ঢাকায় এসেই বিধ্বস্ত সেই সিলেট সিক্সার্স

আবুল হাসান রাজু হাল না ধরলে সিলেট সিক্সার্স ৬০ রানও করতে পারত না। তাইজুলকে নিয়ে ১০ম উইকেটে ৪৮ রানের জুটি। তাতে ১০১ রানের পূঁজি পেয়েছিল নাসিরের দল। ব্যাট করতে নেমে সেটাকে স্রেফ তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিলেন এভিন লুইস ও শহীদ আফ্রিদি। বোলিংয়ে সিলেটকে কাবু করার পর ব্যাট হাতেও বিধ্বংসী আফ্রিদি, লুইসও ছিলেন রুন্দ্রমূর্তিতে। ঢাকা ডায়নামাইটস জিতেছে ৮ উইকেটে।
ঢাকা ডায়নামাইটস আফ্রিদি-সাকিব
দাপুটে জয় সাকিবদের। ছবি: ফিরোজ আহমেদ

আবুল হাসান রাজু হাল না ধরলে সিলেট সিক্সার্স ৬০ রানও করতে পারত না। তাইজুলকে নিয়ে ১০ম উইকেটে ৪৮ রানের জুটি। তাতে ১০১ রানের পূঁজি পেয়েছিল নাসিরের দল। ব্যাট করতে নেমে সেটাকে স্রেফ তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিলেন এভিন লুইস ও  শহীদ আফ্রিদি। বোলিংয়ে সিলেটকে কাবু করার পর ব্যাট হাতেও বিধ্বংসী আফ্রিদি, লুইসও ছিলেন রুন্দ্রমূর্তিতে। ঢাকা ডায়নামাইটস জিতেছে ৮ উইকেটে। 

১৭ বলে ৩৭ রান করে আফ্রিদি আউট হলেও ১৮ বলে ৪৪ রান করে অপরাজিত থাকেন লুইস। 

ঘরের মাঠে চার ম্যাচের তিনটিতেই জিতেছিল সিলেট সিক্সার্স। তাও সে কি দাপুটে জয়! এবারের আসরের সর্বোচ্চ স্কোরও এখন পর্যন্ত তাদেরই। এবার হয়ে গেল সর্বনিম্ন রানও। টুর্নামেন্টের প্রথম ম্যাচে ঢাকা ডায়নামাইটসকে উড়িয়ে দেওয়া নাসিরের দল ফিরতি ম্যাচের ঢাকার বোলারদের কাছে স্রেফ বিধ্বস্ত । টস হেরে ব্যাট করতে নেমে একের পর এক উইকেট পতন। ৫৩ রানে ৯ উইকেট হারানোর পর তাতে বাধ দেন রাজু আর তাইজুল। এতে কেবল বিব্রতকর পরিস্থিতিই এড়ানো গেছে। 

১০১ রান তাড়া টি-টোয়েন্টিতে ডালভাত ব্যাপার। তা খুব তড়িঘড়ি তুলে নেয়ার পরিকল্পনা ছিল সাকিবদের। ওপেনিংয়ে তাই আফ্রিদি। মারেন বিশাল বিশাল সব ছক্কা। ১৭ বলে ৫ ছক্কা আর এক চারে ৩৭ করে আউট হন তিনি। ততক্ষণে ম্যাচের এপিটাফ লেখা সারা। চার ওভারেই যে স্কোরবোর্ডে প্রায় ৬০ রান। পরের বলে ক্যামেরন ডেলপোর্টও আউট হয়েছেন। তাতেও কিছু আসে যায়নি। 

বাকি কাজ সেরেছেন এভিন লুইস আর সাকিব আল হাসান। চ্যাম্পিয়ন ঢাকা ডায়নামাইটস জিতেছে  ৭৩ বল হাতে রেখেই। 

টস হেরে ব্যাট করতে নামা সিলেটের ইনফর্ম ওপেনিং জুটির একজন আন্দ্রে ফ্লেচার ছিলেন না। উপুল থারাঙ্গাও পারেননি। আইকন সাব্বির রহমান যেন পথহারা পথিক। প্রতি ম্যাচেই এসেই কিছুক্ষণ থেকে আউট হচ্ছেন। ব্যতিক্রম হয়নি এবারও। আবু হায়দার রনি আর সুনিল নারিন মিলে নিলেন প্রথম চার উইকেট।  এরপর শুরু আফ্রিদি ঘুর্নির। পাকিস্তানি তারকা আসরের প্রথম ম্যাচে নেমেই করলেন বাজিমাত। নাসির দিয়ে শুরু। তাকে উইকেট একে একে উইকেট ছুঁড়ে দিয়ে এসেছেন হাসারাঙ্গা, ব্রেসনান, সোহানরাও। 

চার ওভার বল করে মাত্র ১২ রানে আফ্রিদি নিলেন চার উইকেট। ৫৩ রানে ৯ উইকেট হারিয়ে সিলেটের একশো রানের নিচে গুটিয়ে যাওয়া তখন প্রায় নিশ্চিত। তখনই আবুল হাসান রাজুর প্রতিরোধ। হারিয়ে যেতে বসা অলরাউন্ডার পরিচয়টা এদিন আবার ফিরিয়ে এনেছিলেন বলে রক্ষা। না হলে আরও বড় লজ্জায় পড়তে হতো সিলেটকে। 

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

সিলেট সিক্সার্স: ১০১/৯ (থারাঙ্গা ১, গুনাথিলেকা  ১৫, সাব্বির ১, নাসির ১০, হোয়াইটলি ৬, সোহান ৮,  হাসারাঙ্গা ৮, ব্রেসনান ২,  শরিফ ০,   ; আফ্রিদি ৪/১২, নারিন ৩/১০) 

ঢাকা ডায়নামাইটস:   (লুইস ৪৪&, আফ্রিদি ৩৭, ডেলপোর্ট ০, সাকিব ১৮   ;  ব্রেসনান ২/২০) 

টস: ঢাকা ডায়নামাইটস

ফল:ঢাকা ডায়নামাইটস ৮ উইকেটে জয়ী

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: শহীদ আফ্রিদি 

Comments

The Daily Star  | English

Lifts at public hospitals: Where Horror Abounds

Shipon Mia (not his real name) fears for his life throughout the hours he works as a liftman at a building of Sir Salimullah Medical College, commonly known as Mitford hospital, in the capital.

8h ago