ডেইলি স্টারের প্রতিবেদন আমলে নিয়ে আ. লীগ প্রার্থী রনজিতকে শোকজ

এ বিষয়ে দ্য ডেইলি স্টারে প্রতিবেদন প্রকাশের পর আজ রোববার সন্ধ্যায় অনুসন্ধান কমিটির চেয়ারম্যান এবং সিনিয়র সহকারী জজ প্রবাল চক্রবর্তী এ নোটিশ পাঠান।
রনজিত চন্দ্র সরকারের জনসভা
সুনামগঞ্জ-১ আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী রনজিত চন্দ্র সরকার তাহিরপুর উপজেলায় বিপুল সংখ্যক মানুষের উপস্থিতিতে উন্মুক্ত জনসভায় অংশ নেন। ছবি: সংগৃহীত

নির্বাচনী আচরণবিধি না মেনে জনসভা করায় সুনামগঞ্জ-১ আসনের আওয়ামী লীগ প্রার্থী রনজিত চন্দ্র সরকারকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে নির্বাচনী অনুসন্ধান কমিটি।

এ বিষয়ে দ্য ডেইলি স্টারে প্রতিবেদন প্রকাশের পর আজ রোববার সন্ধ্যায় অনুসন্ধান কমিটির চেয়ারম্যান এবং সিনিয়র সহকারী জজ প্রবাল চক্রবর্তী এ নোটিশ পাঠান।

নোটিশে গত ১২ ডিসেম্বর দ্য ডেইলি স্টার অনলাইনে 'সুনামগঞ্জ: কর্মীসভার নামে জনসভা করছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা' শিরোনামে প্রকাশিত খবরের কথা উল্লেখ করে বলা হয়েছে, 'আপনি ১১ ডিসেম্বর তাহিরপুর উপজেলার চারাগাঁও বাজার ও বাগলী বাজার এলাকায় প্রকাশ্যে সভা করেছেন ও নিজের জন্য ভোট চেয়েছেন এবং বিভিন্ন তারিখে বিভিন্ন এলাকায় প্রকাশ্যে নির্বাচনি প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন এবং তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিয়মিত প্রচার করছেন। আপনার দ্বারা এসব কার্যাদি সংঘটিত হলে তা নির্বাচনি আচরণ বিধি লংঘনের সামিল।'

'এমতাবস্থায়, এসব বিষয়ে তদন্ত করে আপনার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কেন নির্বাচন কমিশনে প্রতিবেদন প্রেরণ করা হবে না তা জানিয়ে আগামী ১৯ ডিসেম্বর সকাল ১০ টার মধ্যে লিখিত ব্যাখ্যা প্রদানের জন্য আপনাকে নির্দেশ দেওয়া হলো।'

নোটিশে আরও বলা হয়েছে, এর আগেও নির্বাচনি আচরণ বিধি লঙ্ঘন সংক্রান্তে ওই প্রার্থীর কাছে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছিল এবং তিনি তার লিখিত জবাবে আচরণ বিধি লঙ্ঘন হয় এমন কাজ থেকে বিরত থাকার সুস্পষ্ট অঙ্গীকার জানিয়েছিলেন।

গত ১২ ডিসেম্বর ডেইলি স্টারে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সুনামগঞ্জ-১ আসনের আওয়ামী লীগ প্রার্থী রনজিত চন্দ্র সরকার মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত প্রতিদিন বিপুল সংখ্যক লোকের উপস্থিতিতে উন্মুক্ত জনসভায় অংশগ্রহণ করছেন। গত রোববার রাতে তিনি তাহিরপুর উপজেলার বড়দল ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্সের সামনে এ ধরনের একটি সভায় অংশগ্রহণ করে বক্তব্য রাখেন। নির্বাচনী প্রচারনায় সরকারি প্রতিষ্ঠানের ব্যবহারও আচরণ বিধির লঙ্ঘন।

Comments