নিসাঙ্কা-আসালাঙ্কার ব্যাটে চড়ে সিরিজে সমতা টানল শ্রীলঙ্কা

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে মুখোমুখি বাংলাদেশ।
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

পাথুম নিসাঙ্কা হাঁকালেন অসাধারণ সেঞ্চুরি। দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে চারিথ আসালাঙ্কাও পৌঁছালেন তিন অঙ্কের কাছাকাছি। তাদের রেকর্ড জুটিতে এক পর্যায়ে হাতে ৭ উইকেট নিয়ে ৮০ বলে মাত্র ৫৯ রান দরকার দাঁড়াল শ্রীলঙ্কার। এরপর দ্রুত ৩ উইকেট তুলে লড়াইয়ে উত্তেজনা নিয়ে এলো বাংলাদেশ। কিন্তু শেষটা রাঙাতে চাহিদা ছিল নাটকীয় কিছুর। সেটা হলো না। ১৭ বল হাতে রেখে ৩ উইকেটের জয়ে সিরিজে সমতা টানল লঙ্কানরা।

শুক্রবার চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে টস হেরে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ৭ উইকেটে ২৮৬ রান তোলে বাংলাদেশ। জবাবে ৭ উইকেটে ২৮৭ রান করে জয় নিশ্চিত করে সফরকারীরা।

ক্যারিয়ারের ষষ্ঠ সেঞ্চুরিতে ম্যাচসেরার পুরস্কার জেতা ওপেনার নিসাঙ্কা খেলেন ১১৩ বলে ১১৪ রানের ইনিংস। পাঁচে নামা আসালাঙ্কা করেন ৯৩ বলে ৯১ রান। ওয়ানডেতে শ্রীলঙ্কার হয়ে বাংলাদেশের বিপক্ষে চতুর্থ উইকেটে রেকর্ড ১৮৫ রানের জুটি গড়েন তারা। এরপর সপ্তম উইকেট জুটিতে কার্যকর ব্যাটিং করেন দুনিথ ওয়েলালাগে ও ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা। হাসারাঙ্গা ১৬ বলে ২৫ রানের ক্যামিও আউট হলেও ওয়েলালাগে অপরাজিত থেকে যান ২৬ বলে ১৫ রানে।

বাংলাদেশের হয়ে বল হাতে ২ উইকেট করে নেন শরিফুল ইসলাম ও তাসকিন আহমেদ। এর আগে ব্যাট হাতে তাওহিদ হৃদয় অপরাজিত ৯৬ রানের ইনিংস খেলেন। সৌম্য সরকারের ব্যাট থেকে আসে ৬৮ রান।

আগামী সোমবার একই ভেন্যুতে অনুষ্ঠেয় তৃতীয় ওয়ানডেটি হবে সিরিজ নির্ধারণী।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা: ৪৭.১ ওভারে ২৮৭/৭ (নিসাঙ্কা ১১৪, আভিশকা ০, মেন্ডিস ১৬, সামারাবিক্রমা ১, আসালাঙ্কা ৯১, লিয়ানাগে ৯, ওয়েলালাগে ১৫*, হাসারাঙ্গা ২৫, মাদুশান ০*; শরিফুল ২/৪৯, তানজিম ১/৬৫, তাসকিন ২/৪৯, মিরাজ ১/৫৮, তাইজুল ১/৪৩, সৌম্য ০/২১, হৃদয় ০/২)।

ফল: শ্রীলঙ্কা ৩ উইকেটে জয়ী।

সিরিজ: তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ১-১ সমতা চলছে।

চার-ছক্কা হজমের পর হাসারাঙ্গাকে ফেরালেন তাইজুল

৬ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর দুনিথ ওয়েলালাগে ও ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা বেছে নেন সতর্ক পথ। রানের চাহিদা বেশি না হওয়ায় এই জুটিতে ঝুঁকি এড়িয়ে খেলে যান তারা।

বেশ কয়েক ওভার দেখেশুনে ব্যাটিং করতে থাকা হাসারাঙ্গা এরপর হাত খুললেন। পেসার তানজিম হাসান সাকিবকে ছক্কায় ওড়ানোর পর খরুচে স্পিনার তাইজুল ইসলামকে মারলেন ছয় ও চার। ফলে জয়ের হাত ছোঁয়া দূরত্বে পৌঁছে গেল লঙ্কানরা।

লক্ষ্য থেকে ২ রান দূরে থাকতে তাইজুলকে ফের ছক্কা মারতে গিয়ে আউট হলেন হাসারাঙ্গা। ১৬ বলে তার সংগ্রহ ২৫ রান। এতে ভাঙল ৩৪ বলে ৩৪ রানের জুটি।

৪৭ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার রান ৭ উইকেটে ২৮৫। ক্রিজে ২৫ বলে ১৩ রানে থাকা ওয়েলালাগের সঙ্গী মাত্রই নামা প্রমোদ মাদুশান।

আক্রমণে ফিরেই তানজিমের উইকেট

৪২তম ওভারে আক্রমণে ফিরেই তানজিম হাসান সাকিব আউট করলেন জানিথ লিয়ানাগেকে। আম্পায়ার এলবিডব্লিউয়ের আবেদনে সাড়া দেওয়ার পর রিভিউ নিলেও লাভ হয়নি শ্রীলঙ্কার ব্যাটারের।

