রিয়ালের বিপক্ষে এরপর ১০ জন নিয়ে মাঠে নামবে অ্যাতলেতিকো!

চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত তিনবার রিয়াল মাদ্রিদের মুখোমুখি হয়েছে অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ। আর প্রতি ম্যাচে অ্যাতলেতিকোর কেউ না কেউ লাল কার্ড দেখেছেন। তার স্পষ্ট প্রভাব পড়েছে ম্যাচে। তাতে বেজায় অসন্তুষ্ট দলটি। রেগে পরের ম্যাচে আগে থেকেই এক জন খেলোয়াড় কম নামানোর কথা বলেন গোলরক্ষক ইয়ান ওবলাক।

চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত তিনবার রিয়াল মাদ্রিদের মুখোমুখি হয়েছে অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ। আর প্রতি ম্যাচে অ্যাতলেতিকোর কেউ না কেউ লাল কার্ড দেখেছেন। তার স্পষ্ট প্রভাব পড়েছে ম্যাচে। তাতে বেজায় অসন্তুষ্ট দলটি। রেগে পরের ম্যাচে আগে থেকেই এক জন খেলোয়াড় কম নামানোর কথা বলেন গোলরক্ষক ইয়ান ওবলাক।

সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে শনিবার রাতে লা লিগার ম্যাচে রিয়াল মাদ্রিদের বিপক্ষে ১-১ গোলে ড্র করেছে অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ। ম্যাচের ৭৮তম মিনিটে হোসে হিমেনেজের গোল এগিয়ে গিয়েছিল অ্যাতলেতিকো। সে লিড ধরে রাখতে পারেনি তারা। সাত মিনিট পর রিয়ালকে সমতায় ফেরান স্প্যানিশ তরুণ ফরোয়ার্ড আলভারো রদ্রিগেজ।

এদিন ম্যাচের ৬৪তম মিনিটে ১০ জনের দলে পরিণত হয় অ্যাতলেতিকো। সরাসরি লাল কার্ড দেখে বহিষ্কার হন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড আনহেল কোরেয়া। দ্বিতীয়ার্ধেই বদলি নেমেছিলেন এ ফরোয়ার্ড। কর্নার নেওয়ার সময় কোরেয়াকে আটকাতে পেছন থেকে জড়িয়ে ধরেছিলেন রিয়াল ডিফেন্ডার আন্তনিও রুডিগার। নিজেকে ছাড়াতে কনুই দিয়ে আঘাত করেন কোরেয়া। যে কারণে তাকে বহিষ্কার করে রেফারি জেসুস গিল মনজানো।

এর আগে দুই দলের সবশেষ ডার্বিতে কোপা দেল রের ম্যাচে অ্যাতলেতিকোর স্টিফেন সাভিচ দেখেছিলেন লাল কার্ড। আর লা লিগায় আগের লেগের ম্যাচে বহিষ্কার হয়েছিলেন মারিও হারমোসো।

ম্যাচ শেষে রেফারির উপর ক্ষোভ উগলে দেন অ্যাতলেতিকো গোলরক্ষক ওবলাক। পরের ম্যাচে তাই আগেই একজন কম নিয়ে নামার কথা বলেন তিনি, 'সবাই রিপ্লে দেখেছে এবং প্রত্যেকের নিজস্ব মতামত আছে। লাল কার্ড সহ শেষ পাঁচটি (আসলে তিনটি) ডার্বি, সম্ভবত পরের ম্যাচে আমরা একজন কম দিয়ে শুরু করব।'

রেফারি গিলের উপর অসন্তোষ নতুন কিছু নয় অ্যাতলেতিকোর। ডার্বি ম্যাচে তাকে নিয়োগ দেওয়ার পর থেকেই অস্বস্তিতে ভুগছিলেন কোচ দিয়াগো সিমিওনি। গিলকে একজন বর্বর রেফারি বলে মন্তব্য করে বলেছিলেন, বরাবর তাদের বিপক্ষে বিতর্কিত সন্দেহজনক লাল কার্ড দিয়ে শাস্তি দেন।

এদিন শুধু লাল কার্ড নিয়ে অসন্তোষ করেছে অ্যাতলেতিকো এমনটাই, পুরো ম্যাচ পরিচালনা নিয়েই রেফারি গিলের উপর অসন্তুষ্ট অ্যাতলেতিকো। কোরেয়া মাঠে নামার কিছুক্ষণ পরই তাকে আঘাত করেছিলেন দানি কাবায়োস। তখন তার বিপক্ষে ফাউলের বাঁশিই বাজাননি রেফারি। পরে সামাজিকমাধ্যমে কোরেয়ার পায়ের একটি ছবি পোস্ট ক্লাবটি লিখেছে, 'আমাদের স্ট্রাইকারের পায়ে এভাবেই মেরেছে, আমরা আবারও বলছি যে, বার্নাব্যুতে নতুন কিছু নেই।'

এর আগে যখন কোরেয়াকে লাল কার্ড দেখানোও তখন সঙ্গে সঙ্গেই সামাজিকমাধ্যমে ক্লাবটি পোস্ট করেছিল, 'বার্নাব্যুতে নতুন কিছু নেই।'

Comments