অশ্বিন-জাদেজায় কুপোকাত ইংল্যান্ড, জয়সওয়ালে ভারতের শক্ত ভিত

হায়দরাবাদে সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম দিনটা ব্যাটে-বলে নিজেদের করে নিয়েছে ভারত।
ছবি: এএফপি

পেসারদের বিপক্ষে উজ্জ্বল শুরুর পর স্পিনাররা আক্রমণে আসতেই পা হড়কে গেল ইংল্যান্ডের। রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও রবীন্দ্র জাদেজার দারুণ ঘূর্ণি বোলিংয়ের জবাব খুঁজে না পেয়ে তারা গুটিয়ে গেল আড়াইশর নিচেই। এরপর শেষ সেশনে ওপেনার যশস্বী জয়সওয়ালের আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে ভারত পেল শক্ত ভিত।

হায়দরাবাদে পাঁচ ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম দিনটা ব্যাটে-বলে নিজেদের করে নিয়েছে ভারত। প্রথম ইনিংসে স্বাগতিকদের সংগ্রহ ১ উইকেটে ১১৯ রান। এর আগে ইংলিশরা প্রথম ইনিংসে অলআউট হয়েছে ২৪৬ রানে। এই পর্যন্ত যাওয়ার পেছনে মূল ভূমিকা রাখেন সফরকারীদের অধিনায়ক বেন স্টোকস। তিনি শেষ ব্যাটার হিসেবে সাজঘরে ফেরার আগে করেন ৮৮ বলে ৭০ রান।

৫৫ রানের ভালো একটি উদ্বোধনী জুটি পাওয়া ইংল্যান্ডকে নাড়িয়ে দেন ভারতের তিন স্পিনার। প্রথম আঘাত হানেন অশ্বিন। দ্রুতই উইকেট শিকারে যুক্ত হন জাদেজা। তাদেরকে যোগ্য সঙ্গ দেন অক্ষর প্যাটেল। অশ্বিন ৬৮ ও জাদেজা ৮৮ রানে নেন তিনটি করে উইকেট। ২ উইকেট পেতে অক্ষরের খরচা ৩৩ রান। পেসার জাসপ্রিত বুমরাহও ২ উইকেট ঝুলিতে ঢোকান ২৮ রানে।

ছবি: এএফপি

জবাব দিতে নেমে প্রথম ১০ ওভারেই বিনা উইকেটে ৬৮ রান তুলে ফেলে ভারত। অধিনায়ক রোহিত শর্মাকে একপ্রান্তে রেখে মারতে থাকেন তরুণ জয়সওয়াল। তিনি অপরাজিত আছেন ৭০ বলে ৭৬ রানে। ৯ চার ও ৩ ছক্কা হাঁকানোর পথে তিনি ফিফটি স্পর্শ করেন ৪৭ বলেই। জয়সওয়ালের সঙ্গে দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করবেন আরেক তরুণ শুবমান গিল। ৪৩ বলে ১ চারে তার রান ১৪।

ইংল্যান্ডের বোলারদের মধ্যে সাফল্যের দেখা পান একমাত্র জ্যাক লিচ। বাঁহাতি স্পিনার বিদায় করেন রোহিতকে। ২৭ বলে ৩ চারে ২৪ রান করেন রোহিত। স্টোকসের হাতে তিনি ক্যাচ দিলে ভাঙে ভারতের ৮০ রানের উদ্বোধনী জুটি।

খ্যাতি পাওয়া বাজবল কৌশল এদিন কাজে লাগাতে পারেনি ইংল্যান্ড। অশ্বিন, জাদেজা, অক্ষরদের বিপরীতে ওভারপ্রতি তারা তুলতে পেরেছে কেবল ৩.৮১ রান। উল্টো ভারত এগোচ্ছে দ্রুতগতিতে, ওভারপ্রতি ৫.১৭ রান করে।