২৩ রানের মধ্যে ৩ উইকেট হারাল সফরকারীরা। ভেতরে ঢোকা বলের লাইন মিস করে লিয়ানাগে সাজঘরে ফিরলেন ১৬ বলে ৯ রানে।

ওভার শেষে লঙ্কানদের রান ৬ উইকেটে ২৫৪। ক্রিজে দুনিথ ওয়েলালাগের সঙ্গী ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা। ৪৮ বলে ৩৩ রান দরকার শ্রীলঙ্কার, বাংলাদেশের প্রয়োজন ৪ উইকেট। রোমাঞ্চ ডানা মেলছে দুই দলের তিন ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে।

রিভিউ নিয়ে আসালাঙ্কাকে থামাল বাংলাদেশ, ওয়ানডেতে তাসকিনের ১০০ উইকেট

ক্যারিয়ারের ৭২তম ওয়ানডেতে ১০০ উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ করলেন তাসকিন আহমেদ। বাংলাদেশের অষ্টম বোলার হিসেবে ১০০ উইকেট হলো তার। ডানহাতি পেসারের শিকার হলেন দারুণ খেলতে থাকা চারিথ আসালাঙ্কা। ৯৩ বলে ৬ চার ও ৪ ছক্কায় ৯১ করে মুশফিকুর রহিমের গ্লাভসবন্দি হলেন তিনি।

শুরুতে আবেদনে সাড়া দেননি আম্পায়ার মাসুদুর রহমান মুকুল। এরপর রিভিউ নেওয়া হলে এলো সফলতা।

৩৮ ওভারে লঙ্কানদের রান ৫ উইকেটে ২৩৫। ক্রিজে আছেন দুই নতুন ব্যাটার জানিথ লিয়ানাগে ও দুনিথ ওয়েলালাগে। জয়ের জন্য ৭২ বলে ৫২ রান চাই সফরকারীদের। বাংলাদেশকে তুলে নিতে হবে ৫ উইকেট।

৯ বলের মধ্যে ৭ রানে শ্রীলঙ্কার দুই সেট ব্যাটারকে সাজঘরে পাঠাতে পেরেছে বাংলাদেশ। আসালাঙ্কার আগে বিদায় নেন সেঞ্চুরি হাঁকানো পাথুম নিসাঙ্কা। ফলে লড়াইয়ে এসেছে নতুন মোড় ও বাড়তি উত্তেজনা।

নিসাঙ্কাকে ফিরিয়ে রেকর্ড জুটি ভাঙলেন মিরাজ

অবশেষে শ্রীলঙ্কার চতুর্থ উইকেট জুটির ইতি ঘটাতে পারল বাংলাদেশ। স্লগ সুইপের চেষ্টায় ব্যাটে-বলে ঠিকঠাক সংযোগ হলো না পাথুম নিসাঙ্কার। মেহেদী হাসান মিরাজের বলে ডিপ মিডউইকেটে লিটন দাসের হাতে ক্যাচ দিলেন তিনি।

১১৩ বলে ১৩ চার ও ৩ ছক্কায় ১১৪ রানে আউট হলেন নিসাঙ্কা। এতে ভাঙল ১৮৩ বলে ১৮৫ রানের জুটি। বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডেতে চতুর্থ উইকেটে এটি লঙ্কানদের সর্বোচ্চ রানের জুটি।

আগের কীর্তিটি ছিল অর্জুনা রানাতুঙ্গা ও অরবিন্দ ডি সিলভার। ১৯৯০ সালে কলকাতার ইডেন গার্ডেন্সে ১৩৯ রান যোগ করেছিলেন তারা।

৩৭ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার রান ৪ উইকেটে ২৩০ রান। চারিথ আসালাঙ্কা সেঞ্চুরির সুবাস জাগিয়ে খেলছেন ৮৯ বলে ৮৮ রানে। তার সঙ্গী মাত্রই নামা জানিথ লিয়ানাগে।

চাপ সামলে অসাধারণ ব্যাটিংয়ে নিসাঙ্কার সেঞ্চুরি

আফগানিস্তানের বিপক্ষে ঘরের মাঠে সবশেষ ওয়ানডে সিরিজে অসাধারণ ফর্ম দেখান পাথুম নিসাঙ্কা। একটি করে সেঞ্চুরি ও ডাবল সেঞ্চুরি করেছিলেন শ্রীলঙ্কার ওপেনার। সেই ছন্দ বাংলাদেশের বিপক্ষেও টেনে আনলেন তিনি।

৫৪ ওয়ানডেতে নিসাঙ্কার এটি ষষ্ঠ সেঞ্চুরি, বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম। তিন অঙ্কে পৌঁছাতে তার লাগল ঠিক ১০০ বল। তিনি ফিফটিতে পৌঁছেছিলেন ৫৮ বলে। এখন পর্যন্ত তার ব্যাট থেকে এসেছে ১১ চার ও ৩ ছক্কা।

৩২ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৩ উইকেটে ২০১ রান। নিসাঙ্কা ১০১ বলে ১০১ ও চারিথ আসালাঙ্কা ৭৩ বলে ৭৪ রানে ক্রিজে আছেন। বাকি ১৮ ওভারে আর ৮৬ রান দরকার সফরকারীদের।

