কিশোর-কিশোরীদের স্বাস্থ্যসেবায় মোবাইল অ্যাপ চালু

রাজধানী ঢাকায় জাতীয় কৈশোর স্বাস্থ্য সম্মেলনে দুটি অনলাইন পোর্টাল চালু করা হয়েছে। এর মাধ্যমে দেশের কিশোর-কিশোরী ও তরুণ-তরুণীরা স্বাস্থ্য বিষয়ক তথ্য ও সেবা পেতে সক্ষম হবে।
ছবি: ইউনিসেফের সৌজন্যে

রাজধানী ঢাকায় জাতীয় কৈশোর স্বাস্থ্য সম্মেলনে দুটি অনলাইন পোর্টাল চালু করা হয়েছে। এর মাধ্যমে দেশের কিশোর-কিশোরী ও তরুণ-তরুণীরা স্বাস্থ্য বিষয়ক তথ্য ও সেবা পেতে সক্ষম হবে।

ইউনিসেফ ও সুইডিশ দূতাবাসের সহায়তায় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এই কৈশোর স্বাস্থ্য ওয়েবসাইট ও মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন চালু করেছে।

কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং তাদের জন্য শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক তথ্য ও সেবার সহজপ্রাপ্তির সুযোগ নিশ্চিত করতে এ অ্যাপ্লিকেশন চালু করা হয়েছে বলে ইউনিসেফের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, 'এই প্ল্যাটফর্মগুলো বাংলাদেশে কৈশোর-বান্ধব স্বাস্থ্যসেবা শক্তিশালী করতে সরকারের প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়নের প্রতিফলন।'

'কিশোর-কিশোরীরা পরিবর্তনের দূত হতে পারে' উল্লেখ করে তিনি বলেন, 'তাদের ক্ষমতায়নে এবং বয়স-ভিত্তিক চাহিদাগুলো পূরণে সম্ভবপর সবকিছু আমাদের করতে হবে।' 

ইউনিসেফ জানায়, বাংলাদেশে কিশোর-কিশোরীদের সংখ্যা প্রায় ৩ কোটি ৬০ লাখের বেশি। কিন্তু তাদের সঠিকভাবে বেড়ে ওঠা ও বিকাশের  জন্য অপরিহার্য স্বাস্থ্যসেবা ও তথ্য প্রাপ্তির ক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরনের সামাজিক বাধা আছে। 

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, 'মানসিক স্বাস্থ্য ও মানসিক অসুস্থতা সম্পর্কে একদিকে যেমন সচেতনতার অভাব, অন্যদিকে কমিউনিটিতে ব্যাপক মাত্রায় এ বিষয়ক নানা নেতিবাচক ধ্যান-ধারণা ও কুসংস্কার প্রচলিত আছে। আর যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্যসেবার ক্ষেত্রে মেয়ে ও ছেলে উভয়ের জন্যই বিশ্বাসযোগ্য তথ্য ও অত্যাবশ্যক সেবা খুঁজে পাওয়া আরও কঠিন হয়ে দাঁড়ায়।' 

বাংলাদেশে ইউনিসেফের প্রতিনিধি শেলডন ইয়েট বলেন, 'বয়োসন্ধিকাল একটি রূপান্তরের সময়, যখন কিশোর-কিশোরীরা বিস্তৃত পরিসরে পৃথিবীর মুখোমুখি হয়, মুখোমুখি হয় নতুন চ্যালেঞ্জের। এই অ্যাপটি তাদের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দেবে, যেগুলো তারা বাবা-মা, বন্ধু এমনকি স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীদের কাছে জিজ্ঞাসা করতে সাধারণত লজ্জা পেয়ে থাকে।'

কিশোর-কিশোরী স্বাস্থ্য প্ল্যাটফর্মগুলোতে যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য এবং অধিকার, পুষ্টি, সহিংসতা এবং শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য সংক্রান্ত শিক্ষামূলক ও জেন্ডার-ভিত্তিক নির্দেশিকা ও কোর্সের পাশাপাশি কৈশোর-বান্ধব স্বাস্থ্যসেবা কীভাবে ও কোথায় পাওয়া যায় সে বিষয়ক তথ্য পাওয়া যাবে।

প্ল্যাটফর্মটির প্রচারণায় মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় দেশের সব মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে কিশোর-কিশোরী ক্লাব, পিয়ার-গ্রুপ (বন্ধু-দল) এবং শিক্ষকদের সঙ্গে সম্পৃক্ত হবে।

ঢাকায় নিযুক্ত সুইডেনের রাষ্ট্রদূত আলেক্সান্দ্রা বার্গ ভন লিন্ডে বলেন, 'এই কৈশোর স্বাস্থ্য প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে বাংলাদেশের লাখ লাখ মেয়ে ও ছেলের জীবন উন্নত করার সম্ভাবনা আছে। আমরা এই উদ্যোগের অংশ হতে পেরে আনন্দিত।'

Comments

The Daily Star  | English

International Mother Language Day: Languages we may lose soon

Mang Pru Marma, 78, from Kranchipara of Bandarban’s Alikadam upazila, is among the last seven speakers, all of whom are elderly, of Rengmitcha language.

3h ago