ক্রিকেট

অবিশ্বাস্য ব্যাটিং ধসে বাংলাদেশের হার

সোমবার সিলেটে মেয়েদের এশিয়া কাপে ডিএলএস মেথডে শ্রীলঙ্কার কাছে ৩ রানে হেরেছে বাংলাদেশ। 

ম্যাচের প্রথম ভাগে দাপট স্পষ্ট ছিল বাংলাদেশের। দারুণ বল করে লঙ্কানদের চেপেও ধরেছিল। কিন্তু বৃষ্টির পর বদলে যায় হিসেব নিকেশ। ডিএলএস মেথডে পাওয়া লক্ষ্যের সমীকরণ আর মেলাতে পারেননি নিগার সুলতানা জ্যোতির দল। এক ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে অবিশ্বাস্য এক ব্যাটিং ধসে ম্যাচ খুইয়েছেন তারা। 

সোমবার সিলেটে মেয়েদের এশিয়া কাপে ডিএলএস মেথডে শ্রীলঙ্কার কাছে ৩ রানে হেরেছে বাংলাদেশ। 

ম্যাচ জিততে শেষ দুই ওভারে দরকার ছিল ১৪ রান।  শেষ ওভারেই ম্যাচ নিয়ে আসতে হতো মুঠোয়। সেই চেষ্টায় গিয়ে উল্টো বিপদে পড়ে বাংলাদেশ।

ইনোকা রানেওয়ারার বাঁহাতি স্পিনে রানের বদলে পড়তে থাকে উইকেট। ৬ বলের মধ্যে বাংলাদেশ হারায় ৪ উইকেট।  শেষ ওভারে দরকার দাঁড়ায় ১১ রানের। রিতু মনি-সালমা খাতুনরা মিলে নিতে পারেন ৬ রান।

এই হারে ৫ ম্যাচ শেষে ৪ পয়েন্ট নিয়ে পাঁচে থাকল বাংলাদেশ। পরের রাউন্ডে যেতে হলে ভারতের কাছে থাইল্যান্ডের হার ও নিজেদের শেষ ম্যাচে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে হারাতে হবে। পাশাপাশি ঠিক রাখতে রানরেটও।

আগের রাতের হালকা বৃষ্টির আমেজ থাকল সকাল বেলাতেও। মেঘলা আকাশের নিচে টস ভাগ্য পক্ষ এলো। আগে বোলিং বেছে লঙ্কানদের চেপেও ধরল বাংলাদেশ। ১৮.১ ওভারে শ্রীলঙ্কা ৮৩ রান তুলার পর বৃষ্টিতে বন্ধ হয়ে যায় খেলা। ঘন্টা দেড়েক পর ম্যাচ শুরু হলে শ্রীলঙ্কার ইনিংস আর সম্ভব হয়নি।

বৃষ্টি আইনে ৭ ওভারে তাই নিগারদের লক্ষ্য ঠিক হয় ৪১ রানের। লঙ্কান স্পিনে ৭ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ তুলতে পারে ৩৭ রান।

 

৪১ রানের লক্ষ্য নেমে শুরুটাই হয় বাজে। দ্বিতীয় ওভারে স্টাম্পিং হয়ে ফেরেন মুরশিদা খাতুন। তৃতীয় ওভারে ফারজানা হক পিংকিও এগিয়ে এসে হন স্টাপিং। অধিনায়ক নিগার নেমে বাউন্ডারি পেয়েছিলেন। রুমানার সঙ্গে মিলে শেষের আভাস দিচ্ছিলেন।

শেষ দুই ওভারে গিয়েই হয়ে যায় গড়বড়। রানেওয়ারার বলে উড়াতে গিয়ে ফিরে যান রুমানা। এক বল পরই অধিনায়ক নিগার একই চেষ্টায় ক্যাচ দেন। পঞ্চম বলে সুবহানা মুশতারিও ধরা দেন বাউন্ডারি লাইনে। ওভারের শেষ বলে রান আউট হয়ে যান ফাহিমা খাতুন। ৬ বলের মধ্যেই তালগোল পাকিয়ে ছিটকে যায় দল।

শেষ ওভারে চার-ছয় মেরে খেলা শেষ করার সামর্থ্য দেখাতে পারেননি সালমা।

টস জিতে বল করতে নেমে ভালো শুরু করে বাংলাদেশ। ফারিহা তৃষ্ণার জায়গায় এদিন একাদশে ফেরানো হয়েছিল অভিজ্ঞ জাহানারা আলমকে। এই সিদ্ধান্তের প্রতিদানও দ্রুতই দেন তিনি। দ্বিতীয় ওভারে চামারি আতাপাত্তুকে ভেতরে ঢোকানো বলে বোল্ড করে দেন জাহানারা।

হারশিতা সামারাবিক্রমা ও আনুশকা সঞ্জীবনী মিলে ইনিংস গড়ায় মন দেন। কিন্তু একের পর এক ডট বলের চাপ সরাতে পারেননি। ৮ম ওভারে আসে দ্বিতীয় উইকেট। হারশিতাকে কট বিহাইন্ডে ফেরান সানজিদা আক্তার মেঘলা। আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে হতাশা জানাতে দেখা যায় হারশিতাকে। পরের ওভারেই রুমানা আহমেদের আচমকা নিচু হওয়া বলে আনুশকা ক্যাচ উঠিয়ে ফিরে যান। 

ফাহিমা তুলে নেন হাসিনি পেরেরাকে। রুমানা আহমেদ ফেরান কাবিশা দিলহারিকে। তবে নিলাক্ষী ডি সিলভা টানছিলেন তার দলকে। এই ব্যাটার ৩১ বলে অপরাজিত থাকেন ২৮ রান করে। বৃষ্টি না এলে তিন অঙ্কে যাওয়ায় কঠিন ছিল শ্রীলঙ্কার। পরে মামুলি রান নিয়ে তারাই করেছে উৎসব।

Comments

The Daily Star  | English