উইকেট ও কন্ডিশন বিবেচনায় নাটকীয় কিছু না ঘটলে এই পরিস্থিতি থেকে বাংলাদেশের জয় পাওয়া প্রায় অসম্ভবের পর্যায়ে। ইনিংসের সপ্তম ওভারের পর আর কোনো উইকেট শিকার করতে পারেনি তারা।

শরিফুলের বলে জীবন পেলেন নিসাঙ্কা

জুটি ভাঙা ও উইকেট তুলে নেওয়ার বিকল্প নেই বাংলাদেশের। এমন পরিস্থিতিতে সুযোগ তৈরি করলেন আক্রমণে ফেরা পেসার শরিফুল ইসলাম। কিন্তু পাথুম নিসাঙ্কার কঠিন ক্যাচ মিড অফে লুফে নিতে পারলেন না বাংলাদেশের দলনেতা নাজমুল হোসেন শান্ত।

লাফিয়ে উঠে এক হাতে বল জমানোর চেষ্টায় ব্যর্থ হলেন শান্ত। নিসাঙ্কা বেঁচে গেলেন ব্যক্তিগত ৭৩ রানে। লঙ্কানদের ইনিংসে এই নিয়ে তৃতীয় 'হাফ চান্স' হাতছাড়া হলো টাইগারদের। এর আগে চারিথ আসালাঙ্কা জীবন পান ব্যক্তিগত ৬ রানে।

২৯ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার রান ৩ উইকেটে ১৬৭। বাকি ২১ ওভারে আর ১২০ রান চাই তাদের। হাতে রয়েছে ৭ উইকেট।

নিসাঙ্কা-আসালাঙ্কার জুটির শতরান

৪৩ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ধুঁকছিল শ্রীলঙ্কা। সেই চাপ সামলে নিয়ে দলকে শক্ত অবস্থানে নিয়ে এসেছেন পাথুম নিসাঙ্কা ও চারিথ আসালাঙ্কা। ঝুঁকি না নিয়ে দক্ষতার পরিচয় দিয়ে রানের চাকা সচল রেখেছেন দুজন। বলের গুণগত মান বিচার করে নিয়মিত বাউন্ডারিও আদায় করছেন তারা।

তাদের জুটির রান একশ স্পর্শ করল আক্রমণে ফেরা মেহেদী হাসান মিরাজকে স্লগ সুইপে আসালাঙ্কা ছক্কা মারলে। ১১৪ বল লাগল সেজন্য।

২৬ ওভার শেষে লঙ্কানদের রান ৩ উইকেটে ১৫০। নিসাঙ্কা ৭৭ বলে ৬১ ও আসালাঙ্কা ৬১ বলে ৬৩ রানে অপরাজিত আছেন। বাকি ২৪ ওভারে জয়ের জন্য সফরকারীদের চাই ১৩৭ রান। অন্যদিকে, দ্রুত উইকেট শিকারের বিকল্প নেই বাংলাদেশের।

ছক্কা মেরে আসালাঙ্কার হাফসেঞ্চুরি

অন্যপ্রান্তে নিয়মিত উইকেট পড়তে থাকায় পাথুম নিসাঙ্কা ভুগছিলেন যোগ্য সঙ্গীর অভাবে। সেটা পূরণ করলেন চারিথ আসালাঙ্কা। পাল্টা আক্রমণে দারুণ ব্যাটিংয়ে ফিফটি তুলে নিলেন বাঁহাতি ব্যাটার।

বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলামকে স্লগ সুইপ করলেন আসালাঙ্কা। ডিপ মিডউইকেট দিয়ে হলো ছক্কা। এতেই ব্যক্তিগত মাইলফলক স্পর্শ করে ফেললেন তিনি, ঠিক ৫০ বলে। ৫৮ ওয়ানডের ক্যারিয়ারে এটি তার দ্বাদশ হাফসেঞ্চুরি।

২২ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার রান ৩ উইকেটে ১২৮। নিসাঙ্কা ৬৪ বলে ৫২ ও আসালাঙ্কা ৫০ বলে ৫০ রানে ক্রিজে আছেন। তাদের জুটি এগোচ্ছে শতরানের দিকে।

দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে নিসাঙ্কার ফিফটি

ওপেনিংয়ে নেমে দায়িত্বশীল ব্যাটিং উপহার দিচ্ছেন ডানহাতি পাথুম নিসাঙ্কা। চাপের মুখে ৫৮ বলে তিনি স্পর্শ করলেন ব্যক্তিগত ফিফটি। ৫৪ ওয়ানডের ক্যারিয়ারে এটি তার ১৪তম হাফসেঞ্চুরি।

২০ ওভারে শ্রীলঙ্কার রান ৩ উইকেটে ১১৭। নিসাঙ্কা ৫৯ বলে ৫০ রানে অপরাজিত। তার সঙ্গে চারিথ আসালাঙ্কা খেলছেন ৪৩ বলে ৪১ রানে।

রানের চাকা দারুণভাবে সচল রেখেছে এই জুটি। দুজন সুযোগ পেলেই আনছেন বাউন্ডারি। বাংলাদেশের এখন দরকার উইকেট তুলে নেওয়া।

