ক্রিকেট

অ্যাবটের অলরাউন্ড নৈপুণ্যে সিরিজ অস্ট্রেলিয়ার

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল অস্ট্রেলিয়া

ক্যারিবিয়ান বোলারদের দাপটে যখন কোণঠাসা অবস্থা অস্ট্রেলিয়ার তখন ব্যাট হাতে দারুণ প্রতিরোধ গড়েন শেন অ্যাবট। তার ব্যাটেই লড়াইয়ের পুঁজি পায় স্বাগতিকরা। এরপর বল হাতেও জ্বলে ওঠেন তিনি। তাতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে সহজেই হারিয়েছে বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। ফলে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিশ্চিত করল দলটি। 

রোববার সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৮৩ রানে হারিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২৫৮ রান করে তারা। জবাবে ৪৩.৩ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ১৭৫ রানের বেশি করতে পারেনি ক্যারিবিয়ানরা।

লক্ষ্য তাড়ায় নেমে দলীয় ৩৪ রানেই টপ অর্ডারের তিন ব্যাটারকে হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তবে চতুর্থ উইকেটে কেসি কার্টিকে নিয়ে দলের হাল ধরেন অধিনায়ক শেই হোপ। ৫৩ রানের জুটি গড়েন এ দুই ব্যাটার। হোপকে ফিরিয়ে এ জুটি ভাঙেন হ্যাজলউড। এরপর আরেক সেট ব্যাটার কার্টিকে ফিরিয়ে দেন অ্যাবট। তাতে বড় চাপে পড়ে যায় সফরকারীরা।

এরপর আর সে চাপ থেকে উতরে উঠতে পারেনি ক্যারিবিয়ানরা। রস্টন চেজ কিছুটা চেষ্টা করলে তাকে ফিরিয়ে দেন অ্যাবট। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে তারা। ৬.৩ ওভার বাকি থাকতেই গুটিয়ে যায় দলটি। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪০ রানের ইনিংস খেলেন কার্টি। এছাড়া হোপ ২৯ ও চেজ ২৫ রান করেন।

অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে ১০ ওভার বল করে ৪০ রানের খরচায় ৩টি উইকেট পান অ্যাবট। ৪৩ রানের বিনিময়ে ৩টি উইকেট নেন হ্যাজলউড। ২টি শিকার সাদারল্যান্ডের।

এর আগে টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে অস্ট্রেলিয়া। ওপেনিং জুটি ভাঙে দলীয় ১০ রানেই। এরপর একে একে জশ ইংলিশ ও স্টিভ স্মিথ ফিরে যান দ্রুত। তবে ক্যামেরুন গ্রিন কিছুটা প্রতিরোধ গড়েন। মার্নাস লাবুশেনের সঙ্গে ৩৯ রানের জুটি গড়ে ওশান থমাসের বলে আউট হন এই ব্যাটার।

দুই রান যোগ হতে লাবুশেনকে ফেরান গুডাকেশ মটি। ফলে বড় চাপে পড়ে যায় অস্ট্রেলিয়া। দলীয় ৯১ রানেই ৫ উইকেট হারানো দলটির হাল অ্যারন হার্ডলিকে সঙ্গে নিয়ে ধরেন ম্যাথিউ শর্ট। ষষ্ঠ উইকেটে ৫১ রান যোগ করেন এ দুই ব্যাটার। হার্ডলিকে ফিরিয়ে এ জুটিও ভাঙেন মটি। স্কোরবোর্ডে আর ২৫ রান যোগ হতে শর্টকেও মটি ফেরালে দারুণভাবে ম্যাচে ফেরে ক্যারিবিয়ানরা।

তবে উইল সাদারল্যান্ডের সঙ্গে অষ্টম উইকেটে আরও একবার প্রতিরোধ গড়েন শেন অ্যাবট। ৫৭ রানের জুটিতে অজিদের লড়াইয়ের পুঁজি এনে দেন তারা। ৬৩ বলে ১টি চার ও ৪টি ছক্কায় ৬৯ রানের ইনিংস খেলে রোমারিও শেফার্ডের বলে আউট হন অ্যাবট। ৫৫ বলে ৪১ রান করেন শর্ট। ক্যামেরুন গ্রিন করেন ৩৩ রান। এছাড়া লাবুশেন ও হার্ডলি দুই জনই করেন ২৬ রান করে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে ১০ ওভার বল করে ২৮ রানের খরচায় ৩টি উইকেট নেন মটি। ২টি করে শিকার ধরেন আলজেরি জোসেফ ও শেফার্ড।

Comments

The Daily Star  | English
Bangladesh economy

Can Bangladesh be a semiconductor hub?

The semiconductor manufacturing sector is well-known for its complexity, high stakes and intense corporate competition. Demand has always been driven by innovation, with every new technology changing the game.

2d ago