তারেক জিয়ার পাসপোর্ট এবং...

বাংলাদেশের রাজনীতিতে এমন কিছু বিষয় আলোচিত হয়, যা নিয়ে একটি শব্দ ব্যয় করাও অপচয় ছাড়া আর কিছু নয়। বর্তমান সময়ের ‘পাসপোর্ট’ বিষয়ক আলোচনা তেমনই একটি বিষয়। পাসপোর্ট, রাজনৈতিক আশ্রয়, ট্রাভেল ডকুমেন্ট নিয়ে প্রতিদিন আলোচনা চলছে। কমবেশি সবাই প্রায় ‘বিশেষজ্ঞ’।
tarique rahman
তারেক রহমান। ফাইল ছবি

বাংলাদেশের রাজনীতিতে এমন কিছু বিষয় আলোচিত হয়, যা নিয়ে একটি শব্দ ব্যয় করাও অপচয় ছাড়া আর কিছু নয়। বর্তমান সময়ের ‘পাসপোর্ট’ বিষয়ক আলোচনা তেমনই একটি বিষয়। পাসপোর্ট, রাজনৈতিক আশ্রয়, ট্রাভেল ডকুমেন্ট নিয়ে প্রতিদিন আলোচনা চলছে। কমবেশি সবাই প্রায় ‘বিশেষজ্ঞ’।

যা আলোচনায় আসারই কথা নয়, তা নিয়ে আমরাও লিখতে বাধ্য হচ্ছি। কারণ বিষয়টি নিয়ে প্রতিদিন শুধু বিভ্রান্তিই ছড়াচ্ছে।

‘পাসপোর্ট’ ও রাজনৈতিক আশ্রয় নিয়ে, সংক্ষেপে কিছু কথা বলার চেষ্টা করব।

 

১. প্রথমে আসি তারেক রহমানের পাসপোর্ট প্রসঙ্গে। এ বিষয়ে প্রথম বক্তব্য ছিল, তারেক রহমান পাসপোর্ট সারেন্ডার করে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব ত্যাগ করেছেন। তারপর বলা হলো, তারেক রহমান ব্রিটিশ হোম অফিসে পাসপোর্ট জমা দিয়েছিলেন। ব্রিটিশ হোম অফিস পাসপোর্ট লন্ডনস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসকে পাঠিয়েছে। যেহেতু তারেক রহমানের কাছে বাংলাদেশের পাসপোর্ট নেই, একজন এর ব্যাখ্যা দিলেন ‘আমার মতে’ তিনি বাংলাদেশের নাগরিক নন। আরেকজন বললেন ‘আমার মনে হয়’ তিনি বাংলাদেশের নাগরিক নন।

এই দুই জনের একজন প্রতিমন্ত্রী আরেকজন পূর্ণ মন্ত্রী।

আইনে কি আছে তা না বলে ‘আমার মনে হয়’ ‘আমার মতে’ নিয়ে শুরু হলো বিতর্ক। তারপর পাসপোর্টের ডিজি বললেন, ‘পাসপোর্ট থাকা না থাকার সঙ্গে নাগরিকত্বের সম্পর্ক নেই।’

এত সহজ-সরল একটি বিষয় ‘মনে হয়’ ‘মতে’র সংমিশ্রণে জটিল করে উপস্থাপন করা হলো। পাসপোর্টের ছবি প্রকাশ করা হলো, পোস্ট উধাও হলো ‘হ্যাকিং’র প্রসঙ্গ এলো। কত কথা কত আলোচনা!

২. পাসপোর্ট’র সূত্র ধরে রাজনৈতিক আশ্রয় চাওয়া-পাওয়া নিয়ে যে ব্যাখ্যা-অপব্যাখ্যা বা বিশ্লেষণ হলো, পুনরাবৃত্তি না করে শুধু সরল ব্যাখ্যাটা বলছি।

ইংল্যান্ড বা ইউরোপের কোনো দেশে কেউ রাজনৈতিক আশ্রয় চাইলে, পরিচিতি জানার জন্যে পাসপোর্ট জমা দিতে হয়। সেই ব্যক্তি বৈধ না অবৈধভাবে এসেছে, বৈধ হলে কোন ভিসায় এসেছে, তার প্রমাণ পাসপোর্ট। কারও পাসপোর্ট না থাকলে অন্য উপায়ে পরিচিতি জানা হয়।

রাজনৈতিক আশ্রয় চাইলেই ‘ট্রাভেল ডকুমেন্ট’ দেওয়া হয় না। হোম অফিসের একটি কাগজে ‘অস্থায়ী ভিসা’ দেওয়া হয়। যা দিয়ে তিনি সেই দেশে থাকার প্রাথমিক অনুমতি পান। ‘অস্থায়ী ভিসা’র এই কাগজ দিয়ে অন্য কোনো দেশে যাওয়া যায় না।

