চারদিক

‘অ্যাঞ্জেলিনা জোলি’ সাজা ছিলো ধাপ্পাবাজি

ইরানী তরুণী সহর তাবারের সার্জারি করে ‘অ্যাঞ্জেলিনা জোলি’ সাজার খবরটি গত কয়েকদিন থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পাশাপাশি গণমাধ্যমেও বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। এর সত্যতা যাচাই করতে বেশ হিমশিম খেতে হয়েছে সংবাদকর্মীদের।
Fake Angelina Jolie
ইরানী তরুণী সহর তাবারের সার্জারি করে ‘অ্যাঞ্জেলিনা জোলি’ সাজা ছিলো নিছক একটি ধাপ্পাবাজি। ছবি: সহর তাবারের ইনস্টাগ্রাম থেকে নেওয়া

ইরানী তরুণী সহর তাবারের সার্জারি করে ‘অ্যাঞ্জেলিনা জোলি’ সাজার খবরটি গত কয়েকদিন থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পাশাপাশি গণমাধ্যমেও বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। এর সত্যতা যাচাই করতে বেশ হিমশিম খেতে হয়েছে সংবাদকর্মীদের।

অবশেষে, জানা গেল এটি নিছক একটি ধাপ্পাবাজি।

উনিশ বছর বয়সী তাবারের দাবি ছিলো তিনি অস্কারবিজয়ী হলিউড অভিনেত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলির একজন ‘চরম ভক্ত’। তাই প্রিয় জোলির মতো নিজের চেহারা বানাতে তাঁকে ৫০ বার চিকিৎসকের ছুরি-কাঁচির নিচে শুতে হয়েছিলো বলেও দাবি করেন তিনি।

গত ২৮ নভেম্বর সার্জারির আগে ও পরের কয়েকটি ছবি ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করেন তাবার। তাঁর প্রায় পাঁচ লাখ ইনস্টাগ্রাম অনুসারীর কাছে দ্রুতই পৌঁছে যায় ছবিগুলো। ভাইরাল হয়ে যাওয়া সেসব ছবি নিয়ে সংবাদ শিরোনামেও আসেন এই ইরানী তরুণী।

আর তখনই ঘটনার সত্যতা যাচাই করতে মাঠে নামেন আন্তর্জাতিক সংবাদকর্মীরা। রুশ সংবাদমাধ্যম স্পুটনিককে তাবার জানান যে, নিজেকে আনন্দ দিতেই তিনি তাঁর ছবিগুলোর ওপর ‘ছুরি-কাঁচি’ চালিয়েছিলেন।

তাবারের বক্তব্য, “এখন আমি বুঝতে পারছি যে কিছু কিছু ক্ষেত্রে অ্যাঞ্জেলিনা জোলির সঙ্গে আমার মিল রয়েছে। আমি এতে আনন্দ পেয়েছি। আমি আমার চেহারাকে কারো মতো করতে চাই না।”

এ তরুণী আরো দাবি করেন যে তাঁর ভক্তরা না কী আগেই বুঝতে পেরেছিলেন এ চেহারা তাঁর নয়।

আরো পড়ুন:

এ কোন অ্যাঞ্জেলিনা জোলি?

Comments