'এমন সোনালী সুযোগ হাত ছাড়া করতে চাই না’

বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েস সম্পর্কে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের একজন চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী একটি চমকপ্রদ মন্তব্য করেছেন। গত শনিবার তিনি বলেন, যদিও ইমরুল অনেকটাই সুস্থ তবে যেহেতু তার পেশিতে ইনজুরি তাই যেকোনো সময় এটা আবার দেখা দিতে পারে।
Imrul-Kayes
ইমরুল কায়েস

বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েস সম্পর্কে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের একজন চিকিৎসক দেবাশীষ চৌধুরী একটি চমকপ্রদ মন্তব্য করেছেন। গত শনিবার তিনি বলেন, যদিও ইমরুল অনেকটাই সুস্থ তবে যেহেতু তার পেশিতে ইনজুরি তাই যেকোনো সময় এটা আবার দেখা দিতে পারে।

এর একদিন পর ইমরুল মিরপুরে শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে এসে কিছুক্ষণ ব্যায়াম করেন। ইনজুরি নিয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি এই বিষয়টিকে খুব একটা গুরুত্ব দেননি। ফেব্রুয়ারিতে ভারতের বিরুদ্ধে ওয়ার্ম-আপ খেলায় অংশ নিতে পারবেন কিনা এমন প্রশ্নেও একটি কৌশলী জবাব দেন তিনি।

ইমরুল জানান, “আমার কোন ধরনের কোন ব্যথা নেই। আগের আঘাতটা যেমন গুরুতর ছিলো, এবারেরটা তেমন না। আজকে খানিকটা দৌড়ালাম। কিছুক্ষণ সাইকেলও চালিয়েছি। এছাড়াও, ডাক্তারের সঙ্গে কথা বলেছি। আগামী মাসের নয় তারিখে টেস্ট খেলা। মনে করছি, খেলা শুরু হওয়ার আগেই আমি পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠবো।”

নিউজিল্যান্ড সফরে মুশফিকুর রহিমের অনুপস্থিতিতে ইমরুল কায়েসকে স্বাগতিকদের বিরুদ্ধে প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ১৫০ ওভার মোকাবেলা করতে হয়েছিল। এরপর দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং করার সময় উরুর পেশিতে ব্যথা পান তিনি।

“চিকিৎসকের রিপোর্টের ওপর নির্ভর করবে আমি অনুশীলন ম্যাচে খেলতে পারবো কিনা। যদি তিনি ম্যানেজমেন্টকে ইতিবাচক রিপোর্ট দেন তাহলে আমি খেলতে পারবো। আর যদি আমাকে নির্বাচন করা না হয় তাহলে সেটা ভিন্ন ইস্যু। আমি খেলতে পারবো যদি চিকিৎসক আমাকে সুস্থ মনে করেন তাহলে।”

ইমরুল মনে করেন, এখনো কয়েকদিন বাকি আছে। যদি আগামী দিনগুলোতে তিনি কঠিন অনুশীলন করতে পারেন, তাহলে তিনি নিশ্চিত যে ভালো একটা কিছু ঘটবে।

এটা এমন একটা সিরিজ যা ইমরুল মিস করতে চায় না। কেননা, এই প্রথম ভারতের মাটিতে স্বাগতিকদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ একটি দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলবে যাকে ঐতিহাসিক বলে অভিহিত করা যায়।

এই ওপেনারের ভাষায়, “সবাই ভারত সফরের দিকে তাকিয়ে আছেন। আমরা খুব সহসাই সেখানে খেলতে যেতে পারি না। আমরা এমনিতেই খুব একটা সুযোগ পাই না। সবাই এমন সুবর্ণ সুযোগের অপেক্ষায় থাকে। আমি এবং অন্যরাও তাই। আসলে সবাই এই সিরিজটা নিয়ে এক্সাইটেড।”

উরুর ব্যথার কারণে নিউজিল্যান্ড সিরিজের মাঝপথেই দেশে ফিরতে বাধ্য হয়েছিল ইমরুল। তার এই ফিরে আসাটাকে দুর্ভাগ্যজনক বলা হলেও বাস্তবতাকে মেনে নেওয়ার শিক্ষা রয়েছে। এর সঙ্গে রয়েছে ভালো কিছুর জন্য অপেক্ষা করার শিক্ষাও। এই মুহূর্তে মনে হচ্ছে, নিউজিল্যান্ডের দুঃখ অনেকটাই উবে গেছে। আর সবাই ভাবছেন সামনের ভারত সিরিজ নিয়ে।



Click here to read the English version of this news

Comments

The Daily Star  | English

Loan default now part of business model

Defaulting on loans is progressively becoming part of the business model to stay competitive, said Rehman Sobhan, chairman of the Centre for Policy Dialogue.

5h ago