নিসাঙ্কা-আসালাঙ্কার জুটির পঞ্চাশ

৬৯ বলে পূর্ণ হলো পাথুম নিসাঙ্কা ও চারিথ আসালাঙ্কার গড়া চতুর্থ উইকেট জুটির পঞ্চাশ। ৪৩ রানে ৩ উইকেট পড়ে যাওয়ার পর তারা সতর্ক ব্যাটিং করছেন।

১৭ ওভার শেষে লঙ্কানদের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ৯৪ রান। ওপেনার নিসাঙ্কা ৫২ বলে ৪৪ ও চারে নামা আসালাঙ্কা ৩২ বলে ২৫ রানে ক্রিজে আছেন।

এই জুটি ক্রমেই মাথাব্যথার কারণ হয়ে উঠছে বাংলাদেশের জন্য। তাই দ্রুত ব্রেক থ্রুর খোঁজে রয়েছে তারা।

রিভিউ নিয়ে বাঁচলেন নিসাঙ্কা

তানজিম হাসান সাকিবের বলে বিস্ময় জাগিয়ে পাথুম নিসাঙ্কার বিপক্ষে এলবিডব্লিউয়ের সিদ্ধান্ত দিলেন আড্রিয়ান হোল্ডস্টক। সিদ্ধান্তটি দেওয়ার আগে অবশ্য অনেক সময় নিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার আম্পায়ার। সঙ্গে সঙ্গেই রিভিউ নিলেন ৩৬ রানে থাকা নিসাঙ্কা।

টিভি রিপ্লেতে দেখা যায়, বল আগে ব্যাটে লেগেছে। বাংলাদেশের অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্তও আগেই একই ইশারা করেছিলেন। তবে ইনসাইড এজের ব্যাপারটি কোনোভাবে এড়িয়ে যায় হোল্ডস্টকের চোখ।

১৫ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার রান ৩ উইকেটে ৮৫। নিসাঙ্কা ৪৪ বলে ৩৭ ও চারিথ আসালাঙ্কা ২৮ বলে ২৪ রানে অপরাজিত আছেন। তাদের জুটিতে চাপ সামলে এগোচ্ছে লঙ্কানরা।

ছবি: ফিরোজ আহমেদ

পাওয়ার প্লেতে শ্রীলঙ্কার রান ৩ উইকেটে ৬০

৩ উইকেটে ৬০ রান তুলে প্রথম পাওয়ার প্লে শেষ করল শ্রীলঙ্কা। ইনিংসের এই পর্যায়ে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ১ উইকেটে ৬৪ রান।

একপ্রান্ত আগলে ক্রিজে আছেন ওপেনার পাথুম নিসাঙ্কা। তার সংগ্রহ ৩০ বলে ৩০ রান। চারিথ আসালাঙ্কা অপরাজিত ১২ বলে ৭ রানে।

তাসকিন আহমেদের করা দশম ওভারে সুযোগ এসেছিল আসালাঙ্কাকে সাজঘরে পাঠানোর। তবে সেটা ছিল ভীষণ কঠিন। গালিতে লিটন দাস বলে হাত ছোঁয়ালেও লুফে নিতে পারেননি। তখন ব্যক্তিগত ৬ রানে ছিলেন আসালাঙ্কা।

শরিফুলের দ্বিতীয় শিকার সামারাবিক্রমা

আগের ওভারের প্রথম বলে কুসল মেন্ডিসকে বিদায় করেন তাসকিন আহমেদ। সপ্তম ওভারের প্রথম বলে ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় শিকার ধরলেন বাঁহাতি পেসার শরিফুল ইসলাম। তিনি উইকেটে থিতু হতে দিলেন না সাদিরা সামারাবিক্রমাকে।

ড্রাইভ করতে গিয়ে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে মেহেদী হাসান মিরাজের তালুবন্দি হলেন সামারাবিক্রমা। এবার আর সুযোগ ছাড়েননি মিরাজ। চারে নামা ব্যাটারের সংগ্রহ ৪ বলে ১ রান।

দলীয় ৪২ থেকে ৪৩ রানে পৌঁছাতে ২ উইকেট খুইয়ে ফেলল সফরকারীরা। শরিফুল ও তাসকিনের তোপে তারা রয়েছে চাপে। দারুণ বোলিংয়ের সুবাদে চালকের আসনে বসে পড়েছে বাংলাদেশ।

৭ ওভার শেষে লঙ্কানদের রান ৩ উইকেটে ৪৯। ক্রিজে আছেন ওপেনার পাথুম নিসাঙ্কা ২০ বলে ২৪ রানে। চারিথ আসালাঙ্কা খেলছেন ৪ বলে ২ রানে।

আক্রমণে এসেই মেন্ডিসকে ফেরালেন তাসকিন

রান খাতা খোলার আগেই জীবন পাওয়া কুসল মেন্ডিস আক্রমণাত্মক হয়ে উঠছিলেন। তবে তাকে বেশিদূর এগোতে দিলেন না তাসকিন আহমেদ। আক্রমণে এসে প্রথম বলেই শ্রীলঙ্কার অধিনায়ককে আউট করলেন ডানহাতি পেসার। বোলিংয়ে দ্বিতীয় সাফল্য পেল বাংলাদেশ।

তাসকিনের লেংথ ডেলিভারি সামান্য বেরিয়ে যাচ্ছিল। দ্বিধায় পড়ে যাওয়া মেন্ডিস ডিফেন্ড করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তার ব্যাটের কানা ছুঁয়ে বল জমা পড়ল উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিমের হাতে।

