২০২২ সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপ

শামসুন্নাহার-কৃষ্ণার গোলে ফাইনালের প্রথমার্ধে এগিয়ে বাংলাদেশ

২০২২ সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জয়ের লক্ষ্যে ফাইনালের মাঝপথে দারুণ অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ।
ছবি: বাফুফে

২০২২ সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা জয়ের লক্ষ্যে ফাইনালের মাঝপথে দারুণ অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। শামসুন্নাহার ও কৃষ্ণা রানি সরকারের লক্ষ্যভেদে তারা পেতে শুরু করেছে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার সুবাস।

সোমবার কাঠমুন্ডুর দশরথ রঙ্গশালা স্টেডিয়ামে আসরের ফাইনালে স্বাগতিক নেপালের মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশের মেয়েরা। দারুণ পারফরম্যান্স দেখিয়ে ম্যাচের বিরতি পর্যন্ত ২-০ গোলে এগিয়ে আছে গোলাম রব্বানি ছোটনের শিষ্যরা।

বদলি নামা শামসুন্নাহার জুনিয়র ম্যাচের ১৪তম মিনিটে উল্লাসে মাতান লাল-সবুজ জার্সিধারীদের। এরপর ৪২তম মিনিটে দলের পক্ষে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন কৃষ্ণা রানি সরকার।

ম্যাচের প্রথম মিনিটেই নেপালের রক্ষণে ভীতি ছড়ায় বাংলাদেশ। মারিয়া মান্ডার দূরপাল্লার শট হাতে জমাতে পারেননি গোলরক্ষক অঞ্জলি তুমবাপো। আলগা বলে শট নিয়েছিলেন সিরাত জাহান স্বপ্না। তবে আবারও রক্ষাকর্তার ভূমিকায় অবতীর্ণ হন অঞ্জলি।

ভুটানের বিপক্ষে সেমিফাইনালের শুরুর দিকে চোট পেয়ে বেরিয়ে গিয়েছিলেন স্বপ্না। এদিন শুরুর একাদশে জায়গা পেলেও বেশিক্ষণ মাঠে থাকতে পারেননি। ১১তম মিনিটে তার জায়গায় নামানো হয় শামসুন্নাহারকে।

মাঠে নামার তিন মিনিটের মধ্যে গোল পেয়ে যান শামসুন্নাহার। ডান প্রান্তে মনিকা চাকমা প্রতিপক্ষের দুই ডিফেন্ডারকে এড়িয়ে দারুণ ক্রস করেন ডি-বক্সের মধ্যে। চোখ ধাঁধানো ফ্লিকে জাল কাঁপান শামসুন্নাহার।

গোল হজমের পর নেপাল লড়াইয়ে ফিরে আসার জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে। ৩৬তম মিনিটে বিপজ্জনক জায়গা থেকে অনিতা বাসনেতের ফ্রি-কিক ঝাঁপিয়ে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন গোলরক্ষক রুপনা চাকমা।

কর্নার থেকে বড় ধরনের বিপদ ঘটতে পারত বাংলাদেশের। ডি-বক্সে জটলার মধ্যে প্রীতি রাইয়ের প্রচেষ্টা পোস্টে লেগে গোললাইন অতিক্রমের পথে ছিল। শেষ মুহূর্তে মাসুরা পারভিন বল বিপদমুক্ত করেন।

৪২তম মিনিটে ফের গোলের উৎসব। ডি-বক্সের বাইরে থেকে থ্রু বল বাড়ান অধিনায়ক সাবিনা খাতুন। তা ধরে ঠাণ্ডা মাথায় বাঁ পায়ের কোণাকুণি শটে অঞ্জলির মাথার উপর দিয়ে নিশানা ভেদ করেন কৃষ্ণা।

সাফের গত পাঁচ আসরের সবকটিতে শিরোপা জিতেছিল ভারত। এবার নিশ্চিতভাবেই নতুন চ্যাম্পিয়নের দেখা পেতে যাচ্ছে দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ফুটবল আসরটি।

Comments

The Daily Star  | English

'Why did they kill my father?'

Slain MP’s daughter demands justice, fair investigation

48m ago