বাধ্য হয়েই 'মাইন্ড সেটআপে' পরিবর্তন এনেছেন মুমিনুল

চার পাঁচ মাস পরপর টেস্ট খেলার সুযোগ হলেও কোনো আক্ষেপ নেই মুমিনুলের।
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

শুরুতে কিছুটা নড়বড়ে ছিলেন। তবে ধীরে ধীরে মানিয়ে তুলে নিলেন অসাধারণ এক সেঞ্চুরি। যেখানে সেঞ্চুরির সামনে ইয়ামিন আহমেদজাইকে আপারকাট করার সাহসও দেখিয়েছেন মুমিনুল হক। আত্মবিশ্বাস যেন আকাশ ছোঁয়া। কিন্তু পরের টেস্ট তাকে খেলতে হবে নভেম্বর-ডিসেম্বরে। সে সময় পর্যন্ত এই আত্মবিশ্বাস ধরে রাখা যে কোনো ক্রিকেটারের জন্যই কঠিন।

এমন বাস্তবতার সামনে দাঁড়িয়ে আক্ষেপ করার কথাই মুমিনুলের। কারণ সেই সময় পর্যন্ত পরিস্থিতি যেতে পারে পাল্টে। কিন্তু কিছুটা অবাক করেই এ ক্রিকেটার জানালেন, কোনো আক্ষেপ নেই তার। মাইন্ড সেটআপে পরিবর্তন করেছেন তিনি। চার পাঁচ মাস পরপর একটা দুইটা ম্যাচ খেলবেন এমনটা নিজের মনে গেঁথে নিয়েছেন এ ব্যাটার।

সংবাদ সম্মেলনে কিছু বাস্তবতার কথাই শুনিয়ে গেলেন মুমিনুল, 'আসলে আমি আমার মাইন্ড সেটআপটা ওভাবেই করে ফেলেছি, আগেও তো একবার দেখেছেন, ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট খেলছি এক বছর পরে। তো মাইন্ড সেটআপ ওভাবে তৈরি করলে কোনো সমস্যা হবে না। আল্টিলেমটলি ওইটা আমার হাতেই নেই, এটার সঙ্গে যুদ্ধ করেও পারবেন না। আমার হাতে যেটুক আছে ওইভাবে মাইন্ড সেটআপ করে খেলাটা উচিত মনে হয়।'

বছরের ছয় মাস পার হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত দুটি টেস্ট ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। যার একটি চলমান। পরের টেস্ট বছরের শেষে। তাই মুমিনুলকেও বাংলাদেশের জার্সিতে ফের খেলতে অপেক্ষা করতে হবে বছরের শেষ পর্যন্ত। কারণ জাতীয় দলে কেবল টেস্ট সংস্করণেই খেলেন মুমিনুল।

'আপনি যদি এই সেটআপ করতে পারেন যে, এক বছর পরে হোক, বা পাঁচ মাস বা প্রতিদিন হোক আমার জন্য যেটা হবে ভালো। এক এক জনের হয়তো একেক রকম থাকে, আমার জন্য এটাই। তবে এটা হয়তো জাকির বা জয়ের জন্য প্রযোজ্য নয়। আমার এটা আগে থেকেই সেটআপ করা,' মাইন্ড সেট আপের কারণ ব্যাখ্যা করে বলেন মুমিনুল।

এমন বাস্তবতার সামনে দাঁড়িয়ে এ সব পরিস্থিতিকে এখন অভ্যাসে পরিণত করা ছাড়া কোনো বিকল্প দেখছেন না তিনি, 'এছাড়া আমার কোনো অপশন নাই। আমার এটা অভ্যাসে পরিণত করতে হবে। আমি যখনই আসবো, আপনি কিন্তু পারফর্ম খুঁজবেন। আপনি কিন্তু দেখবেন না আমি পাঁচ মাস পরে নামছি নাকি এক বছর। আমি পারফর্ম না করলে কিন্তু আপনি ওভাবেই লিখবেন...'

মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুক্রবার টেস্টের তৃতীয় দিনে ১২১ রানের হার না মানা এক ইনিংস খেলেছেন মুমিনুল। ১৩ টেস্ট পর তিন অঙ্কের ছোঁয়া পেলেন এই ক্রিকেটার। এর মাঝে কেবল দুটি ফিফটি ছিল তার। কিছুটা বাজে সময়ই পার করছিলেন তিনি।

Comments

The Daily Star  | English

Situation still tense at Shanir Akhra

Panic as locals join protesters in clash with cops; Hanif Flyover toll plaza, police box set on fire; dozens feared hurt

6h ago