ফাইনালে বাংলাদেশ

দলের সেরা দুই তারকা তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসান নেই। কিন্তু তারপরও দুরন্ত টাইগাররা। পাকিস্তানের বিপক্ষে দুর্দান্ত এক জয় তুলে নিয়েছে দলটি। ৩৭ রানের জয় পেয়েছে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। ফলে টানা তৃতীয় বারের মতো এশিয়া কাপের ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে বাংলাদেশ। শুক্রবার দুবাইয়ে ফাইনালে টাইগারদের প্রতিপক্ষ ভারত।

দলের সেরা দুই তারকা তামিম ইকবাল ও সাকিব আল হাসান নেই। কিন্তু তারপরও দুরন্ত টাইগাররা। পাকিস্তানের বিপক্ষে দুর্দান্ত এক জয় তুলে নিয়েছে দলটি। ৩৭ রানের জয় পেয়েছে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। ফলে তৃতীয় বারের মতো এশিয়া কাপের ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে বাংলাদেশ। শুক্রবার দুবাইয়ে ফাইনালে টাইগারদের প্রতিপক্ষ ভারত।

শুরুটা খারাপ করলেও মুশফিকুর রহীম ও মোহাম্মদ মিঠুনের দারুণ এক জুটিতে বড় সংগ্রহের পথেই ছিল বাংলাদেশ। তবে শেষ দিকে পাকিস্তানী বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ২৩৯ রানের বেশি করতে পারেনি টাইগাররা। পুঁজি কিছুটা কম হলেও দুর্দান্ত বোলিং করে সে ঘাটতি পুষিয়ে নেয় তারা। ৯ উইকেটে ২০২ রানেই পাকিস্তানকে আটকে রাখে মাশরাফিরা।

এক রানের আক্ষেপ নিয়ে প্রথমবারের মতো কোন বাংলাদেশী ব্যাটসম্যান হিসেবে ৯৯ রানে আউট হয়েছেন মুশফিক। কিন্তু দলের ইনিংস ঠিকই মেরামত করেন তিনি। কম যাননি মিঠুনও। ৬০ রান করেছেন তিনি। লক্ষ্য তাড়ায় পাকিস্তানের ইমাম-উল-হক একাই দলকে টেনে নিয়ে যাচ্ছিলেন। তবে মোস্তাফিজ-মিরাজদের বাধায় শেষ রক্ষা করতে পারেননি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :

বাংলাদেশ : ২৩৯/১০ (৪৮.৫ ওভার) ( লিটন ৬, সৌম্য ০, মুমিনুল ৫, মুশফিক ৯৯, মিঠুন ৬০, ইমরুল ৯, মাহমুদউল্লাহ ২৫, মিরাজ ১২, মাশরাফি ১৩, রুবেল ১, মোস্তাফিজ ০*;  জুনায়েদ ৪/১৯, শাহিন ২/৪৭, হাসান ২/৬০, নাওয়াজ ০/৩৯, মালিক ০/১৪, শাদাব ১/৫২)

পাকিস্তান : ২০২/৯ (৫০) (ফাখার ১, ইমাম ৮৩, বাবর ১, সরফরাজ ১০, মালিক ৩০ , শাদাব ৪, আসিফ ৩১ , নাওয়াজ ৮, হাসান ৮ , শাহিন ১৪*, জুনায়েদ ৩*; মিরাজ ২/২৮, মোস্তাফিজ ৪/৪৩, মাশরাফি ০/৩৩, রুবেল ১/৩৮, মাহমুদউল্লাহ ০/৩১, সৌম্য ১/১৯)

ফলাফল : বাংলাদেশ ৩৭ রানে জয়ী।

হাসান আলিকে ফেরালেন মোস্তাফিজ

দারুণ বোলিং পাকিস্তানকে চেপে ধরেছিল বাংলাদেশের বোলাররা। সে বলয় ভাঙতে চেয়েছিলেন হাসান আলি। রানের গতি বাড়াতে উইকেটে নেমেই আগ্রাসী ব্যাট চালাচ্ছিলেন তিনি। মোস্তাফিজের বলে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে বল তুলে ফেলেন আকাশে। মিডঅনে সহজ ক্যাচ লুফে নিয়েছেন মাশরাফি। ১১ বলে ৮ রান করেছেন হাসান।

