আসাম পরিস্থিতি: শঙ্কার কারণ আছে বাংলাদেশের

অবশেষে আশঙ্কাই যেন সত্যি হতে চলেছে। ভারত সরকার আসামের যে নাগরিকপঞ্জি প্রকাশ করেছে তা থেকে ৪০ লাখ মানুষকে বাদ দেওয়া হয়েছে যাদের বেশিরভাগই বাঙালি।
আসামের নাগরিকপঞ্জি থেকে ৪০ লাখ মানুষকে বাদ দেওয়ায় মঙ্গলবার দিল্লিতে পার্লামেন্ট ভবনের বাইরে তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদরা প্রতিবাদ জানান। ছবি: এএফপি

অবশেষে আশঙ্কাই যেন সত্যি হতে চলেছে। ভারত সরকার আসামের যে নাগরিকপঞ্জি প্রকাশ করেছে তা থেকে ৪০ লাখ মানুষকে বাদ দেওয়া হয়েছে যাদের বেশিরভাগই বাঙালি।

দেশটির সরকার বলছে, বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণার একদিন আগে ১৯৭১ সালের ২৪ মার্চ বা তার আগে থেকে আসামে বসবাস করার প্রমাণ যারা দেখাতে পেরেছে শুধুমাত্র তাদেরকেই নাগরিকপঞ্জিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তালিকার বাইরে যারা রয়ে গেছে তারা বাংলাদেশের অবৈধ অভিবাসী।

এতে সিঁদুরে মেঘ দেখতে শুরু করেছেন আসামের সংখ্যালঘু বাঙালিরা। যদিও সংঘাতের আশঙ্কায় দেশটির কর্মকর্তারা এখন বলছেন, তালিকায় যাদের নাম নেই এখনই তাদেরকে দেশছাড়া করা হচ্ছে না। নাগরিকত্ব প্রমাণের জন্য তারা আইনগত সব সুযোগ পাবেন। কিন্তু কার্যত ত্রিশঙ্কু অবস্থায় লাখ লাখ বাঙালি পরিবার।

কারা ক্ষতিগ্রস্ত হতে চলেছে?

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে বাংলাদেশ থেকে শরণার্থী হয়ে ভারতে আশ্রয় নেওয়াদের মধ্যে আসামের বাঙালি অধ্যুষিত জেলাগুলোতে কয়েক লাখ মানুষ গিয়েছিল। অন্য সব জায়গার মতই স্বাধীনতার পর দেশে ফিরেও আসে তারা। কিন্তু অসমীয়া জাতীয়তাবাদীদের দাবি, লাখ লাখ বাংলাদেশি অবৈধভাবে আসামে থেকে গেছে, যাদেরকে ফেরত পাঠাতে হবে। এ নিয়ে ১৯৮৫ সালে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর সঙ্গে তাদের এক চুক্তিও হয়। চুক্তিতে বলা হয়, ১৯৭১ সালের মার্চ মাসের আগে থেকে আসামে বসবাসের প্রমাণ যারা দিতে পারবে না তাদেরকে রাজ্যটি থেকে বহিষ্কার করা হবে।

আসামে নাগরিকত্ব প্রমাণের জন্য ৩ কোটি ২০ লাখের বেশি মানুষ তাদের নথিপত্র জমা দিলেও শেষ পর্যন্ত ৪০ লাখ মানুষকে তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। তালিকা থেকে বাদ পড়াদের আশঙ্কা তাদেরকে নিজভূমে পরবাসী করার চক্রান্ত চালাচ্ছে রাজ্যের বিজেপি সরকার।

বাঙালিদের লক্ষ্যবস্তু বানানো হচ্ছে?

অসমীয়া জাতীয়তাবাদী ও হিন্দু জাতীয়তাবাদীদের দ্বিমুখী আক্রমণের মুখে রয়েছে আসামের বাঙালিরা- ঘটনাচক্রে যাদের বেশিরভাগই আবার মুসলমান। নিয়মিত বন্যার কবলে পড়া ব্রহ্মপুত্রের অববাহিকায় যুগ যুগ ধরে বসবাসের পরও তাদের অনেকের কাছেই নাগরিকত্ব প্রমাণের যথাযথ কাগজপত্র নেই। সরকারের বক্তব্য এই বাঙালিদের মধ্যেই বাংলাদেশ থেকে যাওয়া লোকজন মিশে রয়েছে যাদেরকে খুঁজে বের করা দরকার।

তবে আসামে বাঙালিদের অধিকার নিয়ে যারা সোচ্চার তারা বলছেন নাগরিকপঞ্জি উদ্দেশ্য অবৈধ বাংলাদেশিদের খুঁজে বের করা নয় বরং ভিন্ন কিছু। এদেরই একজন নজরুল আলী আহমেদ বিবিসিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘বাঙালিদের ওপর নিপীড়নের ষড়যন্ত্র চলছে। তারা সরাসরি মুসলিমদেরকে হুমকি দিচ্ছে।’

তার আশঙ্কা, মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে যা হয়েছে ভবিষ্যতে তাদের সঙ্গেও সেরকমই কিছু ঘটতে পারে।

তবে রাখাইনের সঙ্গে আসামের অবস্থার তুলনা মানতে নারাজ নরেন্দ্র মোদির সরকার। তাদের দাবি, নাগরিকপঞ্জির সঙ্গে রাজনীতির কোনো সম্পর্ক নেই। আর পুরো কাজটিই চলছে ভারতের ধর্মনিরপেক্ষ সুপ্রিম কোর্টের তত্ত্বাবধানে।

রাষ্ট্রহীনদের ভাগ্যে কী ঘটবে?

