আরাভ খানের বিরুদ্ধে অস্ত্র মামলায় যুক্তিতর্ক ৭ মে

আদেশে বিচারক জানান, অভিযুক্তকে আগে থেকে ‘পলাতক’ ঘোষণা করা হয়েছে বলে তার আত্মপক্ষ সমর্থনের বক্তব্য রেকর্ড করা হয়নি
আরাভ খান ওরফে রবিউল ইসলাম। ছবি: সংগৃহীত

রবিউল ইসলাম ওরফে আরাভ খানের বিরুদ্ধে দায়ের করা অস্ত্র মামলায় যুক্তিতর্কের জন্য আগামী ৭ মে দিন ধার্য করেছেন ঢাকার একটি আদালত।

আজ বৃহস্পতিবার ঢাকার বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-১৪-এর বিচারক মুরশিদ আহমেদ মামলার সব আনুষ্ঠানিকতা শেষে এ তারিখ নির্ধারণ করেন।

আদেশে বিচারক জানান, অভিযুক্তকে আগে থেকে 'পলাতক' ঘোষণা করা হয়েছে বলে তার আত্মপক্ষ সমর্থনের বক্তব্য রেকর্ড করা হয়নি। তাই যুক্তিতর্কের জন্য পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে।

এর আগে মামলার অভিযোগকারীসহ ১০ জন সাক্ষীর জবানবন্দি রেকর্ড করেন ট্রাইব্যুনাল।

এ ছাড়া আরাভ খান ২০১৮ সালে একজন পুলিশ ইন্সপেক্টরকে হত্যার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় অভিযুক্ত।

মামলাটি এখন ঢাকার প্রথম অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন। যেখানে অভিযোগকারীসহ রাষ্ট্রপক্ষের ৫ জন সাক্ষী জবানবন্দি দিয়েছেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়, আরাভ খান ২০১৫ সালের ২৮ জানুয়ারি মগবাজারে তার শ্বশুর সেকেন্দার আলীর বাসায় যান অস্ত্রের মুখে টাকা আদায় করতে। কিন্তু আরাভ খানকে বাড়ির সামনে থেকে গ্রেপ্তার করে রমনা থানা পুলিশ। সে সময় তার কাছ থেকে একটি রিভলবারও উদ্ধার করে পুলিশ।

পরে তার বিরুদ্ধে রমনা থানায় অস্ত্র আইনে মামলা করা হয়।

তদন্ত শেষে ওই বছরের ১ মার্চ তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে ডিবি। এ ছাড়া গত ১০ মে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন ট্রাইব্যুনাল।

আরাভ খান ২০১৮ সালের ১৪ মার্চ উচ্চ আদালত থেকে জামিন পেয়ে আত্মগোপনে চলে যান। ওই মামলায় ট্রাইব্যুনাল তাকে 'পলাতক' ঘোষণা করে এবং একই বছরের ২৪ অক্টোবর তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে।

আরাভ খান, যিনি দুবাইতে একটি জুয়েলারি দোকান চালাতেন। বর্তমানে তার ওপর রেড অ্যালার্ট জারি করেছে ইন্টারপোল।

 

Comments