১৩ বলে ৩ চারে মেন্ডিসের রান ১৬। তার বিদায়ে ভাঙল ৪১ রানের জুটি। ৬ ওভার শেষে শ্রীলঙ্কার রান ২ উইকেটে ৪৩। ক্রিজে আছেন পাথুম নিসাঙ্কা ১৯ বলে ২৩ রানে। তার সঙ্গী মাত্রই নামা সাদিরা সামারাবিক্রমা।

মেন্ডিসের তোলা কঠিন ক্যাচ ছাড়লেন মিরাজ

পেসার তানজিম হাসান সাকিবের ডেলিভারি ড্রাইভ করলেন কুসল মেন্ডিস। শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক বল মাটিতে রাখতে ব্যর্থ হলেন। তবে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে ওঠা দুরূহ ক্যাচ অনেক চেষ্টা করেও লুফে নিতে পারলেন না মেহেদী হাসান মিরাজ।

শূন্য রানে বেঁচে গেলেন মেন্ডিস। বাংলাদেশের আফসোস পরের দুই বলে আরও বাড়ালেন পাথুম নিসাঙ্কা। টানা দুটি চার মারলেন তিনি। ২ ওভার শেষে লঙ্কানদের সংগ্রহ ১ উইকেটে ১৫ রান।

দ্বিতীয় বলেই শরিফুলের আঘাত

শ্রীলঙ্কার ইনিংসের শুরুতেই বাংলাদেশকে উল্লাসের মুহূর্ত এনে দিলেন শরিফুল ইসলাম। দ্বিতীয় বলে বাঁহাতি পেসারের আঘাতে কাটা পড়লেন আভিশকা ফার্নান্দো। অফ স্টাম্পের বাইরে দিয়ে বেরিয়ে যাওয়া বল জায়গায় দাঁড়িয়ে খেলার চেষ্টায় ব্যর্থ হলেন তিনি। স্লিপে ক্যাচ নিলেন সৌম্য সরকার।

স্রেফ ১ বল খেলে রানের খাতা খোলার আগেই বিদায় নিলেন লঙ্কান ওপেনার। তিনে নেমেছেন অধিনায়ক কুসল মেন্ডিস। ক্রিজে আছেন আরেক ওপেনার পাথুম নিসাঙ্কা। ১ ওভার শেষে সফরকারীদের রান ১ উইকেটে ৪।

লঙ্কানদের ২৮৭ রানের লক্ষ্য দিল বাংলাদেশ

এক প্রান্তে ব্যাটাররা যখন আসা যাওয়ার মিছিলে ব্যস্ত তখন অপর প্রান্ত আগলে রাখেন তাওহিদ হৃদয়। সাবধানী ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশের ইনিংস মেরামত করেন। শেষ দিকে ঝড় তুলে এনে দেন লড়াকু পুঁজি। তার ক্যারিয়ার সেরা ইনিংসে ভর করে শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেটে ২৮৬ রান তোলে বাংলাদেশ। টসের সময় ২৮০ থেকে ৩০০ রানের লক্ষ্যের কথা জানিয়েছিলেন অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত।

তবে শুরুতেই লিটন দাসকে হারানোর পর সৌম্য সরকার ও অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্তর ব্যাটে বড় পুঁজির ইঙ্গিতই দিচ্ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু মাঝে ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার ঘূর্ণিতে উল্টো বড় চাপে পড়ে যায় টাইগাররা। মিডল অর্ডার একাই ধসিয়ে দেন এই লেগস্পিনার। তবে এক প্রান্তে অনঢ় থেকে বাংলাদেশকে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছে দেন তাওহিদ।

শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থেকে ১০২ বলে ৯৬ রান করেন তাওহিদ। ১০২ বলে ৩টি চার ও ৫টি ছক্কায় এই রান করেন তিনি। ৬৮ রান করেন সৌম্য। শেষদিকে ১০ বলে ১৮ রানের কার্যকরী ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন তাসকিন আহমেদ।

শ্রীলঙ্কার পক্ষে ৪৫ রানের খরচায় ৪টি উইকেট নেন হাসারাঙ্গা। ৩০ রানের বিনিময়ে ২টি শিকার দিলশান মাদুশাঙ্কার। 

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ: ৫০ ওভারে ২৮৬/৭ (লিটন ০, সৌম্য ৬৮, শান্ত ৪০, তাওহিদ ৯৬*, মাহমুদউল্লাহ ০, মুশফিক ২৫, মিরাজ ১২, তানজিম ১৮, তাসকিন ১৮*; মাদুশাঙ্কা ২/৩০, মাদুশান ১/৭২, কুমারা ০/৫০, লিয়ানাগে ০/৩০, আসালাঙ্কা ০/১০, ওয়ালালাগে ০/৪৭, হাসারাঙ্গা ৪/৪৫)।

তানজিমের বিদায়ে ভাঙল জুটি

তাওহিদ হৃদয়কে দারুণ সঙ্গ দিচ্ছিলেন তানজিম হাসান সাকিব। মাঝেমধ্যে আগ্রাসী হয়ে রানের গতি বাড়ানোর দিকেও তাগিদ দিচ্ছিলেন এই ব্যাটার। তবে দিলশান মাদুশানের লেন্থ বলে বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে মিডঅফে ধরা পড়েন ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার হাতে। ৩৩ বলে ১৮ রান করেন তানজিম।

