সাবিনাকে ‘বেস্ট লিডারের পুরস্কার’ দিতে চান কোচ

প্রথমার্ধেই দুই গোলে এগিয়ে গেলেও এক গোল ফেরত দিয়ে খেলায় ফিরে এসেছিল নেপাল। বাংলাদেশের আঙিনায় ক্রমশ চাপ তৈরি করে ছড়াচ্ছিল আতঙ্ক।
Sabina khatun & Golam Rabbani Choton
অধিনায়ক সাবিনাকে কৃতিত্ব দিলেন কোচ ছোটন

প্রথমার্ধেই দুই গোলে এগিয়ে গেলেও এক গোল ফেরত দিয়ে খেলায় ফিরে এসেছিল নেপাল। বাংলাদেশের আঙিনায় ক্রমশ চাপ তৈরি করে ছড়াচ্ছিল আতঙ্ক। গ্যালারি ভরপুর দর্শকদের গর্জনে উজ্জীবিত হয়ে উঠছিল তারা। প্রবল চাপের এই পরিস্থিতিতে ঘাবড়ে যায়নি বাংলাদেশের মেয়েরা। এর পেছনে কোচ গোলাম রাব্বানি ছোটন পুরো কৃতিত্ব দিলেন অধিনায়ক সাবিনা খাতুনকে। তার মতে টুর্নামেন্টের সেরা লিডার সাবিনা।

সোমবার কাঠমান্ডুতে নেপালকে স্তব্ধ করে ৩-১ গোলে জিতে সাফে চ্যাম্পিয়ন হয় বাংলাদেশ। এই শিরোপাকে মনে করা হচ্ছে দেশে নারী ফুটবলের সবচেয়ে বড় জাগরণ।

তবে বড় এই সাফল্য আসেনি সহজে। টুর্নামেন্টে বাকি চার ম্যাচ হেসেখেলে জিতলেও ফাইনালে কঠিন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল। ৭০ মিনিটে ২-১ হয়ে যাওয়ার পর সমতায় ফেরার বড় সুযোগ ছিল নেপালের।

প্রচণ্ড আওয়াজ ও  স্নায়ুচাপের এই সময়ে মাঠে কোন তথ্য পাঠাতে পারছিলেন না কোচ। কিন্তু অধিনায়ক সাবিনা সমস্যায় পড়তে দেননি দলকে। সাবিনাকে পাশে বসিয়ে সংবাদ সম্মেলনে ছোটন দিলেন বড় কৃতিত্ব,  'যখন ২-১ হয়ে গেছে এবং এরকম মানুষ যখন মাঠে থাকে। এটা একটা কঠিন ম্যাচ। তখন কোন তথ্যও খেলোয়াড়রা শুনতে পাচ্ছিল না। তখন আমি মনে করি আমাদের যে লিডার (সাবিনা) মানে এই টুর্নামেন্টের সেরা লিডার। সে সেরা ভ্যালুয়েবল পেয়েছে, বেস্ট স্কোয়ার পেয়েছে।

'আমি মনে করি বেস্ট লিডার হিসেবে আমার থেকে কোন কিছু পুরস্কার তাকে দেওয়া উচিত। আজকে লিডারের গুরুত্বটা খুবই প্রবল ছিল। নেপালের সমর্থকরা শুরু থেকেই যে শব্দ তৈরি করে এবং করতেই থাকে। এটা খুব কঠিন সামলানো। সেখানে মেয়েরা খুব ভালোভাবে উৎরে গেছে।'

টুর্নামেন্টে দুই হ্যাটট্রিকসহ ৮ গোল করে গোল্ডেন বুট পেয়েছেন সাবিনা। আসরের সবচেয়ে মূল্যবান খেলোয়াড়ের সম্মাননাও উঠেছে তার হাতে।

Comments

The Daily Star  | English

Create right conditions for Rohingya repatriation: G7

Foreign ministers from the Group of Seven (G7) countries have stressed the need to create conditions for the voluntary, safe, dignified, and sustainable return of all Rohingya refugees and displaced persons to Myanmar

1h ago