২০২৩ সালে ওটিটিতে আলোচিত

যুগের সাথে তাল মিলিয়ে ওটিটিতে শিল্পী ও পরিচালকদের ব্যস্ততা দিন দিন বাড়ছে। দর্শকরাও ঝুঁকেছেন অনলাইন স্ট্রিমিংয়ের দুনিয়ায়।

যুগের সাথে তাল মিলিয়ে ওটিটিতে শিল্পী ও পরিচালকদের ব্যস্ততা দিন দিন বাড়ছে। দর্শকরাও ঝুঁকেছেন অনলাইন স্ট্রিমিংয়ের দুনিয়ায়। বছরজুড়ে যেসব ওয়েব সিরিজ আলোচনায় ছিল তা নিয়ে এ লেখা।

মহানগর টু

চলতি বছরের অন্যতম আলোচিত ওয়েব সিরিজ 'মহানগর টু'। আশফাক নিপুণ পরিচালিত এ সিরিজটি দর্শকদের মাঝে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি করে। 'মহানগরে' মোশাররফ করিম আবারও প্রমাণ করেন তিনি কতটা দর্শকপ্রিয় এবং কতটা শক্তিমান অভিনেতা। সিরিজটিতে সব অভিনয়শিল্পী প্রশংসিত হয়েছেন। 'মহানগর' প্রথম প্রচারের পর যেমন সাড়া ফেলেছিল, 'মহানগর টু' প্রচারের পরও একইভাবে সাড়া ফেলেছে।

মাইসেলফ অ্যালেন স্বপন

ভিন্নরকম গল্পের ওয়েব সিরিজ 'মাইসেলফ অ্যালেন স্বপন'। এটি পরিচালনা করেছেন শিহাব শাহীন। প্রচারের সঙ্গে সঙ্গে সাড়া ফেলে এই ওয়েবসিরিজ। ভিন্ন এক নতুন গল্প দেখতে পায় দর্শক। অপরাধ জগতের অনেক কিছু উঠে আসে। এই সিরিজের একটি গানও সবার মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়ে। সিদ্দিকুর রহমান স্বপন ওরফে অ্যালেন স্বপন চরিত্রে নাসির উদ্দিন খান দুর্দান্ত অভিনয় করেন। এছাড়া অ্যালেন স্বপনের স্ত্রী শায়লার চরিত্রে মিথিলার অভিনয় দর্শকদের মন জয় করে।

গুটি

শঙ্খদাশ গুপ্ত পরিচালিত 'গুটি' ওয়েব সিরিজটি এই বছরের শুরুতে প্রচার হয়েছিল। 'রেহানা মরিয়ম নূর'খ্যাত অভিনেত্রী আজমেরি হক বাঁধন সিরিজে একজন মাদক পাচারকারীর চরিত্রে অভিনয় করেন। এছাড়া শাহরিয়ার নাজিম জয়, মৌসুমী হামিদসহ অন্য অভিনয়শিল্পীরাও প্রশংসিত হয়েছেন। সময়ের আলোচিত অভিনেতা নাসির উদ্দিন খানের অভিনয়ও দারুণ প্রশংসিত হয়।

বুকের ভেতর আগুন

তানিম রহমান অংশু পরিচালিত 'বুকের ভেতর আগুন' ওয়েব সিরিজ প্রচারের পর আলোচনা ও সমালোচনার ঝড় উঠে। কেউ কেউ বলতে শুরু করেন প্রয়াত জনপ্রিয় নায়ক সালমান শাহর জীবনের সাথে কিছুটা মিলে গেছে এর কাহিনী। নায়ক সালমান শাহর শেষ সিনেমার নাম ছিল 'বুকের ভেতর আগুন'। এই সিরিজে অপূর্ব অভিনয় করেন এএসপি গোলাম মামুন চরিত্রে। এই সিরিজের অন্যতম প্রধান চরিত্র এটি। তার অভিনয় প্রশংসা পায়। তমা মির্জা, শাহনাজ সুমীও অভিনয়ের জন্য প্রশংসিত হন।

