খেলা

‘পুরো বাংলাদেশ দল কৃতিত্ব পাওয়ার যোগ্য’

মাত্র একটা বল, একটা বাউন্ডারি আটকাতে পারলেই হয়ে যেত। একটুর জন্য না পাওয়ার আক্ষেপে এখনো পুড়ছে ক্রিকেটপ্রেমীরা। তবে আগের রাতে মাঠে যারা ছিলেন জ্বলুনিটা তাদেরই বেশি হওয়া স্বাভাবিক। শ্বাসরুদ্ধকর ফাইনালে হেরে বাংলাদেশ দল দেশে ফিরেছে সোমবার সকালে। সাংবাদিকদের সামনে এসে মুশফিকুর রহিম মনমরা ভাব নিয়ে হারের ব্যাখ্যা দিয়েছেন।
Mushfiqur Rahim
দেশে ফেরার পর বিমানবন্দরে মুশফিকুর রহিম। ছবি: ফিরোজ আহমেদ

মাত্র একটা বল, একটা বাউন্ডারি আটকাতে পারলেই হয়ে যেত। একটুর জন্য না পাওয়ার আক্ষেপে এখনো পুড়ছে ক্রিকেটপ্রেমীরা। তবে আগের রাতে মাঠে যারা ছিলেন জ্বলুনিটা তাদেরই বেশি হওয়া স্বাভাবিক। শ্বাসরুদ্ধকর ফাইনালে হেরে বাংলাদেশ দল দেশে ফিরেছে সোমবার সকালে। সাংবাদিকদের সামনে এসে মুশফিকুর রহিম মনমরা ভাব নিয়ে হারের ব্যাখ্যা দিয়েছেন।

আগে থেকেই ঠিক ছিল ফাইনাল খেলে বাংলাদেশ দল সোমবার  সকালে দেশে ফিরবে। কাপ নিয়ে ফেরার সম্ভাবনাও উজ্জ্বল থাকায় প্রস্তুতি ছিলো ব্যাপক। শেষ পর্যন্ত কাপ জিততে না পারায় উৎসবে ভাটা পড়েছে। তবে রোমাঞ্চকর ম্যাচ খেলায় বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের ভিড়ের কমতি ছিলো না। বিসিবির পক্ষ থেকে ফুল নিয়ে বরণ করে নেওয়া হয়েছে নিদহাস ট্রফিতে ভালো খেলে বাংলাদেশ দলকে। 

রোববার নিদহাস কাপের ফাইনালে শেষ বলের ছক্কায় ভারতের কাছে ৪ উইকেটে হেরে যায় বাংলাদেশ। এমন হারের পরও সেরা ক্রিকেট খেলতে পারায় নিজেদের কৃতিত্ব পাওয়ার যোগ্য মনে করেন মুশফিক,  ‘এই কয়টা দিন আমরা যেভাবে ক্রিকেট খেলেছি, ম্যাচ জিতেছি পুরো বাংলাদেশ দল কৃতিত্ব পাওয়ার যোগ্য। হোম সিরিজে টি-টোয়েন্টিতে আমরা যেভাবে হেরেছিলাম শ্রীলঙ্কার সঙ্গে, এরপর ওদের মাটিতে এভাবে জেতা অনেক বড় প্রাপ্তি। আপনারা যদি খেয়াল করেন, দুটি ম্যাচ আমরা জিতেছি ওই দুটি ম্যাচ খুবই ক্লোজ ছিল। ঘরের মাঠে ক্লোজম্যাচ দুটি আমরা জিততে পারিনি, কিন্তু ওখানে কিন্তু আমরা ওভারকাম করে জিতেছি।‘

ম্যাচ হেরে সাকিব আল হাসান কাউকে দোষ দিতে চাননি। একই পথে হেঁটেছেন পুরো টুর্নামেন্টে দারুণ ব্যাট করা মুশফিক, ‘এটাতো খারাপ লাগাই স্বাভাবিক। আমি মনে করি না, এটা শুধু একজনের জন্যই হয়েছে।  আমরা বোলাররা মিলে যদি ১ কিংবা ২টা রান কম দিতে পারতাম। কিংবা আমরা ব্যাটসম্যানরা যদি আরও ১০টা রান বেশি করতে পারতাম।  এটা দলীয় গেম, একজনের ব্যর্থতা মানে সবারই ব্যর্থতা।‘

ভারতের জিততে তিন ওভারে লাগত ৩৫ রান। মোস্তাফিজের করা ১৮তম ওভার থেকে আসে মাত্র একটা লেগ বাই রান। পরের ওভারে রুবেল দিয়ে দেন ২২ রান। শেষ ওভার প্রথম ৫ বল দারুণ করেও ১২ রান আটকাতে পারেননি অনিয়মিত বোলার সৌম্য সরকার। মুশফিকের মতে আশা নিরাশার দোলাচলের সবই হয়েছে ভাবনার বাইরে,  ‘মোস্তাফিজ এক ওভার মেডেন উইকেট নিবে, এটা কেউই বিশ্বাস করেনি। ঠিক সেইরকমই রুবেলর ওভারটাতে এতো রান হবে এটা বিশ্বাস হয়নি। ক্রিকেট খেলায় এটা হয়েই যায়। এর থেকে আমাদের শিক্ষা নিয়ে এগিয়ে যেতে হবে।‘ 

Comments