তারপর রাজনৈতিক আশ্রয় গৃহীত হলেই কেবল ‘ট্রাভেল ডকুমেন্ট’ দেওয়া হয়। ট্রাভেল ডকুমেন্টেও সেই দেশের ভিসা থাকে। এই ট্রাভেল ডকুমেন্ট নিয়ে অন্য দেশে যাওয়া যায়। এখানে পরিষ্কারভাবে মনে রাখতে হবে সঠিক তথ্যগুলো।

 

ক. রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন গৃহীত হওয়া মানেই সেই দেশের পাসপোর্ট পাওয়া নয়।

খ. রাজনৈতিক আশ্রয় পাওয়া মানেই সেই দেশের নাগরিক হয়ে যাওয়া নয়।

গ. বাংলাদেশের একজন নাগরিক যিনি ইংল্যান্ড বা ইউরোপের কোনো দেশে রাজনৈতিক আশ্রয় পেয়ে অন্য দেশে গেলে, নাগরিকত্বের ঘরে তাকে ‘বাংলাদেশি’ লিখতে হয়। রাজনৈতিক আশ্রয় পেলেই তিনি ইংল্যান্ড বা ইউরোপের সেই দেশের নাগরিক হয়ে যান না। পাসপোর্ট পাওয়ার জন্যে আরও কিছু প্রক্রিয়া ও সময়ের প্রয়োজন হয়।

ঘ. রাজনৈতিক আশ্রয় ও ট্রাভেল ডকুমেন্ট পাওয়া ব্যক্তি নিজের দেশে যেতে পারবেন না, এমন কোনো বিধি- নিষেধ থাকে না। গেলে, নিজ দায়িত্বে যাবেন। যেহেতু দেশে তিনি নিরাপদ নন বলেই রাজনৈতিক আশ্রয় পেয়েছেন, সেহেতু নিজ দেশে গেলে এবং নিরাপদে ফিরলে, তার রাজনৈতিক আশ্রয় আর কার্যকর থাকে না। রাজনৈতিক আশ্রয় পেলে নিজ দেশের নাগরিকত্ব ছেড়ে দেওয়া বা যেতে পারবেন না, এমন কোনো শর্ত থাকে না। ইচ্ছে করলেই তিনি নিজ দেশে ফিরতে পারেন।

 

৩. পাসপোর্টের আলোচনায় যোগ দিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী নুরুল ইসলামও। রোহিঙ্গারা যে বাংলাদেশের পাসপোর্ট নিয়ে বিদেশে যাচ্ছে, তা তো অজানা নয়। সেই জানা তথ্যে ভিত্তি দিলেন নুরুল ইসলাম। ‘আড়াই লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশের পাসপোর্ট নিয়ে বিদেশে গেছেন’- বলে তথ্য জানাচ্ছেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী।

 ‘আড়াই লাখ রোহিঙ্গা’ চিন্তায় পড়ে যাওয়ার মতোই তথ্য। তারেক রহমানের ‘পাসপোর্ট’ নেই বলে ‘মনে হয়’ তিনি বাংলাদেশের নাগরিক নন। আর আড়াই লাখ মিয়ানমারের নাগরিক বাংলাদেশের পাসপোর্টের মালিক হয়ে গেলেন, কেউ দেখার থাকল না।

মন্ত্রী প্রশ্ন করেছেন ‘রোহিঙ্গাদের জাতীয় পরিচয়পত্র কারা করে দিল’ ‘কি করে তারা পাসপোর্ট পেল’? একজন মন্ত্রী যদি প্রশ্ন করেন, কাজ করবেন কে? ‘জাতীয় পরিচয়পত্র’ করে দেওয়ার দায়িত্ব তো পালন করছে সরকার। আর সরকারের মন্ত্রী প্রশ্ন করছেন ‘কীভাবে পেল’? জনগণ যাবে কোথায়!

মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়েরা, ঘুষের বিনিময়ে আপনার দলের রাজনীতিবিদদের সহায়তায়, সরকারি প্রশাসন পরিচয়পত্র এবং পাসপোর্ট করে দিয়েছে। আপনি তা খুব ভালো করেই জানেন। আপনাদের দায়িত্ব প্রশ্ন করা নয়। পাসপোর্ট করা ঠেকাতে পারেননি। এখন খুঁজে বের করে পাসপোর্টগুলো পর্যায়ক্রমে বাতিল করতে পারেন। জানি তাও করবেন না। ভোটের হিসাব মিলেমিশে একাকার হয়ে গেছে। রোহিঙ্গাদের আপনারা নাগরিকত্ব দিচ্ছেন, চেয়ারম্যান-মেম্বার বানাচ্ছেন। পাসপোর্টও আপনারাই করে দিচ্ছেন।

৪. আওয়ামী লীগের একজন নেতা আছেন, তার নাম ‘হাছান মাহমুদ’। লেখাপড়া জানা শিক্ষিত মানুষ বলেই তাকে জানি। তিনি বলেছেন, ‘তারেক জিয়ার জন্ম পাকিস্তানে। জন্মসূত্রে তারেক জিয়া পাকিস্তানের নাগরিক।’ তো এতে সমস্যাটা কী?