৪৪ ওভার শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ৮ উইকেটে ১৮২ রান। ৬ রান নিয়ে ব্যাট করছেন মোহাম্মদ নাওয়াজ। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন শাহিন শাহ আফ্রিদি।

ভয়ংকর ইমামকে ফেরালেন মাহমুদউল্লাহ

একাই পাকিস্তানকে টেনে নিয়ে যাচ্ছিলেন ইমাম-উল-হক। নিজেও এগিয়ে যাচ্ছিলেন সেঞ্চুরির পথে। কিন্তু ক্ষণিকের মনঃসংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার সুযোগটা দারুণভাবে নিয়েছে বাংলাদেশ। তাকে স্টাম্পিংয়ের ফাঁদে ফেলেছেন মাহমুদউল্লাহ। এগিয়ে রক্ষণাত্মকভাবে ফেরাতে গিয়ে বল মিস করলে তড়িৎ গতিতে স্টাম্প ভাঙেন লিটন। ১০৫ বলে ৮৩ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলেছেন ইমাম। ২টি চার ও ১টি ছক্কায় এ রান করেন তিনি।

৪১ ওভার শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ৭ উইকেটে ১৬৯ রান। ১ রান নিয়ে ব্যাট করছেন মোহাম্মদ নাওয়াজ। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন হাসান আলি।

আসিফকে স্টাম্পিং করে লিটনের দায়মোচন

মোস্তাফিজুর রহমানের বলে আসিফ আলির সহজ ক্যাচ ছেড়েছিলেন লিটন দাস। আসিফ তখন ছিলেন ২২ রানে। আগ্রাসী এ ব্যাটসম্যান বড় ক্ষতি করার আগেই তাকে আউট করেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। অবশ্য এতে কৃতিত্ব আছে সেই লিটনের। দারুণ স্টাম্পিং করেছেন এ কিপার। তাতে কিছুটা দায়মোচন হলো তার। ৩৭ বলে ৩১ রান করেছেন এ ব্যাটসম্যান।

৪০ ওভার শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ১৬৫ রান। ৮২ রান নিয়ে ব্যাট করছেন ইমাম-উল-হক। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন মোহাম্মদ নাওয়াজ।

ইমামের হাফ সেঞ্চুরি

৯৬ রানেই পাকিস্তানের প্রথম সারির পাঁচ উইকেট তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ। তবে অপর প্রান্তটা ঠিকই আগলে রেখেছেন ওপেনার ইমাম-উল-হক। এর মধ্যেই ওয়ানডে ক্যারিয়ারের তৃতীয় হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন এ ওপেনার। যার তিনটিই এলো চলতি এশিয়া কাপে। ৭৪ বলে হাফ সেঞ্চুরি স্পর্শ করেছেন তিনি।

৩১ ওভার শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ১১৫ রান। ৫০ রান নিয়ে ব্যাট করছেন ইমাম-উল-হক। আসিফ আলি খেলছেন ১৪ রান নিয়ে।

সৌম্যর শিকার সাদাব

দলের সেরা বোলার সাকিব আল হাসান নেই। নেই বাঁহাতি স্পিনার নাজমুল ইসলাম অপুও। পঞ্চম বোলার খুঁজতে তাই পার্টটাইম বোলারদের দ্বারস্থ হতে হয় মাশরাফিকে। আর বল হাতে পার্ট টাইম বোলার সৌম্য সরকারও এনে দিলেন সাফল্য। দারুণ এক বাউন্সারে সাদাব খানকে উইকেটরক্ষক লিটন দাসে ক্যাচে পরিণত করে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের প্রথম উইকেটের স্বাদ পেলেন সৌম্য। ২৪ বলে ৪ রান করেছেন সাদাব।

২৬ ওভার শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ৯৬ রান। ৪৫ রান নিয়ে ব্যাট করছেন ইমাম-উল-হক। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন আসিফ আলি।

