অপরাধ ও বিচার

হত্যা মামলার আসামিদের বিরুদ্ধে সাক্ষীকে গুলির অভিযোগ

নরসিংদীতে হত্যা মামলায় সাক্ষ্য দেওয়াকে কেন্দ্র করে আসামীদের ছোড়া গুলিতে আহত হয়েছেন সাক্ষী সজীব মিয়া (৩০)।
স্টার অনলাইন গ্রাফিক্স

নরসিংদীতে হত্যা মামলায় সাক্ষ্য দেওয়াকে কেন্দ্র করে আসামীদের ছোড়া গুলিতে আহত হয়েছেন সাক্ষী সজীব মিয়া (৩০)।

আজ শুক্রবার দুপুরে সদর উপজেলা পাঁচদোনায় এ ঘটনা ঘটে। এসময় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে নিয়ে যায়।

আহত সজিব মিয়া (৩০) সদর উপজেলার আসমান্দিরচর এলাকার বাসিন্দা। তিনি শিবপুরের আরিফ পাঠান হত্যা মামলার অন্যতম সাক্ষী।

শুক্রবার বিকেলে সজীব দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, 'দুপুরে জুম্মার নামাজে যাওয়ার পথে পাঁচদোনা স্কুলের সামনে পৌঁছালে আরিফ হত্যা মামলার প্রধান আসামী টিটু, আসামী মাসুদ ও পলাশের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী আমার ওপর হামলা চালায়। এসময় আমি দৌঁড়ে পালাতে চাইলে তারা গুলি ছোড়ে।' 

২০১৫ সালের ১ এপ্রিল সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত হন শিবপুরের পুটিয়া ইউনিয়নের তৎকালীন ইউপি সদস্য আরিফ হোসেন পাঠান। সেসময় তার ছোট ভাই রুমান পাঠান বাদী হয়ে একটি হত্যা মামলা করেন। মামলায় টিটু, মাসুদ ও পলাশসহ অন্যান্যদের আসামী করা হয়। এ মামলার অন্যতম সাক্ষী সজিব মিয়া।

মামলার বাদী রুমান আহমেদ ডেইলি স্টারকে জানান, ঘটনার পর অভিযুক্ত ১৪ জনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করলেও বিভিন্ন মেয়াদে জেল খেটে তারা জামিনে বের হয়ে আসেন।

তাদের মধ্যে ১নং আসামি টিপুকে ঘটনার এক মাস পর অর্থাৎ ২০১৫ সালের মার্চ মাসে পুলিশ গ্রেপ্তার করে। ২০২২ সালের ৮ সেপ্টেম্বর তিনি জামিনে জেল থেকে বেরিয়ে আসেন। অন্যান্য আসামিদের মধ্যে গ্রেপ্তার হওয়ার ৩ বছর পর মোস্তফা ও ২ বছর পর মাসুদ জামিনে জেল থেকে বেরিয়ে আসেন। বর্তমানে ১৪ জনই জামিনে আছেন।

মামলার বাদী অভিযোগ করে বলেন, '২০১৮ সাল থেকে মামলাটি নরসিংদী জজ কোর্টে বিচারাধীন। গত মাসে ১নং আসামী আরিফ বের হয়েই সাক্ষীদের প্রভাবিত করতে বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছে। আমাকেও বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছে।'

'আদালতে উপস্থিত হয়ে সজিব মিয়া যাতে সাক্ষ্য দিতে না পারেন, সে জন্য প্রথমে তাকে লোভ দেখানো হয়। গত ১১ অক্টোবর আদালতে সাক্ষী দিতে উপস্থিত হলে সবার সামনেই সেখানে তাকে হুমকি দেওয়া হয়,' যোগ করেন তিনি।

জানতে চাইলে নরসিংদীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আল-আমিন বলেন, 'আমরা খবর পেয়েছি। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ঘটনা তদন্ত করে আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।'

মামলার বিষয়ে শিবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সালাউদ্দিন আহমেদ ডেইলি স্টারকে বলেন, 'হত্যা মামলার চার্জশিট শিবপুর থানার এস আই ফয়েজ উদ্দিন অনেক আগেই দিয়েছে। মামলাটি অনেক আগে কোর্টে হস্তান্তরও করা হয়েছে। তবে, শুনেছি সজিব নামের এক সাক্ষীকে আসামিরা গুলি করে আহত করেছে। আমরা এটি খোঁজ নিচ্ছি।' 

এ ব্যাপারে নরসিংদী জেলা হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. তাসরিফা আমরিন হক অন্তরা বলেন, 'দুপুরে সজিব মিয়া নামে এক রোগী হাসপাতালের জরুরী বিভাগে আসার পর তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। আঘাতের কারণ নির্ণয় ও উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়েছে।'

Comments