করোনায় ২৩ জেলায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ১৫৫

করোনায় আক্রান্ত হয়ে এবং সংক্রমণের উপসর্গ নিয়ে রংপুর বিভাগ ও খুলনা, রাজশাহী, ময়মনসিংহসহ ২৩ জেলায় এক দিনে ১৫৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। আজ রোববার সকাল পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টার এই হিসাব জানিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ।
Coronavirus.jpg
ছবি: সংগৃহীত

করোনায় আক্রান্ত হয়ে এবং সংক্রমণের উপসর্গ নিয়ে রংপুর বিভাগ ও খুলনা, রাজশাহী, ময়মনসিংহসহ ২৩ জেলায় এক দিনে ১৫৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। আজ রোববার সকাল পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টার এই হিসাব জানিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

খুলনার চারটি ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত হয়ে আট জন ও উপসর্গ নিয়ে সাত জন মারা গেছেন। এ ছাড়া, খুলনা জেনারেল হাসপাতালে দুই জন, শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালে তিন জন ও গাজী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চার জনের মৃত্যু হয়েছে।

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ২৪ ঘণ্টায় ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে আট জন পুরুষ ও নয় জন নারী। আজ রোববার সকালে রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী দ্য ডেইলি স্টারকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘১৭ জনের মধ্যে ছয় জনের বাড়ি রাজশাহীতে, দুই জন চাঁপাইনবাবগঞ্জ, চার জন নাটোর, একজন নওগাঁ, একজন বগুড়া, দুই জন পাবনা ও একজনের বাড়ি ঝিনাইদহে। এদের মধ্যে পাঁচ জন কোভিড-১৯ পজিটিভ ছিলেন। বাকিরা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। করোনায় মারা যাওয়া পাঁচ জনের মধ্যে দুই জনের বাড়ি রাজশাহীতে এবং একজন তিন জন নাটোর, নওগাঁ ও পাবনার বাসিন্দা।’

শামীম ইয়াজদানী আরও জানিয়েছেন, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে ১৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে করোনায় আক্রান্ত ৫৭ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। মেডিকেল কলেজ ল্যাবে শুধুমাত্র রাজশাহী জেলার ১৮৩টি নমুনা পরীক্ষা করে ৪২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

পরীক্ষা বিবেচনায় রাজশাহীতে শনাক্তের হার ২৬ দশমিক ৬৮ শতাংশ।

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে গত ২৪ ঘণ্টায় ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে সাত জন করোনায় আক্রান্ত ছিলেন, বাকিরা সংক্রমণের উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন।

হাসপাতালের করোনা ইউনিটের ফোকাল পারসন ডা. মহিউদ্দিন খান মুন ডেইলি স্টারকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, এটি এক দিনে ময়মনসিংহে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড। জেলা সিভিল সার্জন ডা. নজরুল ইসলাম জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ৭৫২টি নমুনা পরীক্ষায় ১৯৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ২৬ দশমিক ৩২ শতাংশ। জেলায় এ পর্যন্ত মোট ১১ হাজার ৪৯৫ জন আক্রান্ত রোগীকে শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন আট হাজার ৩১৩ জন।

চট্টগ্রামে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ১১ জন মারা গেছেন। একই সময়ে ১২টি ল্যাবে দুই হাজার ৮৬২টি নমুনা পরীক্ষা করে ৯৪৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৬৩৯ জনের বাড়ি মহানগর এলাকায় ও ৩০৬ জন বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা।

পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৩৩ দশমিক ০১ শতাংশ। জেলা সিভিল সার্জন অফিস এ তথ্য জানিয়েছে। নতুন রোগীসহ এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের সংখ্যা ৭০ হাজার ৯০২ জনে দাঁড়িয়েছে। এর মধ্যে মহানগর এলাকার ৫৩ হাজার ৯৬১ ও ১৬ হাজার ৯৪১ জন উপজেলা পর্যায়ের রোগী রয়েছেন। এ পর্যন্ত মহানগর এলাকার ৫১৭ ও উপজেলা পর্যায়ের ৩১৮ জনসহ মোট ৮৩৫ জন মারা গেছেন।