মাশরাফির দুর্দান্ত ক্যাচে আউট মালিক

সেট হয়ে গেলে কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারেন শোয়েব মালিক তা কদিন আগেই বুঝেছিল আফগানিস্তান। নজির আছে আরও অনেক। এদিন ক্রমেই ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছিলেন এ ব্যাটসম্যান। তবে বড় ভোগান্তিতে ফেলার আগে তাকে ফিরিয়েছেন রুবেল হোসেন। তবে এর পুরো কৃতিত্বই অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার। মিড উইকেটে ঝাঁপিয়ে রীতিমতো উড়ন্ত এক ক্যাচ ধরেছেন তিনি। তাতে কিছুটা স্বস্তি ফিরে এসেছে টাইগার শিবিরে।

আউট হওয়ার আগে ৫১ বলে ৩০ রান করেছেন মালিক। তবে ১৮ রানে তিন উইকেট পরার পর ইমামের সঙ্গে গড়েছেন মূল্যবান ৬৭ রানের জুটি। ২১ ওভার শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৮৭ রান। ৩৯ রান নিয়ে ব্যাট করছেন ইমাম-উল-হক। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন সাদাব খান।

মোস্তাফিজের জোড়া আঘাত

উইকেটে নেমেই আগ্রাসী ব্যাটিং করছিলেন সরফরাজ খান। তার খেসারত দিতে খুব বেশি সময় নেননি তিনি। মোস্তাফিজের বলে ড্রাইভ করতে গিয়ে ধরা পড়েন উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহীমের হাতে। ৭ বলে ১০ রান করেছেন সরফরাজ।

৪ ওভার শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ২১ রান। ৭ রান নিয়ে ব্যাট করছেন ইমাম-উল-হক। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন শোয়েব মালিক।

মিরাজের পর মোস্তাফিজের আঘাত

ভয়ঙ্কর ব্যাটসম্যান বাবর আজমকে শুরুতেই ফিরিয়ে দিয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান। তার বল রক্ষণাত্মক ভাবেই খেলতে চেয়েছিলেন বাবর। তবে মিস করলে এলবিডাব্লিউর ফাঁদে পড়েন তিনি। ফলে শুরুতেই পাকিস্তানকে চেপে ধরেছে বাংলাদেশ দল। ৩ বলে ১ রান করেছেন বাবর।

২ ওভার শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ২ উইকেটে ১১ রান। ৩ রান নিয়ে ব্যাট করছেন ইমাম-উল-হক। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন অধিনায়ক সরফরাজ খান।  

শুরুতেই মিরাজের আঘাত

ইনিংসের তৃতীয় বলেই এগিয়ে গিয়ে ব্যাট চালাতে গিয়েছিলেন ফাখার জামান। উদ্দেশ্য লংঅনের উপর দিয়ে সীমানা পার করা। কিন্তু লাফিয়ে উঠে সে বল দারুণ ভাবে ধরেছেন রুবেল হোসেন। ফলে পাকিস্তান শিবিরে শুরুতেই আঘাত হানেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ৪ বলে ১ রান করেছেন ফাখার।

১ ওভার শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ১ উইকেটে ৩ রান। ১ রান নিয়ে ব্যাট করছেন ইমাম-উল-হক। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন বাবর আজম।

পাকিস্তানকে ২৪০ রানের লক্ষ্য দিয়েছে বাংলাদেশ

মুশফিকুর রহীম ও মোহাম্মদ মিঠুন যখন ব্যাট করছিলেন তখন মনে হচ্ছিল ২৭০ থেকে ২৮০ রান খুব সম্ভব। অসম্ভব নয় ৩০০ রানও। কিন্তু সে জুটি ভাঙতেই বদলে যায় সব। শেষ দিকে পাকিস্তানী বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে পুরো ৫০ ওভারই খেলতে পারেনি টাইগাররা। ২৩৯ রানেই অলআউট হয়ে যায় তারা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ: ২৩৯/১০ (৪৮.৫ ওভার) (লিটন ৬, সৌম্য ০, মুমিনুল ৫, মুশফিক ৯৯, মিঠুন ৬০, ইমরুল ৯, মাহমুদউল্লাহ ২৫, মিরাজ ১২, মাশরাফি ১৩, রুবেল ১, মোস্তাফিজ ০*; জুনায়েদ ৪/১৯, আফ্রিদি ২/৪৭, হাসান ২/৬০, নাওয়াজ ০/৩৯, মালিক ০/১৪, শাদাব ১/৫২)

