ভারতের প্রতিবেশী নীতি ও বাংলাদেশের অবস্থান

বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের রয়েছে এক ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক বন্ধন। সেই হিসেবে, ভারতের প্রতিবেশী নীতি বাংলাদেশের জন্য বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ।

সম্প্রতি বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার প্রণয় ভার্মা বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বর্তমান দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককে পারস্পরিক উন্নয়নের পরিপূরক হিসেবে উল্লেখ করে বলেছেন, নয়াদিল্লি তার 'প্রতিবেশী নীতি'তে ঢাকাকেই প্রথম গণ্য করে।

ভারতীয় হাইকমিশনে 'ভারত বিচিত্রা'র সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে এর বিশেষ সংস্করণের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী তিনি আরও বলেছেন, 'ভারত বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ককে সবচেয়ে বেশি অগ্রাধিকার দেয়। আমরা প্রায়ই যেমনটি বলে থাকি, আমাদের কাছে প্রতিবেশী প্রথম, আসলে প্রতিবেশী দ্বিতীয়, বাংলাদেশই প্রথম।'

ভারত একটি বড় দেশ। শুধু বড় দেশই নয়, এই অঞ্চলের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামরিক শক্তি। সে কারণেই প্রতিবেশীদের প্রতি তার আচরণ, তথা তার প্রতিবেশী নীতি নিয়ে প্রতিবেশীদের আগ্রহ থাকবে—সেটাই স্বাভাবিক। আর, বাংলাদেশের জন্য এটি বিশেষভাবে তাৎপর্যবহ এ কারণেই যে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের রয়েছে এক ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক বন্ধন। সেই হিসেবে, ভারতের প্রতিবেশী নীতি বাংলাদেশের জন্য বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ।

প্রসঙ্গত স্মরণ করা যেতে পারে, ভারতের বর্তমান মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর পরই তার পররাষ্ট্র নীতিতে এই 'প্রতিবেশী প্রথম' নীতি সংযোজন করে। তবে প্রথম দিকে এ নিয়ে প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলো বেশ উল্লসিত ও উৎফুল্ল হলেও ক্রমে সেই উৎফুল্লতা কাটতে শুরু করেছে। অনেকেই ভাবতে শুরু করেছেন, ভারতের এই প্রতিবেশী প্রেম যত না প্রতিবেশীদের প্রতি দায়িত্ববোধজাত, তার চেয়ে অনেক বেশি ভারতের নিজস্ব স্বার্থচিন্তা থেকে উৎসারিত।

অনেকে আবার এক পা এগিয়ে গিয়ে মনে করেন যে ভারতের এই 'প্রতিবেশী নীতি' মূলত এই অঞ্চলের আর এক পরাশক্তি চীনের প্রভাব ঠেকানোর প্রয়াস মাত্র। তাদের যুক্তি, গত কয়েক দশক ধরে চীন এই অঞ্চলে তার প্রভাব বিস্তারে কাজ করে চলেছে। এ লক্ষ্যে চীন তার আন্তমহাদেশীয় বিআরআই (বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ) প্রকল্পের মাধ্যমে এ অঞ্চলের দেশগুলোতে তার প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। স্বাভাবিকভাবেই বিশ্বের আরেক পরাশক্তি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র চীনের এই প্রয়াসকে ভালো চোখে দেখছে না। তাই সে ভারতের মাধ্যমে চীনকে ঠেকানোর চেষ্টা করে যাচ্ছে।

অন্যদিকে ভারত নিজেও পরাশক্তি হিসেবে আবির্ভূত হওয়ার আগ্রহ রাখে। তারই প্রয়াস হিসেবে 'প্রতিবেশী নীতি'র জন্ম বলে অনেকেই মনে করেন। তবে উপলক্ষ আর পটভূমি যাই হোক না কেন, এ কথা অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই যে ভৌগোলিক অবস্থানগত কারণেই ভারতের প্রতিবেশী দেশগুলোকে ভারতের সঙ্গে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্কের বন্ধনে আবদ্ধ হতে হবে। এ ক্ষেত্রে ভারতের 'প্রতিবেশী প্রথম' নীতি নিঃসন্দেহে ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে পারে।

কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, নিজের নীতির ক্ষেত্রে ভারত নিজে কতটুকু আন্তরিক এবং সেইসঙ্গে এই 'প্রথম'টাই বা কে? ২০১৮ সালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ক্ষমতা গ্রহণের পর প্রথমবার যখন নেপাল সফরে যান, তখন জনকপুরে এক বিশাল সংবর্ধনা সভায় ঘোষণা করেন, ভারতের 'প্রতিবেশী প্রথম' নীতির শীর্ষে রয়েছে নেপাল (এবিপি আনন্দ, ১১ মে ২০১৮)। অর্থাৎ ভারতের কাছে নেপালই প্রথম। এর ঠিক ৫ বছর পর ভারতীয় হাইকমিশনার বলছেন, ভারতের কাছে বাংলাদেশই প্রথম। তিনি জোর দিয়ে বলেছেন, প্রতিবেশী নয়, বাংলাদেশই প্রথম। অর্থাৎ বাংলাদেশকে তারা প্রতিবেশী মনে করে না, মনে করে 'ঘরের মানুষ'।

এবারে দেখা যাক এই 'ঘরের মানুষ'র সঙ্গে ভারতের সম্পর্কটা কেমন। আধুনিক বিশ্বে দুটো দেশের মধ্যে সম্পর্ককে মূল্যায়ন করা হয় তাদের মাঝে বিদ্যমান অর্থনৈতিক ক্রিয়াকর্মাদির আলোকে। যদি এই সম্পর্ক দুই দেশের মধ্যে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে সমান সুযোগ নিশ্চিত করে, তবেই একে আদর্শ সম্পর্ক বলা চলে। তাহলে দেখেই নেওয়া যাক বাংলাদেশের সঙ্গে এটি কেমন চলছে।

এ প্রসঙ্গে মনে রাখা দরকার, বাজার অর্থনীতির এই যুগে সবকিছুই নিয়ন্ত্রণ করে বাজার। আর ১৬ কোটি মানুষের দেশ বাংলাদেশ যে বৃহৎ অর্থনৈতিক শক্তি ভারতের কাছে একটি বিশাল সুবিধাজনক বাজার, তাতে কারো সন্দেহ থাকার কথা নয়।

এক হিসাব মতে, ২০১৮-১৯ সালে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে ভারতের মোট আমদানি পরিমাণ ছিল ৪০০ বিলিয়ন ডলারের বেশি। ২০১৯-২০ সালে শুধু শীর্ষ ১০ দেশ থেকেই এই আমদানির পরিমাণ দাঁড়ায় ৩৬১ বিলিয়ন ডলারের বেশি। কিন্তু সেখানে বাংলাদেশের নাম নেই। অর্থাৎ ভারত বিশ্ববাজার থেকে অনেক পণ্য কিনছে, কিন্তু বাংলাদেশ থেকে নয়। আবার একই ধরনের পণ্য বিশ্ববাজারে পাঠালেও বাংলাদেশ তা ভারতে পাঠাচ্ছে না বা পাঠাতে পারছে না।  এর কারণ হিসেবে অনেকেই মনে করেন, ভারত সরকার সেদেশের পরিস্থিতি ও প্রয়োজনকে গুরুত্ব দেয়; প্রাধান্য দেয় সেখানকার ব্যবসায়ীদের দাবিকে। ফলে স্থানীয় শিল্প-ব্যবসাকে সুরক্ষা দিতে কখনো বাংলাদেশি পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে কাউন্টার ভেইলিং ডিউটি (সিভিডি) আরোপ করছে, কখনো বা বিশেষ কোনো পণ্যে বসাচ্ছে অ্যান্টি ডাম্পিং ডিউটি।

এক সময় বাংলাদেশের তৈরি পোশাক রপ্তানির ওপর ভারত কাউন্টার ভেইলিং ডিউটি (সিভিডি) আরোপ করেছিল। ২০১৪ সালে তা প্রত্যাহার করে নিলেও এখন পাটজাত পণ্যে ধার্য করা হয়েছে অ্যান্টি ডাম্পিং ডিউটি। ফলে ভারতের বাজারে পণ্য রপ্তানিতে খুব একটা সুবিধা করতে পারছে না বাংলাদেশ। ঢাকায় ভারতীয় হাই কমিশন অফিসের দেওয়া তথ্য মতে, ২০১৯-২০ অর্থবছরে বাংলাদেশ ভারতে রপ্তানি করেছে মোট ১০৯ কোটি ৬৩ লাখ ৮০ হাজার মার্কিন ডলারের পণ্য। একই সময়ে ভারত থেকে আমদানি করা হয়েছে ৫৭৯ কোটি ৩৬ লাখ ডলারের পণ্য। এ থেকেই বোঝা যায়, ভারত যত কথাই বলুক না কেন, বাংলাদেশকে তারা দেখে নিছক একটা বাজার হিসেবে।

