‘ট্র্যাজেডি কিং’ দিলীপ কুমার!

ভারতীয় সিনেমার কিংবদন্তি অভিনেতা দিলীপ কুমার ‘ট্র্যাজেডি কিং’ হিসেবে পরিচিত ছিলেন। তাকে অধিকাংশ সিনেমাতে ট্রাজেডি নায়ক হিসেবে তাকে দেখা যেত।
দিলীপ কুমার। ফাইল ছবি, সংগৃহীত

ভারতীয় সিনেমার কিংবদন্তি অভিনেতা দিলীপ কুমার ‘ট্র্যাজেডি কিং’ হিসেবে পরিচিত ছিলেন। তাকে অধিকাংশ সিনেমাতে ট্রাজেডি নায়ক হিসেবে তাকে দেখা যেত।

ট্র্যাজেডি দৃশ্যে অভিনয় করতে করতে বাস্তব জীবনেও তিনি অবসাদে ভুগতে শুরু করেন। তখন মনোরোগ চিকিৎসকের পরামর্শে ‘আন’, ‘আজাদ’, ‘কোহিনূর’ সিনেমায় ভিন্ন ধরনের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। তিনি ‘ট্র্যাজেডি কিং’ তকমা থেকে বের হওয়ার চেষ্টা করছিলেন।

চল্লিশের দশকে সিনেমায় অভিষেক হয় দিলীপ কুমারের। তার সময়ে সবচেয়ে বেশি পারিশ্রমিক নেওয়া অভিনেতা ছিলেন। বলিউডে প্রথম নায়ক হিসেবে এক লাখ পারিশ্রমিক নিয়েছিলেন দিলীপ কুমার।

১৯৪৭ সালে তার অভিনীত ‘যুগনু’ সিনেমা বক্স অফিসে হিট হয়। এই সিনেমায় তার বিপরীতে অভিনয় করেন নূর জাহান। এরপর ১৯৪৮ সালে ‘মেলা’, ও ‘শাহিদ’ সিনেমা দুটিও সুপার হিট হয়। পঞ্চাশ দশকে দিলীপ কুমারের রাজত্ব ছিল। এছাড়া ‘নায়া দৌড় দেবদাস’, ‘রাম অউর শ্যাম’, ‘আদমি’, ‘লিডার’, ‘আন্দাজ’, ‘মধুমতী’, ‘গঙ্গা-যমুনা’, ‘ক্রান্তি’, ‘কর্মা সিনেমাগুলো তার আইকনিক সিনেমা হিসেবে পরিচিত।

১৯৬০ সালে দিলীপ কুমার অভিনীত  সবচেয়ে সফল সিনেমা ‘মুঘল-ই-আজম’ মুক্তি পায়। এই সিনেমা তখন ১১ বছর ধরে ছিল ভারতীয় সিনেমায় সর্বোচ্চ ব্যবসাসফল সিনেমা। তাকে শেষ পর্দায় দেখা যায় ১৯৯৮ সালে ‘কিলা’ সিনেমায়।

১৯২২ সালের ১১ ডিসেম্বর বর্তমান পাকিস্তানের পেশওয়ারে জন্মেছিলেন দিলীপ কুমার। তার আসল নাম মহম্মদ ইউসুফ খান। বাবার নাম লালা গুলাম আলি, মায়ের নাম আয়েশা বেগম। ১৯৬৬ সালে তিনি অভিনেত্রী সায়রা বানুর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তারা জুটি হয়ে ‘গোপী’, ‘সাগিনা’ সিনেমায় অভিনয় করেন।

দীলিপ কুমার ১৯৫৬ সালে ‘দাগ’ সিনেমায় অভিনয়ের জন্য প্রথম ফিল্ম ফেয়ার অ্যাওয়ার্ড পান।  সর্বমোট  আট বার ফিল্ম ফেয়ার পুরস্কার জিতেছেন তিনি। ১৯৯১ সালে পদ্মভূষণ,  ১৯৯৪ সালে দাদা সাহেব ফালকে। ২০১৫ সালে ভারত সরকার পদ্মবিভূষণ সম্মানও দিয়েছেন। ১৯৯৮ সালে পাকিস্তান সরকার নিশান-ই-ইমতিয়াজ সম্মানে সম্মানিত করে।

‘ট্র্যাজেডি কিং’ দীলিপ কুমার আজ ৭ জুলাই মৃত্যুবরণ করেছেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৮ বছর। তথ্য সূত্র: আনন্দলোক, জিনিউজ

Comments