অপরাধ ও বিচার

রানা প্লাজার মালিক সোহেল রানার জামিন আরও ৬ মাস স্থগিত

২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল সাভারে ৯তলা ভবনটি ধসে পড়ে কমপক্ষে ১ হাজার ১৩৫ জন নিহত এবং ২ হাজার ৫০০ জনেরও বেশি আহত হন।
রানা প্লাজার মালিক সোহেল রানার জামিন আরও ৬ মাস স্থগিত
স্টার ফাইল ছবি

সাভারের রানা প্লাজা ধসের ঘটনায় ভবন মালিক  সোহেল রানাকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের শুনানি ৬ মাস মুলতবি রেখেছেন সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগ। ২০১৩ সালের এপ্রিল মাসে ওই ভবনটি ধসে অন্তত ১ হাজার ১৩৫ জন নিহত হন।
 
হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে রাষ্ট্রের দায়ের করা একটি পিটিশনও সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ স্ট্যান্ড ওভার (শুনানির অপেক্ষায়) রেখেছে।

রিট আবেদনের সংক্ষিপ্ত শুনানি শেষে প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বে আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

রানার আইনজীবী মো. কামরুল ইসলাম দ্য ডেইলি স্টারকে জানিয়েছেন, সোহেল রানাকে জামিন দেওয়া হাইকোর্টের রায় সুপ্রিম কোর্টের আদেশের পরে স্থগিত থাকবে। 

রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সারোয়ার হোসেন বাপ্পি।

গত ৬ এপ্রিল ওই মামলায় সোহেল রানাকে জামিন দেন হাইকোর্ট।

এ মামলায় সোহেল রানাকে কেন জামিন দেওয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে করা এক রুলের শুনানি শেষে বিচারপতি মো. আকরাম হোসেন চৌধুরী ও বিচারপতি মোহাম্মদ আলীর বেঞ্চ এ জামিন মঞ্জুর করেন।

সোহেল রানার আইনজীবী মো. কামরুল ইসলাম ওই দিন দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, মামলায় তার মক্কেল ১০ বছর ধরে কারাগারে ভুগছেন।

তিনি বলেন, এই মামলার ৫৯৪ জন সাক্ষী রয়েছে, কিন্তু গত ১০ বছরে ট্রায়াল কোর্ট মামলার মাত্র ৩৫ জন সাক্ষীর বক্তব্য রেকর্ড করেছে।

মামলার মোট ৩৮ আসামির মধ্যে সোহেল রানা ছাড়া ৩৭ জন এখন জামিনে রয়েছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, 'সোহেল রানা এর আগে বাকি ৫ থেকে ৭টি মামলায় হাইকোর্ট ও নিম্ন আদালত থেকে জামিন পেয়েছেন।'

তিনি বলেন, 'প্রাথমিকভাবে ভবন নির্মাণে অবহেলার অভিযোগে মামলা করা হয়েছে। পরে মামলায় হত্যার অভিযোগ আনা হয়।'

২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল সাভারে ৯তলা ভবনটি ধসে পড়ে কমপক্ষে ১ হাজার ১৩৫ জন নিহত এবং ২ হাজার ৫০০ জনেরও বেশি আহত হয়।

Comments