শেষ টি-টোয়েন্টিতে বড় ব্যবধানে হারল মেয়েরা

বাংলাদেশকে ৮ উইকেটে হারিয়ে সিরিজে সমতা এনেছে দক্ষিণ আফ্রিকা।
ফাইল ছবি

এক লতা মণ্ডল ছাড়া আর কোনো ব্যাটারই পারলেন না দায়িত্ব নিতে। তাও রানের গতি সে অর্থে বাড়াতে পারেননি। তাতে সাদামাটা পুঁজি নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয় বাংলাদেশের মেয়েদের। এরপর বোলাররাও পারেননি জ্বলে উঠতে। ফলে দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে বড় ব্যবধানেই হারতে হলো বাংলাদেশের মেয়েদের।

শুক্রবার কিম্বারলির ডায়মন্ড ওভালে বাংলাদেশকে ৮ উইকেটে হারিয়ে সিরিজে সমতা এনেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ৯৪ রান তোলে বাংলাদেশ। জবাবে ২৮ বল হাতে রেখেই জয় নিশ্চিত করে প্রোটিয়ারা।

এদিন টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ৪ রানেই ওপেনার মুর্শিদা খাতুন ও সোবহানা মোস্তারিকে হারায় বাংলাদেশ। দলীয় ১৭ রানে আরেক ওপেনার শামিমা সুলতানা ফিরলে বড় চাপে পড়ে তারা। পাওয়ার প্লেতে ৩ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৯ রান করতে পারে দলটি।

এরপর অধিনায়ক নিগার সুলতানাকে নিয়ে কিছুটা প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেন লতা মণ্ডল। ২৯ রানের জুটি গড়েন তারা। তবে রানের গতি বাড়াতে পারেননি। ৫৫ বলের এই জুটিতে ৩৫ বলে ১৪ রান করেন লতা। আর ২০ বলে ১১ রান করে আউট হন অধিনায়ক নিগার।

দলীয় ৪৬ রানে নিগার বিদায় নিলে স্বর্ণা আক্তারকে নিয়ে হাত খুলে খেলার চেষ্টা করেন লতা। ৩১ বলে ৪৬ রানের জুটি গড়েন তারা। তাতেই মূলত লড়াই করার পুঁজি পায় দলটি। ৮৮ বলে পঞ্চাশ তুলে নেওয়া দলটি শেষ পর্যন্ত ৯৪ রান তুলতে পারে।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪২ রানের ইনিংস খেলেন লতা। ৬২ বলের ইনিংসে ২টি চার মারেন এই ব্যাটার। এছাড়া ১৬ বলে ২টি চারের সাহায্যে ২৩ রান করে রানআউট হন স্বর্ণা। দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে ২টি করে উইকেট নিয়েছেন মাসাবাতা ক্লাস ও আয়ান্দা হ্লুবি।

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে জয় পেতে খুব একটা বেগ পেতে হয়নি দক্ষিণ আফ্রিকান মেয়েদের। অধিনায়ক লরা ওলভার্ডটের সঙ্গে ৩৫ রানের ওপেনিং জুটি গড়ে মারুফা আক্তারের বলে এলবিডাব্লিউর ফাঁদে পড়ে সাজঘরে ফেরেন তাজমিন ব্রিটজ। এরপর অবশ্য দ্রুত আনিকে বোসচকে তুলে নেন শরিফা খাতুন। বাংলাদেশের সাফল্য এইটুকুই। এরপর সুনে লুসকে নিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেই মাঠ ছাড়েন লরা।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৯ রানের ইনিংস খেলেন অধিনায়ক লরা। ৪৯ বলে ৫টি চারের সাহায্যে এই রান করেন তিনি। তাজমিন খেলেন ১৭ রানের ইনিংস। সুনে করেন ১৫ রান। বাংলাদেশের পক্ষে একটি করে উইকেট পান মারুফা ও শরিফা।

Comments