বিপিএল ২০২৩

'ভুল' আউট দিলেও আর আম্পায়ারের সঙ্গে তর্কে জড়াবেন না বিজয়

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) এবার ডিআরএসের সম্পূর্ণ সুবিধা নেই। সিদ্ধান্ত নিতে তাই বড় চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হচ্ছে তৃতীয় আম্পায়ারদেরও। আম্পায়ারদের সঙ্গে ক্রিকেটারদের তর্কের ঘটনাও তাই হচ্ছে হরহামেশা। রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে জড়িয়েছিলেন এনামুল হক বিজয়ও। তবে আবার এমন কোনো পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে কোনো প্রতিক্রিয়া না দেখিয়ে আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত মেনে নিবেন ফরচুন বরিশালের এ উইকেটরক্ষক-ব্যাটার।

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) এবার ডিআরএসের সম্পূর্ণ সুবিধা নেই। সিদ্ধান্ত নিতে তাই বড় চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হচ্ছে তৃতীয় আম্পায়ারদের। আম্পায়ারদের সঙ্গে ক্রিকেটারদের তর্কের ঘটনা হচ্ছে হরহামেশা। রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে জড়িয়েছিলেন এনামুল হক বিজয়ও। তবে আবার এমন কোনো পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে কোনো প্রতিক্রিয়া না দেখিয়ে আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত মেনে নিবেন ফরচুন বরিশালের এ উইকেটরক্ষক-ব্যাটার।

রংপুরের বিপক্ষে সে ম্যাচে তখন ১৫ রানে ব্যাট করছিলেন বিজয়। রেজাউর রহমান রাজার চতুর্থ ওভারের প্রথম বলে সুইপ করতে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু লাইন মিস করলে বল লাগে প্যাডে। খালি চোখে মনে হচ্ছিল লেগ স্টাম্পের বাইরে রয়েছে বল। মাঠের আম্পায়ার তাই আউট দেননি। বোলার রাজা নিলেন রিভিউ। রিপ্লেতেও মনে হচ্ছিল লেগ স্টাম্প মিস করবে বল। কিন্তু বিস্ময়করভাবে মাঠের আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত পাল্টে আউট দেন তৃতীয় আম্পায়ার। তখন বিষয়টি মেনে নিতে না পেরে আম্পায়ারের সঙ্গে তর্কে জড়িয়েছিলেন বিজয়। যে কারণে পরে গুনতে হয়েছে জরিমানা।

মূলত এডিআরএস নামক আংশিক ডিআরএসের কারণেই হচ্ছে এমনটা। তারপরও এই পদ্ধতির পক্ষেই কথা বলেন বিজয়, 'বিসিবি সবসময়ই আমাদের জন্য শতভাগ দিয়ে চেষ্টা করে। আমরাও সেটা চেষ্টা করি। তবে একটা টুর্নামেন্ট চালাতে গেলে কিছু না কিছু ল্যাকিং থাকে। প্রতিবারই হয় বা এগুলো ইম্প্রুভ করার চেষ্টা করে। ক্রিকেটার হিসেবেই স্বাভাবিকভাবেই আমরা সেরা জিনিসটা আশা করব। যখন বিসিবি এটার শতভাগ দিয়ে চেষ্টা করবে বা আমাদের ফ্যাসিলিটি দেবে, আমরা এগ্রি। যদি না থাকে এগুলো নিয়ে মন খারাপের কিছু নেই।'

কিন্তু তারপরও কেন সেদিন তর্কে জড়িয়েছিলেন তার ব্যাখ্যাও দেন বিজয়। পরবর্তীতে এমন কিছু ফের হলে তখন মেনে নিবেন বলেই জানান এ ওপেনার, 'অবশ্যই একটা তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়া আসে, হতাশা কাজ করে। সবাই খালি চোখে কিন্তু দেখেছে আমারটা আউট হয় না। এটা কিন্তু নরমাল। কিন্তু আউট দিয়ে দিছে। টপঅর্ডার ব্যাটসম্যান হিসেবে আমার খারাপ লাগাই স্বাভাবিক। তবে ওই মুহূর্তে একটা প্রতিক্রিয়া এসেছে। আমি মনে করি পরবর্তীতে যদি এরকম হয়, চেষ্টা করব এগ্রি করার।'

হতাশ হওয়ার কারণগুলো ব্যাখ্যা করেন এ উইকেটরক্ষক-ব্যাটার, 'ব্যাসিক্যালি একটা প্লেয়ার যখন ইন্টারন্যাশনালি খেলে তখন কিন্তু অনেক সুযোগ পাই না। হয়তো ২টা সুযোগ পাই, ৩টা সুযোগ পাই। সবার জন্য এক সুযোগ নয়। বিপিএলও কিন্তু আমাদের জন্য অনেক বড় সুযোগ। তো এখানে ১-২টা ম্যাচ চলে যাওয়া আমাদের জন্য অনেক হতাশার।'

'আমি মনে করি, প্রতিটা ম্যাচই আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ, সেটা যে ম্যাচই হোক। সেই হিসেবে একটা হতাশা কাজ করে যে কী হলো, আউট হয়ে গেলাম। নিজে নিজে তো আউট হচ্ছিই, তার মধ্যে যদি আবার এগুলো হয় তাহলে তো খারাপ লাগবেই। সেই হিসেব করে আমার কাছে মনে হয়েছে ওরকম একটা প্রতিক্রিয়া এসেছে। তবে আমার কাছে মনে হয় ক্রিকেটার হিসেবে এটা হওয়া উচিত নয়,' যোগ করেন বিজয়।

Comments

The Daily Star  | English

Secondary schools, colleges to open from Sunday amid heatwave

The government today decided to reopen secondary schools, colleges, madrasas, and technical education institutions and asked the authorities concerned to resume regular classes and activities in those institutes from Sunday amid the ongoing heatwave

3h ago