৪৭ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৭ উইকেটে ২৪২ রান। তাওহিদ ৬৬ ও নতুন ব্যাটার তাসকিন আহমেদ  রানে ব্যাটিং করছেন।  

চাপের মুখে তাওহিদের হাফসেঞ্চুরি

এক প্রান্তে ব্যাটারদের আসা যাওয়া চললেও অপর প্রান্তটা আগলে রেখেছেন তাওহিদ হৃদয়। দারুণ সাবধানী ব্যাটিংয়ে ব্যক্তিগত ফিফটিও পূরণ করেছেন তিনি। ৭৪ বলে ২টি চারের সাহায্যে পঞ্চাশ স্পর্শ করেন তিনি।

৪১ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ২১১ রান। তাওহিদ ৫০ ও তানজিম ৯ রানে ব্যাটিং করছেন।

বাংলাদেশের দলীয় দুইশত রান

ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার ঘূর্ণিতে বড় চাপেই রয়েছে বাংলাদেশ। টাইগারদের মিডল অর্ডার একাই ধসিয়ে দিয়েছেন তিনি। এরমধ্যেই দলীয় দুইশত রান পূরণ করেছে টাইগাররা। ২৩৪ বলে আসে এই রান। প্রথম একশ রান ৯৯ রানে করেছিল বাংলাদেশ।

৩৯ ওভারে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ২০১ রান, তাওহিদ ৪৪ ও তানজিম ৫ রানে ব্যাটিং করছেন

মিরাজের বিদায়ে বিপদে বাংলাদেশ

ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার ঘূর্ণিতে বড় বিপদে পড়েছে বাংলাদেশ। এবার তিনি ফিরিয়েছেন মেহেদী হাসান মিরাজকেও। উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে খেলতে চেয়েছিলেন তিনি। এটা দেখে কিছুটা শর্ট বল করেন হাসারাঙ্গা। শেষ মুহূর্তে তাই ব্লক করতে চেয়েছিলেন মিরাজ। কিন্তু লাইন মিস করেন। বল আঘাত হানে স্টাম্পে। ১৮ বলে ১২ রান করেন মিরাজ। ষষ্ঠ উইকেট হারিয়ে লেজ বেরিয়ে যায় বাংলাদেশের।

৩৬ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ১৮৯ রান। তাওহিদ ৩৮ ও নতুন ব্যাটার তানজিম হাসান সাকিব ০ রানে ব্যাটিং করছেন।

সফল রিভিউতে মুশফিককে ফেরালেন হাসারাঙ্গা

দলীয় ১৩০ রানে ৪ উইকেট হারানোর পর তাওহিদ হৃদয়ের সঙ্গে দলের হাল ধরেছিলেন অভিজ্ঞ ব্যাটার মুশফিকুর রহিম। তবে খুব বেশি আগাতে পারেননি তিনি। ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার বলে এলবিডাব্লিউর ফাঁদে পড়েছেন তিনি।

হাসারাঙ্গার লেন্থ ডেলিভারিতে সুইপ করতে গিয়ে লাইন মিস করলে প্যাডে লাগে বল। আম্পায়ার আবেদনে সাড়া না দিলে রিভিউ নেন হাসারাঙ্গা। রিপ্লেতে দেখা যায় মিডল স্টাম্পে লাগত বল। ২৮ বলে ২৫ রান করেন মুশফিক।

৩২ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ১৭৬ রান। তাওহিদ ৩৪ ও মেহেদী হাসান মিরাজ ৩ রানে ব্যাটিং করছেন।  

মাহমুদউল্লাহর বিদায়ে চাপে বাংলাদেশ

উইকেটে নেমে আগের ম্যাচে নিজের দ্বিতীয় বলে ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গাকে ছক্কা মেরে শুরু করেছিলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। এদিনও এমন কিছুই চেয়েছিলেন তিনি। প্রথম বল দেখে খেলার পর দ্বিতীয় বলে উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে ছক্কা হাঁকাতে যান এই অভিজ্ঞ ব্যাটার। তবে গুগলি বুঝতে পারেননি। লাইন মিস করলে চলে যায় উইকেটরক্ষক কুশল মেন্ডিসের হাতে। ফলে স্টাম্পিং ফাঁদে পড়েন মাহমুদউল্লাহ।

২২ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ১৩০ রান। তাওহিদ ১৭ ও মুশফিকুর রহিম ০ রানে ব্যাটিং করছেন।

সৌম্যর বিদায়ে ভাঙল জুটি

অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্তকে হারানোর পর তাওহিদ হৃদয়কে নিয়ে জুটি গড়েছিলেন সৌম্য সরকার। দারুণ সব শটে দলকে এগিয়ে নিচ্ছিলেন তিনি। তবে ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার বলে রিভার্স সুইপ করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সীমানায় দারুণ ক্যাচ লুফে নিয়েছেন দিলশান মাদুশাঙ্কা। ৬৬ বলে ১১টি চার ও ১টি ছক্কায় ৬৮ রান করেন সৌম্য।  