জুনায়েদের চতুর্থ শিকার মাহমুদউল্লাহ

রানের গতি বাড়াতে চেয়েছিলেন মাহমুদউল্লাহ। তাই জুনায়েদের বলে সপাটে ব্যাট চালিয়েছেন তিনি। কিন্তু মিস করে বোল্ড হয়ে যান তিনি। আউট হওয়ার আগে ৩১ বলে ২৫ রান করেন মাহমুদউল্লাহ।

৪৮ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ২৩২/৮। ৬ রানে ব্যাট করছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন রুবেল হোসেন।

ফিরেই মিরাজকে ফেরালেন জুনায়েদ

বোলিংয়ে ফিরেই মেহেদী হাসান মিরাজকে ফিরিয়েছেন জুনায়েদ খান। তাকে মিডউইকেটে বদলি ফিল্ডার শান মাসুদের ক্যাচে পরিণত করেন তিনি।১১ বলে ১২ রান করে ফিরেন মিরাজ।

৪৬ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ২২২/৭। ২২ রানে ব্যাট করছেন মাহমুদউল্লাহ। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা।

মুশফিকের এক রানের আক্ষেপ

ভাগ্যটা শেষ পর্যন্ত সঙ্গ দিল না মুশফিককে। পাঁজরের একটি হাড় ভাঙা। ব্যাথানাশক ঔষধ খেয়ে খেলছেন মুশফিকুর রহীম। তার উপর মাঝে মধ্যেই নিজের উপস্থিতি জানিয়ে যায় সে ব্যাথা। কিন্তু তাই নিয়েও ৯৯ রানের দারুণ এক ইনিংস খেললেন লিটল মাস্টার। এক রানের আক্ষেপ নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় তাকে। বাংলাদেশের প্রথম কোন ব্যাটসম্যান হিসেবে ৯৯ রানে আউট হলেন মুশফিক। শাহিন আফ্রিদির বলে উইকেটরক্ষক সরফরাজ খানের হাতে ধরা পড়েন তিনি।

৪২ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ২০২/৬। ২২ রানে ব্যাট করছেন মাহমুদউল্লাহ। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ।

সাদাবের ঘূর্ণিতে কাবু ইমরুল

এ যেন অলিখিত নিয়মে পরিণত হয়েছে বাংলাদেশ দলের। জুটি ভাঙার কিছুক্ষণ পার না হতেই সাজঘরমুখী হন আরও দুই এক ব্যাটসম্যান। মোহাম্মদ মিঠুনের বিদায়ের ধাক্কা কাটতেই আউট হয়েছেন ইমরুল কায়েস। সাদাব খানের বলে এলবিডাব্লিউর ফাঁদে পড়েন এ বাঁহাতি। ১০ বলে ৯ রান করেছেন ইমরুল।

৩৭ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ১৬৯/৫। ৮১ রান নিয়ে ব্যাট করছেন মুশফিক। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

মিঠুনের বিদায়ে ভাঙল জুটি

মুশফিকুর রহীমের সঙ্গে ১৪৪ রানের দারুণ এক জুটি গড়েছিলেন মোহাম্মদ মিঠুন। ১২ রানে ৩ উইকেট হারানো বাংলাদেশকে পথ দেখিয়েছিলেন। কিন্তু তার প্রতিরোধ শেষ হলো ভুল শটে। হাসান আলির বলে ফ্লিক করতে গিয়ে আকাশে উঠিয়ে দেন তিনি। দৌড়ে এসে নিজেই সে ক্যাচ লুফে নেন হাসান। ৮৪ বলে ৬০ রানের ইনিংস খেলেছেন মিঠুন।  

৩৪ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ১৫৭/৪। ৭৮ রান নিয়ে ব্যাট করছেন মুশফিক। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন ইমরুল কায়েস।

