টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও থাকা হচ্ছে না ইবাদতের

জুলাইতে চোটে পড়া ইবাদতের পায়ে লন্ডনে অস্ত্রোপচার করা হয় অগাস্টের ৩০ তারিখ। এরপর থেকেই পুনর্বাসনে আছেন তিনি। তার চোট সেরে উঠতে যে লম্বা সময় লাগবে সেটা তখন নিশ্চিত করেছিলেন চিকিৎসকরাও।  দীর্ঘ ও ক্লান্তিকর পুনর্বাসন প্রক্রিয়া শেষ হতে সময় লাগবে আরও মাস সাতেক।
Ebadot Hossain
ইবাদত হোসেন। ফাইল ছবি: স্টার

চলতি বছর জুলাই মাসে আফগানিস্তানের বিপক্ষে হাঁটুর চোটে পড়েন ইবাদত হোসেন। সেই চোটে পরে করতে হয় অস্ত্রোপচার। তাতে ওয়ানডে বিশ্বকাপে তাকে পায়নি বাংলাদেশ। গতিময় এই পেসারকে আসছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও পাবে না দল। এমন সম্ভাবনার কথাই জানালেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন।

জুলাইতে চোটে পড়া ইবাদতের পায়ে লন্ডনে অস্ত্রোপচার করা হয় অগাস্টের ৩০ তারিখ। এরপর থেকেই পুনর্বাসনে আছেন তিনি। তার চোট সেরে উঠতে যে লম্বা সময় লাগবে সেটা তখন নিশ্চিত করেছিলেন চিকিৎসকরাও।  দীর্ঘ ও ক্লান্তিকর পুনর্বাসন প্রক্রিয়া শেষ হতে সময় লাগবে আরও মাস সাতেক।

মঙ্গলবার নিজের বাসায় গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপে মিনহাজুল জানান আগামী ক্রিকেট মৌসুমের আগে ফেরা হচ্ছে না ২৯ বছর বয়েসী পেসারের,  'আমার মনে হচ্ছে পরের মৌসুম দিয়ে ইবাদতের শুরু করার সম্ভাবনা আছে। মানে আমাদের ঘরোয়া মৌসুম আগস্ট-সেপ্টেম্বরে। এর আগে সম্ভব না। এরকম একটা তথ্য আমাদের কাছে আছে। চূড়ান্ত আপডেট মেডিকেল থেকে না আসলে বলতে পারছি না।'

আগামী জুন মাসে যুক্তরাষ্ট্র ও ওয়েস্ট ইন্ডিজে শুরু হবে টি-টোয়ন্টি বিশ্বকাপ। স্বাভাবিকভাবেই  চোটের কারণে ওয়ানডে এশিয়া কাপ, বিশ্বকাপ হাতছাড়া করা ইবাদতের সেখানে থাকা হবে না।

এদিকে চোট কাটিয়ে মাঠে ফেরার লড়াইয়ে থাকা তাসকিন আহমেদ শুরু করেছেন অনুশীলন। মঙ্গলবার মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে দেখা গেছে তাকে।

গত ৮ জুলাই আফগানিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডের সময় পা হড়কে পড়ে যান ডানহাতি পেসার। বাম পায়ের হাঁটুর চোটে বোলিং অসমাপ্ত  রেখেই মাঠ ছাড়তে হয় তাকে। তবে প্রাথমিক পর্যবেক্ষণের পর জানানো হয়েছিল চোট গুরুতর নয়। সেই পর্যবেক্ষণ যে যথাযথ ছিলো না তা প্রমাণ হয়েছে পরে।

Comments

The Daily Star  | English

Landslide fears add to flood woes in Sylhet region

The heavy downpour has raised the risk of landslides in hilly areas. With more rain expected in the coming days, authorities have urged residents to move away from landslide-prone areas.

30m ago