বেতন বাড়ল নারী ক্রিকেটারদের

সর্বনিম্ন ৫০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ লাখ টাকা পর্যন্ত বেতন পাবেন নিগার-জাহানারারা।
ফাইল ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশের নারী দলের ক্রিকেটারদের বেতন ও ম্যাচ ফি বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। যেখানে সর্বনিম্ন ৫০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ লাখ টাকা পর্যন্ত বেতন পাবেন নিগার-জাহানারারা।

সোমবার মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের বিসিবি কার্যালয়ে বোর্ড পরিচালকদের সঙ্গে সভা শেষে নারী ক্রিকেটারদের বেতন বাড়ানোর কথা জানান বিসিবি প্রেসিডেন্ট নাজমুল হোসেন পাপন।

সব ক্যাটাগরিতেই বাড়ানো হয়েছে প্রায় ২০ শতাংশ করে। কিছু ক্ষেত্রে ২০ শতাংশের বেশি। একই সঙ্গে সবগুলো রাউন্ড ফিগার করে দেওয়া হয়েছে। অর্থাৎ আগে 'এ' ক্যাটাগরিতে যেটা ছিল ৮০ হাজার, সেটা বর্তমানে এক লাখ। 'সি' ক্যাটাগরির ৩৫ হাজারকে করা হয়েছে ৫০ হাজারে।

উল্লেখযোগ্য হারে বাড়ানো হয়েছে ম্যাচ ফিও। আন্তর্জাতিক টি-টুয়েন্টি ম্যাচে ৫০ হাজার এবং ওয়ানডে ম্যাচের ফি এক লাখ টাকা করা হয়েছে। আগে অবশ্য ম্যাচ ফি দেওয়া হতো ডলারে। টি-টুয়েন্টিতে ১৫০ ডলার এবং ওয়ানডেতে ৩০০ ডলার ম্যাচ ফি পেত মেয়েরা।

এর আগে ২০২১ সালের শেষ দিকে নারী ক্রিকেটারদের বেতন ৩৩ শতাংশ বাড়িয়েছিল বিসিবি। দেড় বছরের মাথায় এবার বাড়ল ২০ শতাংশ। বর্তমানে বোর্ডের চুক্তিতে আছেন ২৫ ক্রিকেটার। চারটি ক্যাটাগরিতে তাদের বেতন দেয় বিসিবি।

মেয়েদের বেতন নিয়ে বিসিবি প্রেসিডেন্ট পাপন বলেন, 'এত বাধা থাকা সত্ত্বেও বাংলাদেশের মেয়েরা যে ক্রিকেটটা খেলছে সে অনুযায়ী আমরা যে সুযোগ-সুবিধা দেই তা কিচ্ছু না। অন্য কোনো জায়গায় হলে ওরা আরও বেশি পেতো, আমরা তা জানি। আমি মনে করে এটা প্রথম পদক্ষেপ। বোর্ড থেকে বলা হয়েছে ম্যাচ ফি, স্যালারি যা পায় তা অনেক কম। আমরা এটাকে বাড়ানোর কথা বলেছি। আমরা আশা করছি আস্তে আস্তে বাড়তেই থাকবে। আমি মনে করি মেয়েদের ক্রিকেটের জন্য এটি তাৎপর্যপূর্ণ একটি পদক্ষেপ।'

এছাড়াও অষ্টম বোর্ড সভায় আজ বহুল প্রতীক্ষিত এবং আলোচিত আঞ্চলিক ক্রিকেট কমিটির অনুমোদন দিয়েছে বিসিবি। একই সঙ্গে নিজেদের টেলিভিশন চ্যানেল 'বিসিবি টিভি' চালু করার আবেদন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দেশের ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি।

Comments

The Daily Star  | English

Mohammadpur Geneva Camp: Narcos clashing over new heroin spot

Mohammadpur Geneva Camp, where narcotics trade is rampant, has been witnessing clashes every day since the day after Eid-ul-Fitr.

12h ago