শীর্ষ খবর

এবার এমপি একরামের জিহ্বা ছিঁড়ে ফেলার হুমকি কাদের মির্জার

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জা এবার নোয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আ. লীগের সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম চৌধুরীর জিহ্বা ছিঁড়ে ফেলার হুমকি দিয়েছেন।
আবদুল কাদের মির্জা। ছবি: সংগৃহীত

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জা এবার নোয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আ. লীগের সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম চৌধুরীর জিহ্বা ছিঁড়ে ফেলার হুমকি দিয়েছেন।

কাদের মির্জা বলেছেন, ‘আমার বাবাকে রাজাকার বলেছ। আমার নানাকে শান্তি কমিটির প্রধান বলেছ। প্রমাণ তোমাকে করতে হবে, না হলে তোমার জিব ছিঁড়ে ফেলব।’

গতকাল রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে নিজের ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে লাইভে এসে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় জুডিশিয়াল আদালতের কোম্পানীগঞ্জ ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে দুটি প্রশ্ন রেখে কাদের মির্জা বলেন, ‘গত ১৪ অথবা ১৫ মার্চ কোম্পানীগঞ্জের অপরাজনীতির হোতা বাদল গ্রেপ্তার হয়েছে। তার তিনটি মামলার মধ্যে একটি মামলার জামিন দিয়েছেন ১৯ তারিখ। অপর দুই মামলার শুনানি দিয়েছেন ২৪ তারিখ।  আপনি দুই ঘণ্টা পরে এসে বাদলকে ওই দুই মামলায় কীভাবে জামিন দিলেন? আর আমাদের ছেলেদের জামিন হয় না। এক দেশে দুই আইন কীভাবে চলতেছে। আপনারা বিচার ব্যবস্থাকে আজকে বিতর্কিত করছেন। বিচার ব্যবস্থাকে আজকে ধ্বংস করে দিচ্ছেন। আমি আপনাদের কাছে বিনীত আহবান জানিয়ে বলতেছি, বিচার প্রার্থীরা আপনাদের কাছে বিচার চাইবে এটাই তো স্বাভাবিক, আপনারা তাদের আবেদন শুনবেন, তদন্ত করবেন, যদি তদন্তে মামলার মিথ্যা হয় তখন সেটা আপনারা ফেলে দিবেন।’

তিনি বলেন, ‘নোয়াখালীর অপরাজনীতির হোতা খায়রুল আনম চৌধুরী সেলিম ও একরামুল করিম চৌধুরী নাকি এখন ঢাকায়। নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি ওবায়দুল কাদেরের ঘোষিত কমিটি। কিন্তু, দলের কাউন্সিলরদের নির্বাচিত কমিটি নয়। ওবায়দুল কাদের সাহেবের ঘোষণার পরেও সেন্ট্রাল কমিটির অনুমোদন ছাড়া তারা কীভাবে বহাল থাকে। আর কোন ক্ষমতাবলে তারা বিভিন্ন উপজেলায় খবরদারি করে।’

তিনি আরও বলেন, ‘নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাহেবের কাছে পদ ত্যাগ চেয়েছিলেন। আমি বলি আপনারা দুই জন যদি নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগ থেকে পদত্যাগ করেন দলমত নির্বিশেষে সবাই আপনাদের ওয়েলকাম জানাবে। আল্লাহও খুশি হবে যে- নোয়াখালী এই অপরাজনীতির হোতাদের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে।’

কাদের মির্জা জেলা আ. লীগের সভাপতি খায়রুল আনম সেলিমকে উদ্দেশ্য বলেন, ‘কোম্পানীগঞ্জের প্রত্যেকটি ঘটনার জন্য আপনি দায়ী। বঙ্গবন্ধু চত্বরে দাঁড়িয়ে আপনি কী বলেছিলেন? এই বৃদ্ধ বয়সে এসে আপনি আপনার বিবেককে বিক্রি করে দিয়েছেন। আসলে আপনি একটা মেরুদণ্ডহীন প্রাণী। একরামুল করিম চৌধুরীর ২৫ শতাংশ অপরাধের জন্য আপনি দায়ী। টাকার ভাগও ২৫ শতাংশ আপনি নেন। যদি প্রমাণ করতে না পারি তবে হিজরত করব। আপনার মতো নির্লজ্জকে যদি আবারো জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি করা হয় তবে সে ক্ষেত্রে অপরাজনীতির আরেকটা চমক ছাড়া আর কিছুই নয়।’

কাদের মির্জা বলেন, ‘আমি কোনো নেতার তোয়াক্কা করি না। আমি ওবায়দুল কাদেরের ভাত খাই না। ওবায়দুল কাদেরের রক্ত চক্ষুকে আমি ভয় করি না। ওবায়দুল কাদের কোম্পানীগঞ্জের রাজনীতিকে অপরাজনীতির হোতাদের হাতে তুলে দিতে চায়। এটা কোম্পানীগঞ্জের আ. লীগ কর্মীরা মানবে না। আপনার এই খেলা খেলবেন না ওবায়দুল কাদের সাহেব।’

এ বিষয়ে কাদের মির্জার সঙ্গে কথা বলতে একাধিকবার তার মুঠোফোনে কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

নোয়াখালী জেলা আ. লীগের সভাপতি খায়রুল আনম চৌধুরী সেলিম এ প্রসঙ্গে দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘কাদের মির্জা তো কত কথাই বলে। তাই এ ব্যাপারে আমার কিছু বলার নেই। শেষ বয়সে এসে এই ছেলের হাতে আমাকে অপমানিত হতে হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:

ওবায়দুল কাদের, স্ত্রীসহ ৩ জনকে মেরে ফেলার হুমকি কাদের মির্জার

কোম্পানীগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে বাদলের অনুসারীদের সংঘর্ষ, আহত ১৫

কোম্পানীগঞ্জে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বাদলের ওপর হামলা

হত্যা-গুম-হামলার আশঙ্কায় সংসদ সদস্য একরামসহ ৯৬ জনের বিরুদ্ধে কাদের মির্জার জিডি

অস্ত্র তাক করে রেখেছে, আমাকে মেরে ফেলতে পারে: কাদের মির্জা

ডেইলি স্টারকে যা বললেন ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই কাদের মির্জা

অনেক বিপদে আছি, চাপে আছি, রাতে আমার ঘুম হয় না: কাদের মির্জা

প্রধানমন্ত্রী আমাকে শান্ত থাকতে বলেছেন, তাই শান্ত আছি: কাদের মির্জা

আল্লাহর গজব পড়বে, আমি ঈমানদার: কাদের মির্জা

আমরা যাকে মন্ত্রী বানিয়েছি সেই মন্ত্রীর কাজ কী: কাদের মির্জা

আপনার মন্ত্রণালয়ের সব খবর জানি, সব বলে দেব: ওবায়দুল কাদেরের উদ্দেশে কাদের মির্জা

Comments