মুশফিকের পর মিঠুনের হাফসেঞ্চুরি

এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দারুণ এক সময় উপযোগী হাফ সেঞ্চুরি করেছিলেন মোহাম্মদ মিঠুন। এরপর যেন নিজেকে হারিয়ে খুঁজছিলেন এ ব্যাটসম্যান। তবে পাকিস্তানের বিপক্ষে আবারও প্রয়োজনের সময়ে জ্বলে উঠল তার ব্যাট। এর মধ্যেই তুলে নিয়েছেন নিজের দ্বিতীয় হাফ সেঞ্চুরি। হাসান আলির বলে দারুণ পুল শটে চার মেরেই ফিফটি স্পর্শ করেন তিনি। মুশফিকের সঙ্গে গড়েছেন দারুণ এক জুটিও।

২৯ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ১৩৬/৩। মুশফিক ৬৮ ও মিঠুন ৫১ রানে ব্যাট করছেন।

মুশফিকের হাফ সেঞ্চুরি

দুর্দান্ত ছন্দে আছেন উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহীম। আরও একবার বাংলাদেশের বিপর্যয়ে বুক চিতিয়ে লড়াই করছেন। এর মধ্যেই তুলে নিয়েছেন নিজের হাফ সেঞ্চুরি। ৬৮ বলে নিজের হাফসেঞ্চুরি স্পর্শ করেন তিনি। সাদাব খানের বলে লং অনে ঠেলে দিয়ে নিজের ফিফটি পূরণ করেন এ ব্যাটসম্যান।

শুধু তাই নয় মোহাম্মদ মিঠুনের সঙ্গে এর মধ্যেই গড়েছেন শতরানের জুটি। হাফসেঞ্চুরির পথে আছেন মিঠুনও।

২৫.৫ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ১১৫/৩। মুশফিক ৫৭ ও মিঠুন ৪৪ রানে ব্যাট করছেন।

চতুর্থ উইকেটে মুশফিক-মিঠুনের পঞ্চাশ রানের জুটি

দলীয় ১২ রানেই নেই রপ্তহম সারির তিন ব্যাটসম্যান। বড় চাপে দলের হাল আবারো মোহাম্মদ মিঠুনকে ধরেছেন দলের সেরা ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহীম। এর মধ্যেই গড়েছেন ৫০ রানের জুটি। শাদাব খানের বলে রিভার্স সুইপে চার মেরে জুটির রান পূরণ করেনন মুশফিক। জুটির পঞ্চাশ স্পর্শ করতে লেগেছে ৭০ বল।

১৬ ওভার শেষে বাংলাদেশের স্কোর ৬৩/৩। মুশফিক ৩৪ ও মিঠুন ১৬ রানে ব্যাট করছেন।

জুনায়েদের দ্বিতীয় শিকার লিটন

আরও একটি জাদুকরী বল। পার্থক্য এবার করলেন জুনায়েদ খান। রক্ষণাত্মক ভাবেই খেলতে গিয়েছিলেন লিটন দাস। কিন্তু সুইং করে উড়িয়ে নেয় অফ স্টাম্প। ফলে বড় চাপে বাংলাদেশ। ২৬ বলে ৬ রান করেছেন লিটন।

৫ ওভার শেষে বাংলাদেশ দলের স্কোর ৩ উইকেটে ১২ রান। ০ রান নিয়ে ব্যাট করছেন মুশফিকুর রহীম। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন মোহাম্মদ মিঠুন।

আফ্রিদির বলে আউট মুমিনুল

লম্বা সময় পর আবার ওয়ানডে সংস্করণে সুযোগ পেয়েছিলেন মুমিনুল। আফগানিস্তানের বিপক্ষে হতাশ করার পর এদিনও হতাশ করলেন এ বাঁহাতি। তবে নিজেকে কিছুটা দুর্ভাগা ভাবতেই পারেন তিনি। আউট হয়েছেন শাহিন আফ্রিদির জাদুকরী একটি বলে দারুণ ইন সুইঙ্গারে বোল্ড হয়ে যান এ ব্যাটসম্যান। ৫ বলে ৪ রান করেছেন তিনি।