দ্য সাইলেন্স

ভিকি জাহেদ পরিচালক হিসেবে সবসময়ই নতুন নতুন গল্প নিয়ে দর্শকদের সামনে উপস্থিত হন। সেই ধারাবাহিকতা লক্ষ্য করা গেছে 'দ্য সাইলেন্স' ওয়েব সিরিজে। এটি একটি থ্রিলারধর্মী ওয়েব সিরিজ। মেহজাবীন ও সজল জুটির 'দ্য সাইলেন্স' প্রচারের পরপরই আলোচনায় আসে। সজল অভিনয় করেন শিবলি চরিত্রে। যার কাজ সবাইকে ধোকা দেওয়া। লোভ লালসা ও ভালোবাসার গল্প এটি। মেহজাবীন অভিনয় করেন অর্থলোভী নারীর চরিত্রে। 'দ্য সাইলেন্স' দর্শকদের মুগ্ধ করেছে।

উনিশ বিশ

এ সময়ের জনপ্রিয় পরিচালক মিজানুর রহমান আরিয়ান পরিচালিত 'উনিশ বিশ' ওয়েবফিল্ম দিয়ে দীর্ঘ বিরতির পর অভিনয়ে ফেরেন বিন্দু। এতে আরিফিন শুভ'র বিপরীতে অভিনয় করেন তিনি। এটি মূলত ভালোবাসার কাহিনী। 'উনিশ বিশ' ভালোবাসার গল্প হিসেবে প্রশংসা পেয়েছে।

মোবারকনামা

বছরের শেষ মাস ডিসেম্বরে প্রচারিত হয়েছে মোশাররফ করিম অভিনীত ওয়েব সিরিজ 'মোবারকনামা'। এটি পরিচালনা করেছেন গোলাম সোহরাব দোদুল। প্রচারের পর বেশ আলোচিত হয়েছে সিরিজটি। মোশাররফ করিমের অভিনয় সববয়সী দর্শকদের মাঝে সাড়া ফেলেছে। এছাড়া শাহনাজ সুমী এই সিরিজে অভিনয় করেও সাড়া পেয়েছেন।

ফ্রাইডে

রায়হান রাফী পরিচালিত 'ফ্রাইডে' ওয়েব সিরিজটিও এ বছর দর্শকের প্রশংসা পেয়েছে। এতে তমা মির্জা প্রধান একটি চরিত্রে অভিনয় করেন।

অদৃশ্য

মাহফুজ আহমেদ ও অপি করিম অভিনীত 'অদৃশ্য' ওয়েব সিরিজটি ব্যাপক প্রশংসা পায়। 'অদৃশ্য' পরিচালনা করেন শাফায়েত মনসুর রানা।

অগোচরা

পুরোনো ঢাকার আন্ডারওয়াল্ডের গল্প নিয়ে নির্মিত 'অগোচরা' ওয়েব সিরিজটি পরিচালনা করেন সিদ্দিক আহমেদ। ফজলুর রহমান বাবু, জাকিয়া বারী মম, ইন্তেখাব দিনার এতে অভিনয় করেন।

আমি কী তুমি

ভিকি জাহেদ পরিচালিত 'আমি কী তুমি' ওয়েব সিরিজটিও চলতি বছর প্রশংসিত হয়। মেহজাবীনকে নতুনভাবে পায় দর্শকরা। তার বিপরীত শ্যামল মওলা দারুণ অভিনয় করেন।

পুনর্মিলনে

সম্পর্কের নানা বাঁক, হাসি, আনন্দ, টানাপোড়েন নিয়ে এবছর প্রচারিত হয় ওয়েব সিরিজ 'পুনর্মিলনে'। সিয়াম ও ফারিন প্রথমবার জুটি হয়ে এতে অভিনয় করেন। এটি পরিচালনা করেন মিজানুর রহমান আরিয়ান।

'সামথিং লাইক অ্যান অটোবায়োগ্রাফি'

বছর শেষে এসে প্রচারিত হয় মোস্তফা সরোয়ার ফারুকী এবং তিশা অভিনীত 'সামথিং লাইক অ্যান অটোবায়োগ্রাফি'। ওয়েব ফিল্মটি ব্যাপক প্রশংসিত হয়।

Comments

The Daily Star  | English

Summer vacation shortened; schools, colleges to open June 26

The educational institutes will open on June 26 instead of July 2 to recover learning losses

1h ago