দুই হাজারি ক্লাবে বাংলাদেশের দ্রুততম সৌম্য

বাংলাদেশের হয়ে দ্রুততম দুই হাজার রান পূরণ করেছেন সৌম্য সরকার। নিজের ৬৪তম ইনিংসে ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার বলে বাউন্ডারি মেরে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের দুই হাজার রান পূরণ করেন এই ওপেনার। মাঠে নামার আগে এই মাইলফলক থেকে ৫৬ রান দূরে ছিলেন তিনি। এর আগে শাহরিয়ার নাফীস ও লিটন কুমার দাস এই মাইলফলক স্পর্শ করেছিলেন ৬৫ ইনিংসে।

২০ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২ উইকেটে ১২২ রান। সৌম্য ৬১ ও তাওহিদ ১৬ রানে ব্যাটিং করছেন।

সৌম্য-হৃদয়ের জুটিতে পঞ্চাশ

অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্তকে হারানোর পর তাওহিদ হৃদয়ের সঙ্গে আরও একটি দারুণ জুটি গড়েছেন সৌম্য সরকার। এরমধ্যেই দুজন তাদের জুটিতে এসেছে পঞ্চাশ রান। ৫০ বলে এই জুটি গড়েন তারা।

২১ ওভারে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২ উইকেটে ১৩০ রান। সৌম্য ৬৮ ও হৃদয় ১৭ রানে ব্যাটিং করছেন।

সৌম্যর হাফসেঞ্চুরি

শুরুতে কিছুটা নড়বড়ে ছিলেন সৌম্য সরকার। তবে ধীরে ধীরে মানিয়ে নেন উইকেটের সঙ্গে। এরপর খেলতে থাকেন দারুণ সব শট। তাতে বাড়তে থাকে বাংলাদেশের পুঁজি। নিজেও পূরণ করেছেন ব্যক্তিগত ফিফটি। ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গাকে সুইপ করে সীমানা পার করেই স্পর্শ করেন নিজের ফিফটি। ৫২ বলে এসেছে তার পঞ্চাশ রান।

১৮ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২ উইকেটে ১১০ রান। সৌম্য ২ ও তাওহিদ ১৩ রানে ব্যাটিং করছেন।

বাংলাদেশের দলীয় শতরান

অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্তর বিদায়ের পর তাওহিদ হৃদয়কে নিয়ে দলকে নিয়ে যাচ্ছেন সৌম্য সরকার। এরমধ্যে এসেছে দলীয় শতরানও। ১৭তম ওভারে একশ রান পূর্ণ করেছে বাংলাদেশ দল। ৯৯ বলে এসেছে এই শতক।

১৭ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২ উইকেটে ১০৩ রান। সৌম্য ৪৭ ও তাওহিদ ১১ রানে ব্যাটিং করছেন।  

জীবন পেলেন তাওহিদ

নিজের তৃতীয় শিকার প্রায় ধরে ফেলেছিলেন দিলশান মাদুশাঙ্কা। আগের ওভারেই শান্তকে ফিরিয়ে জুটি ভাঙা এই পেসার পেতে পারতেন তাওহিদ হৃদয়ের উইকেটও। তার শর্ট বলে ব্যাটের কানায় লাগলে ঝাঁপিয়ে ধরার চেষ্টা করছিলেন উইকেটরক্ষক অধিনায়ক কুশল মেন্ডিস। কিন্তু শেষ পর্যন্ত লুফে নিতে পারেননি তিনি। এ সময়ে ৬ রানে ব্যাট করছিলেন তাওহিদ।

১৫ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৯৩ রান। সৌম্য ৪১ ও তাওহিদ ৭ রানে ব্যাটিং করছেন।  

শান্তর বিদায়ে ভাঙল জুটি

শুরুতেই জীবন পেয়েছিলেন আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত। তবে এরপর দারুণ খেলছিলেন অধিনায়ক। সৌম্য সরকারের সঙ্গে দারুণ জুটি গড়ে শুরুর ধাক্কা সামলে নিয়েছিলেন তিনি। তবে বোলিংয়ে ফিরে তাকে ফিরিয়ে ৭৬ রানের জুটি ভেঙেছেন দিলশান মাদুশাঙ্কা। তার বলে শান্ত দোমনা হয়ে খেলতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দিয়েছেন উইকেটরক্ষক কুশল মেন্ডিসের হাতে। ৩৯ বলে ৬টি চারের সাহায্যে ৪০ রান করেছেন টাইগার অধিনায়ক।

১৩ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৭৮ রান। সম্য ৩২ ও নতুন ব্যাটার তাওহিদ হৃদয় ১ রানে ব্যাটিং করছেন।  

শুরুর ধাক্কা সামলে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিচ্ছেন সৌম্য-শান্ত। ছবি: ফিরোজ আহমেদ

শান্ত-সৌম্যর জুটির ফিফটি

শুরুতে কিছুটা নড়বড়ে ছিলেন সৌম্য সরকার। তবে ধীরে ধীরে উইকেটে মানিয়ে নিয়ে খেলছেন দারুণ সব শট। অন্যদিকে প্রমোদ মাদুশানের এক ওভারেই দুইবার জীবন পাওয়া নাজমুল হোসেন শান্তও খেলছেন দারুণ। তাতে শুরুর ধাক্কা সামলে প্রতিরোধ গড়েছে বাংলাদেশ দল। এরমধ্যেই এই জুটি ছাড়িয়েছে পঞ্চাশ রানের কোটা। ৪১ বলে এসেছে এই জুটির ফিফটি।

