অপরাধ ও বিচার

তারেক-জোবাইদার বিরুদ্ধে দুদকের মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ, ২৭ জুলাই যুক্তিতর্ক

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী জুবাইদা রহমানের বিরুদ্ধে ২০০৭ সালের দুর্নীতি দমন কমিশনের করা একটি মামলার সব সাক্ষীদের জবানবন্দি রেকর্ড শেষ করেছে ঢাকার একটি আদালত।
তারেক রহমান ও তার স্ত্রী জোবায়দা রহমান। ছবি: সংগৃহীত

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী জুবাইদা রহমানের বিরুদ্ধে ২০০৭ সালের দুর্নীতি দমন কমিশনের করা একটি মামলার সব সাক্ষীদের জবানবন্দি রেকর্ড শেষ করেছে ঢাকার একটি আদালত।

আজ সোমবার দুদকের উপপরিচালক মো. তৌফিকুল ইসলাম ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তার জবানবন্দি রেকর্ডের মধ্যে দিয়ে সব সাক্ষীর জবানবন্দি রেকর্ড শেষ করেন।

ঢাকা মেট্রোপলিটন সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক মো. আসাদুজ্জামান তাদের জবানবন্দি রেকর্ডের পর যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের জন্য ২৭ জুলাই তারিখ নির্ধারণ করেন।

মামলার অভিযোগকারীসহ প্রসিকিউশনের মোট ৪১ জন সাক্ষীর জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়েছে।

তারেক রহমান, তার স্ত্রী জোবাইদা রহমান ও ও জোবাইদার মা সৈয়দা ইকবাল মান্দ বানুর বিরুদ্ধে অবৈধ উপায়ে ৪ কোটি ৮২ লাখ টাকার সম্পদ অর্জন এবং ২ কোটি ১৬ লাখ টাকার তথ্য গোপনের অভিযোগে ২০০৭ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর কাফরুল থানায় মামলাটি করে দুদক।

তদন্তের পর তদন্ত কর্মকর্তা ২০০৯ সালের ৩১ মার্চ ৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেন।

তবে জুবাইদার মায়ের বিরুদ্ধে বিচার কার্যক্রম বাতিল করা হয়।

মামলার অভিযোগপত্রে তারেক দম্পতিকে পলাতক দেখানো হয়েছে। ১৩ এপ্রিল আদালত তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। 

তারেক আরও ১৫টি মামলার আসামি, যেগুলোর বেশিরভাগই ২০০৭ ও ২০০৮ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে করা হয়। এর একটি মামলায় জুবাইদাকে অভিযুক্ত করা হয়।

তাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ গ্রহণ করে গত বছরের ১ নভেম্বর  আদালত তাদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় তারেক যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত হয়েছেন। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলাসহ আরও দুটি মামলায় তার সাজা হয়েছে।

Comments