রাতারাতি লাখো মানুষকে রাষ্ট্রহীন ঘোষণা দেওয়ায় সংঘাতের আশঙ্কা এখন প্রবল হয়ে উঠছে আসামে। তবুও রাজ্যটির শাসক দল বিজেপি বলেই চলেছে অবৈধ মুসলিম অভিবাসীদের দেশছাড়া করতে হবে।

ফলে ভারতের ভেতরই বিশাল এই জনগোষ্ঠী রাষ্ট্রহীন-অধিকারহীন অবস্থায় বসবাস করবে সে আশঙ্কাই এখন প্রকট হতে শুরু করেছে।

সংকটের পেছনের কারণ

আসাম থেকে অবৈধ বাঙালি তাড়ানোর জন্য দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করছে অল আসাম স্টুডেন্টস ইউনিয়ন নামের একটি সংগঠন। সংগঠনটির নেতা সমুজ্জ্বল ভট্টাচার্যের বক্তব্যে আসামে বাঙালিবিরোধী মনোভাব গড়ে ওঠার একটি কারণ পাওয়া যায়। তিনি  যেসব কথা বলেছেন তার সারমর্ম হলো, অসমীয়ারা মনে করে অবৈধ বাংলাদেশিদের এখনই তাড়ানো না হলে তারা রাজনৈতিক ক্ষমতাকাঠামোর ভেতরে ঢুকে পড়বে। এমনটা হলে তারা দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিকে পরিণত হবেন। যেটা তারা কোনোভাবেই মানতে নারাজ।

২০১৪ সালে ভারতের জাতীয় নির্বাচনের আগে বিজেপি বলেছিল তারা ক্ষমতায় গেলে আসাম থেকে অবৈধ ৭০ লাখ বাংলাদেশি তাড়ানো হবে। দিল্লিতে ক্ষমতায় আরোহনের পর কেন্দ্রীয়ভাবে বিজেপির সুর কিছুটা নরম হলেও আসামের রাজনীতিতে বিষয়টি সব সময়ই আলোচনায় ছিল। নাগরিকত্ব প্রমাণ করা নিয়ে সব সময়ই বাঙালিদের মধ্যে একটি চাপ জিইয়ে রাখা হয়েছিল। ২০১৬ সালে রাজ্য সরকার নির্বাচনেও এই ইস্যুটিকেই পুঁজি করে বিজেপি। ২০১৯ সালের আগামী জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে এখন বিজেপি দেখাতে চায় তারা তাদের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করছেন।

সরকারের বাঙালিবিরোধী মনোভাব নিয়ে এরই মধ্যে সরব হয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। গতকাল কলকাতায় তিনি বলেছেন, অসমে এখন বাঙালি খেদাও চলছে, বিহারি খেদাও চলছে। নির্বাচনী রাজনীতি করতে গিয়ে অসমের বিজেপি সরকার অকারণ প্ররোচনা তৈরি করছে।কেন্দ্রীয় সরকার নীরব থেকে অসমের সরকারকে সে কাজে সাহায্য করছে।

আসামে এরই মধ্যে বেশ কিছু কনসেন্ট্রেশন ক্যাম্প তৈরি করা হয়েছে। এখানে বাঙালিদের ধরে নিয়ে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানতে চাওয়া হচ্ছে তারা বাংলাদেশি কি না। দিনের পর দিন তাদের সঙ্গে সেখানে অমানবিক আচরণ করা হচ্ছে। এর উদ্দেশ্য হলো, এভাবে চাপের মুখে হলেও যেন বাঙালিরা আসাম থেকে বিদায় নেয়।

পশ্চিমবঙ্গ সরকারের আশঙ্কা আসাম থেকে বাঙালিদের খেদানো হলে শেষ পর্যন্ত তাদের কিছু সংখ্যক হয়ত রাজ্যটিতে আশ্রয়ের সন্ধানে পাড়ি জমাতে পারে। কিন্তু যাদের লক্ষ্যবস্তু বানানো হচ্ছে তাদের অবৈধ বাংলাদেশি হিসেবে ফেরত পাঠাতে চায় সেখানকার সরকার। এ কারণে মূল শঙ্কাটা বাংলাদেশেরই।৪০ লাখের সবাইকে তাড়ানো হবে না, তাদের নাগরিকত্ব প্রমাণের সুযোগ এখনও আছে বলা হলেও, শঙ্কা কাটবে না। সবাই যে নাগরিকত্ব পাবে না, ভারতের প্রায় সব গণমাধ্যম এমনটা ধারণা করছে। সেই সংখ্যা যাই হোক, পাঠানোর চেষ্টা করা হবে বাংলাদেশে। তবে এ ব্যাপারে বাংলাদেশকে এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জায়নি ভারত। বাংলাদেশ সরকারেরও কোনো প্রতিক্রিয়া জানা যায়নি।

Comments

The Daily Star  | English

Cyclones now last longer

Remal was part of a new trend of cyclones that take their time before making landfall, are slow-moving, and cause significant downpours, flooding coastal areas and cities. 

8h ago