এবারে তাকানো যাক ট্রানজিটের দিকে। বাংলাদেশের ৪০০ থেকে ৫০০ কিলোমিটার সড়ক ব্যবহার করে ভারত তার দেশে পণ্য পরিবহন করছে। কিন্তু নেপাল-ভুটানে সরাসরি পণ্য পাঠাতে ভারতের মাত্র ১৫ থেকে ২০ কিলোমিটার সড়ক ব্যবহার করার বাংলাদেশের অনুরোধ ঝুলিয়ে রেখেছে নরেন্দ্র মোদি সরকার। অনেক বিশ্লেষকই মনে করেন, নেপাল ও ভুটানে ভারতের একচেটিয়া বাজার হারানোর ভয়েই ভারত তা ঝুলিয়ে রেখেছে।

প্রসঙ্গত স্মর্তব্য, ২০১৮ সালের অক্টোবরে চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দর ব্যবহার করে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোয় পণ্য সরবরাহে দুই দেশের মধ্যে চুক্তি সই হয়। এরপর ভারতীয় পণ্যবাহী জাহাজ আসে মোংলা বন্দরে। আগে যেখানে ১ হাজার ৪০০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে কলকাতা বন্দর দিয়ে রপ্তানি হতো আসামের পণ্য, সেখানে বাংলাদেশের ৫২০ কিলোমিটার সড়ক ব্যবহার করে অনায়াসেই পণ্য পৌঁছে যাচ্ছে ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় আসাম ও মেঘালয় রাজ্য। এতে তাদের যেমন বিপুল সময় বাঁচছে, তেমনি বাঁচছে অর্থও।

এত সুবিধা পাওয়ার পরেও নেপাল ও ভুটানে পণ্য রপ্তানিতে ভারতের কাছে নিয়মিত ট্রানজিট পাচ্ছে না বাংলাদেশ। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সড়কপথে বাংলাদেশ-নেপালের মাঝে ১৫-২০ কিলোমিটার এলাকা ভারতের 'চিকেন নেক' নামে পরিচিত। এই চিকেন নেকেই বারবার আটকে যাচ্ছে বাংলাদেশ। বিশ্লেষকরা মনে করেন, ট্রানজিট দিলে বাংলাদেশ থেকে সরাসরি পণ্য নিতে আগ্রহ বাড়বে নেপাল-ভুটানের। আবার পণ্য আমদানিতে কলকাতার পরিবর্তে মোংলা বন্দর ব্যবহারে খরচ কমবে প্রায় ৩০ শতাংশ। এসব কারণেই ভারত নিয়মিত ট্রানজিট দিতে টালবাহানা করছে।

এবারে আসা যাক দুই দেশের মধ্যে অভিন্ন নদীর পানির হিসেবে। গত এক যুগেরও বেশি সময় ধরে ভারত তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তিকে নানা টালবাহানায় আটকে রেখেছে। অন্যদিকে তড়িঘড়ি করে ফেনী নদীর পানিবণ্টন চুক্তি সই করিয়ে নিয়েছে। সম্প্রতি শোনা যাচ্ছে, তিস্তার উজানে গজল ডোবায় বাঁধ নির্মাণ করে সেখানে জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন করতে যাচ্ছে ভারত। এটি হলে তিস্তা ও ধরলা অববাহিকায় যত নদীর শাখা-প্রশাখা আছে, সবগুলো পানি শূন্য হয়ে পড়বে, সংলগ্ন অঞ্চল মরুভূমি সদৃশ হবে।

উপর্যুক্ত পর্যালোচনায়, ভারতের প্রতিবেশী নীতিতে বাংলাদেশের অবস্থান পরিষ্কার করার সময় এসেছে। শুধু 'প্রথম, প্রথম' বললেই হবে না, দুই দেশের পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়গুলোকে বিদ্যমান বাস্তবতার আলোকে বিশ্লেষণ করে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে হবে। নইলে দুদেশের মধ্যে অবিশ্বাস আর সন্দেহের প্রাচীর কেবলই উঁচু হতে থাকবে—যা প্রকারান্তরে কারোর জন্যই সুখকর হবে না, না ভারতের জন্য, না বাংলাদেশের জন্য।

মোশতাক আহমেদ: সাবেক জাতিসংঘ কর্মকর্তা

[email protected]

(দ্য ডেইলি স্টারের সম্পাদকীয় নীতিমালার সঙ্গে লেখকের মতামতের মিল নাও থাকতে পারে। প্রকাশিত লেখাটির আইনগত, মতামত বা বিশ্লেষণের দায়ভার সম্পূর্ণরূপে লেখকের, দ্য ডেইলি স্টার কর্তৃপক্ষের নয়। লেখকের নিজস্ব মতামতের কোনো প্রকার দায়ভার দ্য ডেইলি স্টার নিবে না।)

Comments

The Daily Star  | English

End crackdown on Bawm community, Amnesty urges PM

It expressed concern that the indigenous Bawm people are at serious risk of suffering collective punishment as the authorities assumed that the entire Bawm community are either part of or are supporters of the Kuki Chin National Front (KNF)

19m ago