‘বড় স্কোর করতে চাই’

সফরকারী অস্ট্রেলীয়দের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে বাংলাদেশ দলে রয়েছে প্রতিভাবান অলরাউন্ডার নাসির হোসেনের নাম। নাসির তাঁর সর্বশেষ বা ১৭তম টেস্টটি খেলেছিলেন ২০১৫ সালে।
nasir hossain
নাসির হোসেন। ছবি: সংগৃহীত

সফরকারী অস্ট্রেলীয়দের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে বাংলাদেশ দলে রয়েছে প্রতিভাবান অলরাউন্ডার নাসির হোসেনের নাম। নাসির তাঁর সর্বশেষ বা ১৭তম টেস্টটি খেলেছিলেন ২০১৫ সালে।

দুবছর আগেও জাতীয় দলে নিয়মিত দেখা যেত এই ক্রিকেটারকে। তবে এ দুবছর জাতীয় দলের বাইরে থাকলেও ঘরোয়া ক্রিকেটে তিনি ছিলেন নিয়মিত। এ বছরের শুরুতে জাতীয় ক্রিকেট লিগে তিনি প্রথমবারের মতো দুই শত রানে করেন।

নাসিরের মতে, তিনি পরিকল্পনামাফিক ঘরোয়া ক্রিকেটে সফলতা ধরে রেখেছেন। গতকাল (২০ আগস্ট) মিরপুরে শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে প্রশিক্ষণ শেষে তিনি সংবাদমাধ্যমকে বলেন, “আমি যখন জাতীয় লিগে খেলি তখন আমার কিছু পরিকল্পনা ছিলো। আমি সেখানে রান করেছিলাম। আর জাতীয় দলের জন্যে সবসময়ই একটি পরিকল্পনা থাকে। তবে সেখানকার পরিবেশটি একেবারেই অন্যরকম। কিন্তু আমি যদি জাতীয় দলে খেলার সুযোগ পাই তাহলে চেষ্টা করবো ভালো কিছু করার।”

এই ডান-হাতি ক্রিকেটার গত ১৭টি টেস্ট ম্যাচে একটি শতক এবং পাঁচটি ফিফটিসহ মোট ৯৭১ রান করেন। তিনি ছয়ে বা সাতে ব্যাট করতে নামতে চান। লোয়ার মিডল অর্ডারে খেলতে নামাটাকে তিনি চ্যালেঞ্জ হিসেবে গ্রহণ করেন। তাঁর মতে, “পারফরমেন্সটাই সব। তাই সব মনোযোগ এই পারফরমেন্সের দিকেই।”

নাসির বলেন, “একজন ক্রিকেটার যেখানেই খেলুক না কেনো – জাতীয় দলে অথবা অন্য কোথাও – তাঁর উচিত ভালো পারফর্ম করা।… আমি খুবই আনন্দিত, ১১ বছর পর আমরা অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে খেলতে যাচ্ছি। এর আগে আমি অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে কখনো খেলিনি। টেস্ট ক্রিকেটে অস্ট্রেলিয়া ব্যাপক প্রভাব বিস্তার করে রয়েছে। তাদের বিপক্ষে ভালো খেলতে পারলে একজন ক্রিকেটারের দৃষ্টিভঙ্গি পাল্টে যায়।”

নির্বাচকদের দৃষ্টিতে, নাসিরকে দলে নেওয়া হয়েছে অফ স্পিনার মেহেদী হাসানের ব্যাক-আপ হিসেবে। নাসিরের মন্তব্য, “আমি জাতীয় দলের বাইরে ছিলাম। তবে ভালো খেলার চেষ্টা করেছি। আমার ক্যারিয়ারে কিছু ভুল ছিলো। আবার যেহেতু দলে ফিরে এসেছি, এখন আমি একটি বড় স্কোর করতে চাই।”

Click here to read the English version of this news

Comments

The Daily Star  | English
Illustration showing man stealing data

Government mishandling of personal data: Where does it end?

Are these incidents of data breach and data leaks not contradictory to the very image of the smart, digital, developed Bangladesh that they are desperately trying to portray or advertise?

1h ago