মালিঙ্গার কাছ থেকে স্লোয়ারের তালিম নিচ্ছেন রুবেল

ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে বাংলাদেশের ‘মালিঙ্গা’ তকমাও জুটেছিল তার। এবার বিপিএলে সেই মালিঙ্গার সঙ্গে একই দলে খেলছেন রুবেল। তার কাছে তালিম নিচ্ছেন ডেথ ওভার বোলিংয়ের, শিখছেন স্লোয়ারের গ্রিপ
ছবিঃ ফিরোজ আহমেদ

লাসিথ মালিঙ্গার ‘সিলিঙ্গার’ অ্যাকশনের সঙ্গে মিল আছে রুবেল হোসেনের। ক্যারিয়ারের শুরুর দিকে বাংলাদেশের ‘মালিঙ্গা’ তকমাও জুটেছিল তার। এবার বিপিএলে সেই মালিঙ্গার সঙ্গে একই দলে খেলছেন রুবেল। তার কাছে তালিম নিচ্ছেন ডেথ ওভার বোলিংয়ের, শিখছেন স্লোয়ারের গ্রিপ।

ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে রংপুরের জয়ে বল হাতে চার ওভারে মাত্র ২০ রান দেন মালিঙ্গা। ১৯তম ওভারে মাত্র ৩ রান দিয়ে নেন এক উইকেট। ডেথ ওভারে এমন বোলিং অনেকবারই করেছেন তিনি। ডেথ ওভারে ভালো বোলিংয়ের সুনাম আছে রুবেলেরও। তিনি শিখতে চান আরও, ‘মালিঙ্গার বোলিং সম্পর্কে সারা বিশ্বের মানুষই জানে। ও ডেথ ওভারে যেভাবে বোলিং করে আমি তার কাছ থেকে চেষ্টা করছি সেটা জানার। শেষের দিকে এত ভালো ইয়র্কার কি করে মারে। প্রাক্টিসেও শেখার চেষ্টা করছি।’

স্লোয়ার দিয়ে প্রায়ই ব্যটসম্যানদের কাবু করেন মালিঙ্গা। ওই স্লোয়ার বলেরও নাকি আছে বিশেষ কায়দা। ভিন্নরকম গ্রিপে স্লোয়ার করেন লঙ্কান। মালিঙ্গাকে কাছে পেয়ে সেটা আয়ত্ত্বে নিতে চাইছেন তিনি, ‘ ও স্লোয়ারের গ্রিপটাও ভিন্নভাবে করে। আমি ওইটা  নিয়ে কাজ করছি। এখনি ওই গ্রিপটা আমি ট্রাই করছি না। আরও কদিন পর ট্রাই করব। ’

নেটে মালিঙ্গার মতো স্লোয়ার চেষ্টা করেছেন। তবে এখনি কব্জায় আসেনি সব কারিকুরি। এমনিতে স্টক ডেলিভারির করার সময় যেকটা আঙুল ব্যবহার করেন মালিঙ্গা, স্লোয়ারে নাকি ব্যবহার করেন একটা কম। রুবেলের আশা এই টোটোকা শিখে নেবেন তিনি, ‘ও একটা আঙুল ব্যবহারই করে না। নেটে আমি দুএকবার ট্রাই করেছি। কিন্তু আমার একটু সমস্যা হচ্ছে। তবে এটা আমি রপ্ত করতে পারব। ’

এবার প্রথম দুই খেলায় নেমে সাদামাটা ছিলেন রুবেল, খেয়েছেন মার। বাদ পড়ার পর ফিরে নাকি পেয়েছেন তাল,  ‘প্রথম দুইটা ম্যাচে সুযোগ পেয়ে আমি বোলিংটা ভালো করতে পারিনি। কিন্তু শেষ দুই ম্যাচে ভালো বোলিং করেছি। ’

প্রথম ম্যাচ জেতার পর টুর্নামেন্টে টানা তিন ম্যাচ হেরেগিয়েছিল রুবেল, মালিঙ্গাদের রংপুর। ঘুরে দাঁড়িয়ে পর পর হারিয়েছে সিলেট সিক্সার্স ও ঢাকা ডায়নামাইটসকে। বিশেষ করে ঢাকার বিপক্ষে রোমাঞ্চকর ঐ ম্যাচের পরই আরও চাঙ্গা মাশরাফিরা, ‘ আমাদের আসলে জেতাটা দরকার ছিল। পর পর তিন ম্যাচ হেরে ব্যাকফুটে ছিলাম। আলহামদুল্লিহ আমরা ক্যামব্যাক করেছি। এই ধরনের ম্যাচ জেতায় আসলে সবার পারফরম্যান্স খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল। খেয়াল করে দেখবেন সবাই ভালো বোলিং করেছে। এই ধরনের ছোট স্কোরে আসলে বাড়তি কিছু করতে হয়। বিশেষ করে শেষ ওভারে অসাধারণ বোলিং করেছে থিসিরা পেরেরা। আর ভাগ্যটাও পক্ষে ছিল।’

Comments

The Daily Star  | English

An April way hotter than 30-year average

Over the last seven days, temperatures in the capital and other heatwave-affected places have been consistently four to five degrees Celsius higher than the corresponding seven days in the last 30 years, according to Met department data.

10h ago