৮ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেটে ৫০ রান। সৌম্য ২০ ও শান্ত ২৭ রানে ব্যাটিং করছেন।

এক ওভারে দুই জীবন পেলেন শান্ত

আগের ম্যাচেই দারুণ সেঞ্চুরি তুলে বাংলাদেশকে এনে দিয়েছিলেন সহজ জয়। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে শুরুতেই ফিরতে পারতেন অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত। প্রমোদ মাদুশানের অফস্টাম্পের বাইরে রাখা বলে খেলতে গিয়ে দ্বিতীয় স্লিপে ক্যাচ তুলে দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু হাতে লাগালেও তা লুফে নিতে পারেননি পাথুম নিশাঙ্কা।

পঞ্চম বলেও আউট হতে পারতেন শান্ত। মাদুশানের অফস্টাম্পের বাইরে রাখা বলে খোঁচা মারতে গিয়ে ব্যাটের কানায় লেগেছিল শান্তর। কিন্তু বিস্ময়করভাবে কোনো আবেদনই করেননি লঙ্কান ফিল্ডাররা। স্বাভাবিকভাবে আম্পায়ারও তাই সাড়া দেননি।

২ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেটে ১১ রান। শান্ত ১০ ও সৌম্য ১ রানে ব্যাটিং করছেন।

আবারও শূন্য রানে বিয়ায় নিলেন লিটন। ছবি: ফিরোজ আহমেদ ।
   

আবারও শূন্য রানে বিদায় লিটনের

সিরিজের প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে প্রথম বলেই ইনসাইডএজ হয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন টাইগার ওপেনার লিটন কুমার দাস। দ্বিতীয় ম্যাচে দুই বল বেশি খেলেছেন তিনি। তবে ভাগ্যের পরিবর্তন হয়নি। দিলশান মাদুশাঙ্কার পাতা ফাঁদে পা দিয়েছেন। পাঁচ ফিল্ডার নিয়ে তার ভেতরের দিকে ঢোকা বলে ফ্লিক করতে গিয়ে স্কয়ার লেগে দুনিথ ওয়ালালাগের হাতে সহজ তুলে ফিরেছেন খালি হাতেই।

প্রথম ওভার শেষে ১ উইকেট হারিয়ে কোনো রান করতে পারেনি বাংলাদেশ। সৌম্য সরকার ও অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত কেউই খুলতে পারেননি রানের খাতা।  

এক পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নেমেছে শ্রীলঙ্কা

ঘুরে দাঁড়ানোর মিশনে একটি পরিবর্তন এনেছে শ্রীলঙ্কা দল। মহেশ থিকশানার জায়গায় দুনিথ ওয়ালালাগেকে অন্তর্ভুক্ত করেছে দলটি।

শ্রীলঙ্কা একাদশ: পাথুম নিসাঙ্কা, আভিষ্কা ফার্নান্ডো, কুসল মেন্ডিস, সাদিরা সামারাবিক্রমা, চারিথ আসালাঙ্কা, জেনিথ লিয়ানাগে, ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা, দুনিথ ওয়ালালাগে, প্রমোদ মদুশান, দিলশান মাদুশাঙ্কা ও লাহিরু কুমারা।

উইনিং কম্বিনেশন ভাঙ্গেনি বাংলাদেশ

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে দুই স্পিনার ও তিন পেসার নিয়ে খেলে সফল হয়েছে বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ম্যাচেও সেই একাদশই ধরে রেখেছে টাইগাররা। তবে ধারণা ছিল একটি পরিবর্তন আসতে পারে একাদশে। তাইজুল ইসলামের জায়গায় দেখা যেতে পারে রিশাদ হোসেনকে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সে পথে হাঁটেনি টিম ম্যানেজমেন্ট।

বাংলাদেশ একাদশ: লিটন দাস, সৌম্য সরকার, নাজমুল হোসেন শান্ত, তাওহিদ হৃদয়, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, তানজিম হাসান সাকিব, তাসকিন আহমেদ ও শরিফুল ইসলাম।

টস জিতে ফিল্ডিং নিয়েছে শ্রীলঙ্কা

সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে আজ শুক্রবার চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে বাংলাদেশের বিপক্ষে টস জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন শ্রীলঙ্কান অধিনায়ক কুশল মেন্ডিস। ফলে আগে ব্যাটিং করতে হবে টাইগারদের। বাংলাদেশ সময় বেলা আড়াইটায় শুরু হবে ম্যাচটি।

সিরিজ জয়ের মিশনে বাংলাদেশ, ঘুরে দাঁড়াতে চায় লঙ্কানরা

অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্তর দুর্দান্ত সেঞ্চুরির সঙ্গে অভিজ্ঞ ব্যাটার মুশফিকুর রহিমের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে দারুণ জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ। এবার তাদের নজর সিরিজ জয়ে। অন্যদিকে ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া শ্রীলঙ্কা। সিরিজে টিকে থাকতে হলে জয়ের কোনো বিকল্প নেই তাদের।   

Comments

The Daily Star  | English
Cuet students block Kaptai road

Cuet closes as protest continues over students' death

The Chittagong University of Engineering and Technology (Cuet) authorities today announced the closure of the institution after failing to pacify the ongoing student protest over the death of two students in a road accident

1h ago