৪ ওভার শেষে বাংলাদেশ দলের স্কোর ২ উইকেটে ১২ রান। ৬ রান নিয়ে উইকেটে আছেন লিটন কুমার দাস। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন মুশফিকুর রহীম।

শুরুতেই ফিরলেন সৌম্য

ওপেনিংয়ের সমস্যাটা থেকেই গেল। হলো সৌম্য সরকারকে দিয়েও। জুনায়েদ খানের বলে পুল করতে চেয়েছিলেন তিনি। বল ব্যাটের কানায় লেগে উঠে যায় আকাশে। সে ক্যাচ লুফে নিতে কোন ভুল করেননি ফাখার জামান। ৫ বল খেলেও রানের খাতা খুলতে পারেননি সৌম্য।

৩ ওভার শেষে বাংলাদেশ দলের স্কোর ১ উইকেটে ৫ রান। ৪ রান নিয়ে ব্যাট করছেন লিটন কুমার দাস। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নেমেছেন মুমিনুল হক।

একাদশে তিন পরিবর্তন, নেই সাকিব

গুরুত্বপূর্ণ এ ম্যাচে শুরুতেই বড় ধাক্কা খেয়েছে বাংলাদেশ। একাদশে নেই দলের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় সাকিব আল হাসান। আগে থেকেই আঙুলের চোট ছিল এ অলরাউন্ডারের। নিয়মিত ইনজেকশন নিয়ে খেলতেন তিনি। তবে আঙুলের ব্যাথা বাড়ায় এদিন খেলতে পারছেন তিনি। তার জায়গায় ফিরেছেন মুমিনুল হক।

এশিয়া কাপে এখন পর্যন্ত জ্বলে ওঠেনি ওপেনিং জুটি। দলের সেরা ওপেনার তামিম ইকবালের ইনজুরির পর তার ঘাটতি পোষাতে নানা পরীক্ষা নিরীক্ষার অংশ হিসেবে বুধবার সুযোগ পেয়েছেন সৌম্য সরকার। দুদিন আগেই হুট করেই তাকে ডেকে পাঠানো হয়। সৌম্যকে জায়গা দিতে বাদ পড়েছেন তরুণ নাজমুল হোসেন শান্ত। পরিবর্তন আছে আরও। একাদশে নেই নাজমুল ইসলাম অপু। তার জায়গায় ফিরেছেন পেসার রুবেল হোসেন।

সব মিলিয়ে তাই ম্যাচে কিছুটা হলেও এগিয়ে থাকবে পাকিস্তান। কারণ অনেক বছর থেকেই দুবাই ও আবুধাবি পাকিস্তানের হোম ভেন্যু। এখানকার কন্ডিশন খুব ভালো করেই চেনা তাদের। অপরদিকে প্রচণ্ড গরমে আসরের শুরু থেকেই হাঁসফাঁস করার মতো অবস্থা টাইগারদের।

বাংলাদেশ দল : লিটন কুমার দাস, সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস, মুশফিকুর রহীম, মুমিনুল হক, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোহাম্মদ মিঠুন, মেহেদী হাসান মিরাজ, মাশরাফি বিন মুর্তজা, মোস্তাফিজুর রহমান ও রুবেল হোসেন।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ

আরও একটি স্বপ্নের ফাইনালের দ্বারে বাংলাদেশ। সামনে বাধা হয়ে দাঁড়িয়ে পাকিস্তান। জয় পেলেই এশিয়া কাপের ফাইনালে খেলবে বাংলাদেশ। সমান সম্ভাবনা রয়েছে পাকিস্তানেরও। তারা জিতলে প্রথমবারের মতো হবে ভারত-পাকিস্তান ফাইনাল। ম্যাচটি তাই অলিখিত সেমি ফাইনাল। এমন ম্যাচে টস জিতে নিয়েছেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। বেছে নিয়েছেন ব্যাটিং। আবুধাবিতে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৫টায়।

Comments

The Daily Star  | English

New School Curriculum: Implementation limps along

One and a half years after it was launched, implementation of the new curriculum at schools is still in a shambles as the authorities are yet to finalise a method of evaluating the students.

9h ago