টস জিতে ইংলিশরা যখন ব্যাটিংয়ে নামে, তখন উইকেটে আর্দ্রতা থাকার কারণে মেলে বাউন্স। কিন্তু সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে তা হয়ে যায় মন্থর। ভারতের পেসারদের বিপক্ষে প্রথম ৮ ওভারে কোনো উইকেট না খুইয়ে ৪১ রান স্কোরবোর্ডে জমা করে ইংল্যান্ড। এরপর দুই প্রান্তে যথাক্রমে জাদেজা ও অশ্বিনকে আক্রমণে আনেন রোহিত। তারা আস্থার প্রতিদান দিতে দেরি করেননি।

ইনিংসের দ্বাদশ ওভারে ওপেনার বেন ডাকেটকে ফেরান অশ্বিন। ৩৯ বলে ৭ চারে ৩৫ রান করে ডাকেট পড়েন এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে। ১৪তম ওভারে স্লিপে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন তিনে নামা জ্যাক ক্রলি। তার সংগ্রহ ১১ বলে ১ রান। পরের ওভারে অশ্বিনের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন আরেক ওপেনার জ্যাক ক্রলি। মিড অফে মোহাম্মদ সিরাজের তালুবন্দি হওয়া ক্রলি ৪০ বলে ৩ চারে করেন ২০ রান।

দলীয় ৫ রানের মধ্যে ৩ উইকেট হারানো দলকে এরপর টানেন জো রুট ও জনি বেয়ারস্টো। চতুর্থ উইকেটে তারা গড়েন ৬১ রানের জুটি। এই জুটি ভাঙলে ফের ছন্দপতন হয় ইংলিশদের। ৫৮ বলে ৫ চারে ৩৭ রান করা বেয়ারস্টোকে বোল্ড করে উইকেট নেওয়ায় শামিল হন অক্ষর। টপ এজ হয়ে জাদেজার বলে রুট ক্যাচ দেন বুমরাহকে। ১ চারে তার রান ৬০ বলে ২৯।

ছবি: এএফপি

উইকেটরক্ষক-ব্যাটার বেন ফোকস টিকতে পারেননি। ২৪ বলে ৪ রান আসে তার ব্যাট থেকে। রেহান আহমেদ ১ চারে ১৮ বলে ১৩ রানে গ্লাভসবন্দি হন শ্রিকার ভরতের। তার উইকেটটি নেন বুমরাহ। ১৫৫ রানে ৭ উইকেট পড়ে যাওয়ায় ইংল্যান্ডের তখন দুইশ ছোঁয়া নিয়েই সংশয় দেখা দেয়। সেখান থেকে টেলএন্ডারদের নিয়ে দলকে টানেন স্টোকস।

ছয়ে নামা স্টোকস ৬৯ বলে ফিফটি ছুঁয়ে খেলেন ৮৮ বলে ৭০ রানের ইনিংস। তার ব্যাট থেকে আসে ৬ চার ও ৩ ছক্কা। তিনি ছাড়া ইংল্যান্ডের আর কেউ হাফসেঞ্চুরি করতে পারেননি। অষ্টম উইকেটে অভিষিক্ত টম হার্টলির সঙ্গে ৩৮ ও নবম উইকেটে মার্ক উডের সঙ্গে ৪১ রান যোগ করেন স্টোকস।

হার্টলি ২ চার ও ১ ছয়ে ২৪ বলে ২৩ রান করে জাদেজার বলে স্টাম্প হারান। উড ২ চারে ১১ রান করেন ২৪ বলে। তিনি হন অশ্বিনের তৃতীয় শিকার। স্টোকসকে বোল্ড করে তৃতীয় সেশনের শুরুর দিকে ইংলিশদের ইনিংস গুটিয়ে দেন বুমরাহ। এরপর ব্যাট হাতে জয়সওয়াল ছড়ি ঘুরিয়ে ভারতকে দিয়েছেন মজবুত অবস্থান।

Comments