১০ মিনিটে শেষ মায়ামি-ডালাস ম্যাচের সব টিকিট

মেসিকে দেখতে যে কোনো মূল্য পরিশোধ করতে ইচ্ছুক সমর্থকরা।
ছবি: সংগৃহীত

তিন ম্যাচ হয়ে গেছে মেজর সকার লিগে অভিষেক হয়ে গেছে লিওনেল মেসির। তবে এখনও তাকে দেখার আগ্রহ কমছে না সমর্থকদের মধ্যে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে সমস্ত খেলাধুলার সবচেয়ে আলোচিত গল্পই এখন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। মাত্র ১০ মিনিটে বিক্রি হয়ে গেছে এফসি ডালাসের বিপক্ষে তার লিগ কাপ শেষ ষোলোর ম্যাচের টিকিট।

আগের তিনটি ম্যাচই ঘরের মাঠে খেলেছেন মেসি। এবার প্রথমবারের মতো এবার অ্যাওয়ে ম্যাচের পরীক্ষা দিতে যাচ্ছেন অধিনায়ক। লিগস কাপের পরবর্তী ম্যাচ হবে ডালাসের মাঠে। তবে প্রতিপক্ষের মাঠেও মেসিকে দেখতে হুমড়ি খেয়ে পড়েছেন সমর্থকরা। এছাড়া এই ম্যাচের পর এই মৌসুমে ডালাসে আর খেলার সম্ভাবনা নেই মেসির।

টেক্সাসের ফ্রিসকোতে টয়োটা স্টেডিয়ামের ধারণক্ষমতাও মাত্র ২০ হাজার ৫০ জন। যে কারণে চাপটা আরও বেড়েছে। এরমধ্যেই টিকিটের মূল্য আকাশচুম্বী হয়েছে। ডালাসও মায়ামির মতো লিগের অন্যতম ছোট ফ্র্যাঞ্চাইজি। মেসিকে দেখার প্রবল চাহিদায় অনেক উপকৃত হবে তারাও। এরমধ্যেই উপস্থিতি বেড়েছে শহরটিতে। অনেকেই মেসিকে এক ঝলক দেখার জন্য যেকোনো মূল্য দিতে ইচ্ছুক।

তবে অফিসিয়াল আউটলেট থেকে যারা টিকিট কিনেছেন তারাই কেবল নির্ধারিত দামে কিনতে পেরেছেন। এরপর সেই টিকিট পুনঃবিক্রয়ের সময় বহুগুণে কিনেছেন সমর্থকরা। মেসির খেলা দেখার জন্য একটি টিকিটের জন্য নয় হাজার ডলারের মতো অর্থ প্রদান করেছেন কিছু সমর্থক।

এদিকে মেসি যোগ দেওয়ার পরই রাতারাতি বদলে গেছে মায়ামি। আগের ছয়টি ম্যাচে যেখানে কোনো জয় ছিল না তাদের, সেখানে টানা তিনটি ম্যাচেই জিতেছে তার দল। মেসিও খেলছেন দুর্দান্ত। শেষ দুই ম্যাচেই জোড়া গোল। তাতে সবমিলিয়ে দলের প্রতি প্রত্যাশাও বেড়েছে সমর্থকদের।

তবে মায়ামিতে মেসি আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ দেওয়ার আগেই তার সম্ভাব্য ম্যাচ বিবেচনা করে সব টিকিট মুহূর্তেই কিনে নিয়েছিল সমর্থকরা। এমনকি স্বাভাবিকমূল্যের চেয়ে বহুগুণ দাম দিয়ে কিনেছিল অনেক সমর্থক। অভিষেক ম্যাচে তো কোটি টাকাতেও বিক্রি হয়েছে অনেক টিকিট।   

Comments

The Daily Star  | English
Public universities protests quota reformation

PM's comment ignites protests across campuses

Hundreds of students from several public universities, including Dhaka University, took to the streets around midnight to protest what they said was a "disparaging comment" by Prime Minister Sheikh Hasina earlier in the evening

9h ago