করোনা ডেডিকেটেড সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত হয়ে একজন ও সংক্রমণের উপসর্গ নিয়ে ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৮১ জন ও উপসর্গ নিয়ে ৪৬৮ জনের মৃত্যু হলো।

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. কুদরত-ই-খোদা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

টাঙ্গাইল জেলা সিভিল সার্জন অফিস থেকে জানানো হয়েছে, জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় দুই জন মারা গেছেন। এদের মধ্যে একজন করোনায় আক্রান্ত ছিলেন, অন্যজন সংক্রমণের উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। টাঙ্গাইলে এ নিয়ে মোট ১৮৮ জনের মৃত্যু হলো। একই সময়ে এক হাজার ১৯ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২৫৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ২৪ দশমিক ৯২ শতাংশ। করোনা সংক্রমণ শুরুর পর থেকে জেলার মোট ১১ হাজার ৭১৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

কুষ্টিয়ায় ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় ২০ জন মারা গেছেন। এদের মধ্যে করোনায় ১২ জন ও উপসর্গ নিয়ে আট জনের মৃত্যু হয়েছে। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) আশরাফুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ঝিনাইদহে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে একজন মারা গেছেন। জেলা সিভিল সার্জন ডা. সেলিনা বেগম জানিয়েছেন, একই সময়ে ৩১২ জনের নমুনা পরীক্ষার ফলাফল পাওয়া গেছে। এর মধ্যে ৮৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ২৭ দশমিক ৮৮ শতাংশ।

মেহেরপুরে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন আরও দুই জন। একই সময়ে ২৭৩টি নমুনা পরীক্ষায় ৮২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৩০ শতাংশ। মেহেরপুরের জেলা সিভিল সার্জন ডা. নাসির উদ্দিন এ তথ্য জানিয়েছেন।

বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতাল এবং মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ও সংক্রমণের উপসর্গ নিয়ে মোট ২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। আজ রোববার দুপুরে ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মোস্তাফিজুর রহমান তুহিন ডেইলি স্টারকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ১৯ জনের মধ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে নয় জন ও উপসর্গ নিয়ে ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে দুই জন অন্য জেলার বাসিন্দা।

একই সময়ে জেলায় ৬১৫টি নমুনা পরীক্ষায় ১৯৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৩১ দশমিক ০১ শতাংশ। সুস্থ হয়েছেন ১২৬ জন বলে জানিয়েছেন ডা. তুহিন।
 
চুয়াডাঙ্গায় গত ২৪ ঘণ্টায় আরও আট জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে ছয় জন করোনায় আক্রান্ত হয়ে ও দুই জন উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। একই সময়ে ৪২২টি নমুনা পরীক্ষা করে ১২৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ২৯ দশমিক ৮৫ শতাংশ।

এর আগের ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ছিল ৮১ দশমিক ৪৮ শতাংশ। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. এএসএম ফাতেহ আকরাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

রংপুর বিভাগের আট জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে পাঁচ জনের বাড়ি রংপুরে, পঞ্চগড়ের একজন, নীলফামারীর দুই জন, লালমনিরহাটের একজন, ঠাকুরগাঁওয়ের তিন জন, দিনাজপুরের একজন ও দুই জন গাইবান্ধার বাসিন্দা।

ভারপ্রাপ্ত বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. আবু মো. জাকিরুল ইসলাম বলেন, রংপুর বিভাগে এ পর্যন্ত ৭৪০ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দুই হাজার ৭৮২টি নমুনা পরীক্ষায় ৮২১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ২৯ দশমিক ৫১ শতাংশ। এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হয়েছেন ৩৬ হাজার ৯২৯ জন। এর মধ্যে সুস্থ্য হয়েছেন ২৬ হাজার ৬২৩ জন।

Comments