১৯৪৭ সালের পরে ১৯৭১ সালের আগে যাদের জন্ম, তারা সবাই তো জন্মসূত্রে পাকিস্তানের নাগরিক। হাছান মাহমুদের জন্ম ১৯৬৩ সালে, তিনিও তো জন্মসূত্রে পাকিস্তানের নাগরিকই ছিলেন।

‘হাছান মাহমুদ’ এবং তার বাবা-চাচারাও পাকিস্তানেরই নাগরিক ছিলেন। বুঝে বা না বুঝে,মন্তব্য করতেই হবে? ১৯৭১ সালে যারা মুক্তিযুদ্ধ করেছিলেন তারা সবাই তো পাকিস্তানের নাগরিকই ছিলেন। তো তারেক জিয়ার জন্ম পাকিস্তানে হওয়া অপরাধ হয়ে গেল কেন? এই প্রসঙ্গ সামনে এনে কী বোঝাতে চাইলেন হাছান মাহমুদ?

 

৫. একটি গল্প দিয়ে লেখা শেষ করি। মাছের বালতি হাতে সৈকত (ছদ্মনাম), শত শত পাখি তাকে ঘিরে ধরে বিচিত্র আওয়াজ করছে। পাখিদের দিকে মাছ ছুড়ে দিচ্ছেন সৈকত। তার সঙ্গে দেখা হয়েছিল মালয়েশিয়ার বার্ডস পার্কে।

সৈকতের বাড়ি চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি। কৃষিকাজ করতেন। দালালদের সাড়ে তিন লাখ টাকা দিয়ে রাতের আঁধারে ট্রলারে উঠেছিলেন টেকনাফ থেকে। ১০০ ধারণ ক্ষমতার ট্রলারে প্রায় ৪০০ জন। সাগরে দশ পনের দিন। না খেয়ে যারা মারা গেছেন, তাদের লাশ ফেলে দেওয়া হয়েছে সাগরে। পাটাতনের নিচে গাদাগাদি করে ট্রলারে সময় কেটেছে। রাত না দিন বোঝার উপায় ছিল না। একটা ফুটো দিয়ে নিশ্বাস নিতে হতো। খাবার চাইলে, বাথরুমের কথা বললে পেটাতো। তারপর জঙ্গলে দশ বারো দিন। কোন দেশের জঙ্গল, জানা নেই। পেটানো হতো, বাড়িতে ফোন করে শোনানো হতো সেই আওয়াজ। টাকা দিয়ে বেঁচেছিলেন সৈকত।

তারপর মালয়েশিয়ার গ্রাম বা শহরে আরও কিছুদিন। অবশেষে সৌভাগ্যক্রমে মালয়েশিয়ায় ছেড়ে দিয়ে দালালরা পালিয়ে যায়। খেয়ে না খেয়ে মালয়েশিয়ায় কাটে বছরখানেক। মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্যে জমি বিক্রি করে, লোন করে টাকা জোগাড় করেছিলেন। লোনের তাড়ায় মা-ভাইদের জীবন অস্থির। সৈকতের কাজ নেই, টাকা নেই, ঘুম নেই, খাওয়া নেই।

একজন মালয়েশিয়ানের সহায়তায় ১০০ রিঙ্গিত দিয়ে সৈকত একটি ‘রোহিঙ্গা কার্ড’ করেছে। এই কার্ড প্রমাণ করে সৈকত মিয়ানমারের রোহিঙ্গা। বছরখানেক হলো কাজ পেয়েছেন এই ‘বার্ডস পার্কে’। বেতন, থাকা-খাওয়া নিশ্চিত হয়েছে। নিজে ভালো আছেন। দেশে লোন শোধ করছেন। মা-ভাইদের চিন্তা কেটে গেছে। এখন আর চিন্তা নেই, এই দেখেন আমার কাছে এখন অনেক টাকা। মানি ব্যাগ বের করে সদ্য বেতন পাওয়া ১১০০ রিঙ্গিত দেখালেন সৈকত। কী সরল-নিষ্পাপ হাসি তার চোখে-মুখে। তাতে যেন পুরো বার্ডস পার্ক আলোকিত হয়ে গেল।

বার্ডস পার্কের কাগজে কলমে সৈকত মিয়ানমারের নাগরিক, একজন রোহিঙ্গা। টাকা পাঠাচ্ছেন বাংলাদেশে। সৈকতের কাছে বাংলাদেশের কোনো পাসপোর্ট নেই। কুয়ালালামপুরের বাংলাদেশ দূতাবাস সৈকতদের কোনো খোঁজ- খবর রাখার প্রয়োজন মনে করে না। সৈকতরা বাংলাদেশের নাগরিক, পাসপোর্ট না থাকলেও।

এমন সৈকত সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে আছেন লাখ লাখ!

গল্প নয়, সত্য ঘটনা।

Comments

The Daily Star  | English

Extreme heat sears the nation

The scorching heat continues to disrupt lives across the country, forcing the authorities to close down all schools and colleges till April 27.

10h ago