কমলাপুরে ট্রেনের বগিতে কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ৫

কমলাপুর রেলস্টেশনের ভেতরে ট্রেনের বগিতে এক কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা রেলওয়ে থানা পুলিশ।
গ্রেপ্তার সুমন (বামে) ও নাইম (ডানে)। ছবি: সংগৃহীত

কমলাপুর রেলস্টেশনের ভেতরে ট্রেনের বগিতে এক কিশোরীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে ৫ জনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা রেলওয়ে থানা পুলিশ।

আজ শনিবার ভোররাতে এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটে।

ঢাকা রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফেরদাউস আহমেদ দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, 'অভিযুক্ত ৫ আসামিকে আমরা গ্রেপ্তার করেছি এবং ১ জন এখনো পলাতক। তাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।'

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের আশকর নগরের রাজিব হোসেনের ছেলে সুমন (২১), চাঁদপুরের কচুয়ার করইশ গ্রামের জাকির হোসেনের ছেলে নাইম (২৫), নরসিংদীর বেলাবোর চরলক্ষীপুরের আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে নাজমুল হাসান (২৬), লক্ষ্মীপুরের কমলনগরের মুন্সীরহাট গ্রামের সোহাগের ছেলে আনোয়ার (২০) এবং সিলেট ওসমানীনগরের দাশপাড়া গ্রামের সোনার আলীর ছেলে রোমান প্রকাশ কালু (২২)।

পলাকত আছে ইমরান (২০)।

মামলার বরাত দিয়ে ওসি জানান, ওই কিশোরীর বয়স ১৭ বছর। গতকাল নেত্রকোণায় পরিবারের ওপর রাগ করে ঢাকায় চলে আসে মেয়েটি। আজ ভোররাত ১২টার দিকে কমলাপুর স্টেশনের প্ল্যাটফর্মে তাকে কাঁদতে দেখে সাহায্যের কথা বলে অভিযুক্ত ইমরান। এসময় কয়েকজন তার ক্ষতি করতে পারে বলে ভুক্তভোগী কিশোরীকে স্টেশনের ভেতরে দাঁড় করিয়ে রাখা একটি বগিতে নিয়ে যায়। সেখানে কিশোরীকে ধর্ষণ করে ৫ জন। মেয়েটির চিৎকারে পুলিশসহ আশেপাশের কয়েকজন এগিয়ে আসে এবং মেয়েটিকে উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় ঢাকা রেলওয়ে থানায় মামলা হয়েছে।

ওসি বলেন, গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে সুমন ও নাইম আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তারা রেলওয়ের পরিচ্ছন্নতার কাজ পাওয়া ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ফেমাস ট্রেডার্সের কর্মী বলে রেলওয়ে পুলিশকে জানিয়েছেন।

তবে প্রতিষ্ঠানটির সুপারভাইজার গোলামুন্নবি রায়হান বলেন, তিন দিন আগে তাদের চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। আগেও তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপরাধে যুক্ত থাকার অভিযোগ ছিল। এ কারণে তাদের চাকরিচ্যুত করা হয়। ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে তারাও আছে বলে শুনেছি।

Comments

The Daily Star  | English

Peacekeepers can face non-deployment for rights abuse: UN

The UN peacekeepers can face non-deployment and even repatriation if the allegations of human rights against them are substantiated

11m ago