চট্টগ্রামে ১ বছরে নেটওয়ার্ক কাভারেজ ৫০ শতাংশ বাড়ানোর দাবি বাংলালিংকের

বেসরকারি মোবাইল অপারেটর বাংলালিংক গত এক বছরে দেশব্যাপী নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণের অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম বিভাগে নেটওয়ার্ক কাভারেজ ৫০ শতাংশ বৃদ্ধি করেছে। এ ছাড়া টাইম ডিভিশন ডুপ্লেক্স (টিডিডি) প্রযুক্তির মাধ্যমে ২.৩ গিগাহার্জ ব্যান্ডের নতুন স্পেকট্রামের ব্যবহারও শুরু হওয়ায় এই অঞ্চলের বাংলালিংক গ্রাহকরা এখন দ্বিগুণ গতির মোবাইল ইন্টারনেট উপভোগ করতে পারবেন।
চট্টগ্রামে সংবাদ সম্মেলনে বাংলালিংকের স্বত্বাধিকারী প্রতিষ্ঠান ভিওন-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কান তেরজিওগ্লু, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী, বিটিআরসি-এর চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর শিকদারসহ বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। ছবি: সংগৃহীত

বেসরকারি মোবাইল অপারেটর বাংলালিংক গত এক বছরে দেশব্যাপী নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণের অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম বিভাগে নেটওয়ার্ক কাভারেজ ৫০ শতাংশ বৃদ্ধি করেছে। এ ছাড়া টাইম ডিভিশন ডুপ্লেক্স (টিডিডি) প্রযুক্তির মাধ্যমে ২.৩ গিগাহার্জ ব্যান্ডের নতুন স্পেকট্রামের ব্যবহারও শুরু হওয়ায় এই অঞ্চলের বাংলালিংক গ্রাহকরা এখন দ্বিগুণ গতির মোবাইল ইন্টারনেট উপভোগ করতে পারবেন।

আজ রোববার চট্টগ্রামে এক প্রেস কনফারেন্সে বাংলালিংকের স্বত্বাধিকারী প্রতিষ্ঠান ভিওন-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কান তেরজিওগ্লু এই কথা জানান। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী ও বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি)-এর চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর শিকদার এই প্রেস কনফারেন্সে প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

এই অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলালিংক-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এরিক অস, বাংলালিংকের চিফ কমার্শিয়াল অফিসার উপাঙ্গ দত্ত, চিফ করপোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স অফিসার তাইমুর রহমান, রিজিওনাল ডিরেক্টর সৌমেন মিত্র ও প্রতিষ্ঠানটির অন্যান্য উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা।

কান তেরজিওগ্লু বলেন, 'ভিওন ইতোমধ্যে বাংলাদেশে দুই অঙ্কের প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে। প্রবৃদ্ধির এই ধারা বজায় রাখতে চট্টগ্রামের মতো গুরুত্বপূর্ণ অঞ্চলে আমাদের নেটওয়ার্কে বিপুল বিনিয়োগ করা হচ্ছে। আমাদের চলমান প্রচেষ্টায় বাংলালিংকের সেবার মান আরও উন্নত হবে বলে আমি মনে করি।'

কান বলেন, 'আমি একটি স্বপ্ন দেখি যে আগামী দুই বা তিন বছরের মধ্যে বাংলাদেশে আমাদের দুই বিলিয়ন ডলারের ব্যবসা হবে। এই সময়ের মধ্যে ৭০ মিলিয়ন গ্রাহক নিয়ে ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে তালিকাভুক্ত হবে।'

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, 'চট্টগ্রাম বিভাগে নেটওয়ার্ক কাভারেজ সম্প্রসারণের জন্য বাংলালিংকের চলমান উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। আমরা গত কয়েক বছরে চট্টগ্রামে যে প্রযুক্তি অবকাঠামো গড়ে তুলেছি, সেটিকে এই ধরনের উদ্যোগ আরও মজবুত করবে। আমি আশা করি, বাংলালিংক এভাবেই ভবিষ্যতেও চট্টগ্রামকে প্রযুক্তির দিক থেকে এগিয়ে নিতে সহযোগিতা করবে।'

বাংলালিংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এরিক আস বলেন, 'আমরা বিভিন্ন মাত্রায় বিনিয়োগ করেছি। গত বছরের শুরুতে, আমাদের নয়টি বেস স্টেশন ছিল কিন্তু এই বছরের শেষে তা ১৪ আরেকটি মাত্রা হলো আমরা প্রাকৃতিক সম্পদে বিনিয়োগ করছি। এর পাশাপাশি আমরা দেশের সেরা ডিজিটাল পরিষেবা প্রদানকারী হবার লক্ষ নিয়ে ডিজিটাল পরিষেবাগুলিতেও বিনিয়োগ করেছি।'

'আমাদের মোবাইল এপ "টফি" দিয়ে আমাদের গ্রাহকরা ফিফা বিশ্বকাপ-২২ সালের খেলা সরাসরি উপভোগ করতে পারবে,' জানান এরিক।

বিটিআরসি-এর চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার বলেন 'আমরা কিন্তু সকল মোবাইল অপারেটরদেরকে নানান নির্দেশনা দিয়ে থাকি, শর্তাবলী দিয়ে থাকি, যে সব মেনে তাদের চলতে হয়। সেগুলো তারা করে চলেছে, বাংলালিংক ভালোভাবে করে চলেছে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ ও মানসম্পন্ন ডিজিটাল সেবা প্রদান করে বাংলালিংক ধারাবাহিকভাবে উন্নতি করে চলেছে। দেশের সব প্রান্তে আধুনিক ডিজিটাল অবকাঠামো নিশ্চিত করার জন্য সরকারের যে লক্ষ্য, সেটির সাথে বাংলালিংক-এর এই প্রচেষ্টা সামঞ্জস্যপূর্ণ। আমরা বাংলালিংক-এর ধারাবাহিক সাফল্য কামনা করছি।'

Comments