলেই গেছি।’

এভাবে নূর জাহানেরও দিন কাটে মাঠে মাঠে। মায়ের সঙ্গে।

দুই জেলার প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, লালমনিরহাটে তিস্তা ও ধরলা নদীর চরগুলোতে অবস্থিত ৪৬টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর সংখ্যা সাত হাজার। আর কুড়িগ্রামের মধ্য দিয়ে বয়ে চলা ব্রহ্মপুত্র, দুধকুমার, তিস্তা, ধরলা ও জিনজিরামসহ ১৬টি নদীর বিভিন্ন চরে প্রাথমিক বিদ্যালয় আছে ৪২০টি। শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৬৭ হাজারের মতো।

কথা হয় চিলমারী উপজেলার এনজিও কর্মী আহসানুল কবীর বুলুর সঙ্গে। তার পর্যবেক্ষণ, মহামারিতে চরাঞ্চলের শিক্ষাব্যবস্থা পুরোটাই ভেঙে পড়েছে। মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ে কিছুটা পড়ালেখা হলেও প্রাথমিকে একেবারেই নেই। 

তিনি বলেন, ‘জেলার মূল ভূখণ্ডের শিক্ষার্থীরা প্রাইভেট শিক্ষকের কাছে পড়ে কিছুটা হলেও পড়াশোনা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু চরাঞ্চলে সেটিও নেই। কারণ চরের বাসিন্দাদের আর্থিক সামর্থ্য কম। অভিভাবকরাও অতটা সচেতন না।’

কুড়িগ্রাম জেলার প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শহীদুল ইসলামের ভাষ্য, মহামারিতে চরাঞ্চলের শিক্ষার্থীদের যে ক্ষতিটা হচ্ছে, তা পূরণ করা কষ্টসাধ্য হয়ে পড়বে। 

তিনি বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে শিক্ষকদের অনুরোধ করেছি, তারা যেন একটু শিক্ষার্থীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পড়াশোনার ব্যাপারে খোঁজ-খবর নেন। জেলার মূল ভূখণ্ডের কিছু শিক্ষক আন্তরিকতার সঙ্গে কাজটি করলেও চরগুলোতে তা হচ্ছে না।’

লালমনিরহাটের প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা গোলাম নবীর বক্তব্য, অনলাইন ক্লাসে চরাঞ্চলের শিক্ষার্থীদের কোনো ধরনের অংশগ্রহণ নেই। কারণ চরগুলোর বেশিরভাগ বাসিন্দাদের আর্থিক অবস্থা খারাপ। ফলে তাদের অনেকের স্মার্টফোন, এমনকি টিভিও নেই।

দ্য ডেইলি স্টারকে এই শিক্ষা কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা এখন সরকারের সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে আছি। কিন্তু এর মধ্যে যে ক্ষতিটা হয়ে গেছে, তা অপূরণীয়।’

Comments

The Daily Star  | English

Economy with deep scars limps along

Business and industrial activities resumed yesterday amid a semblance of normalcy after a spasm of violence, internet outage and a curfew that left deep wounds in almost all corners of the economy.

4h ago