বাংলাদেশ

আন্তর্জাতিক কোরআন প্রতিযোগিতায় ১১১ দেশের মধ্যে ৩য় বাংলাদেশের তাকরিম

আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় আবারও দেশের নাম উজ্জ্বল করলেন কিশোর হাফেজ সালেহ আহমদ তাকরিম (১৩)।
সৌদি আরবের হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় তৃতীয় বাংলাদেশের সালেহ আহমাদ তাকরিম। ছবি: সংগৃহীত

আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় আবারও দেশের নাম উজ্জ্বল করলেন কিশোর হাফেজ সালেহ আহমদ তাকরিম (১৩)।

বুধবার রাতে মক্কার পবিত্র মসজিদুল হারামে ঘোষণা করা হয় সৌদি আরবে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের নাম। যেখানে ৫টি শাখায় ১১১টি দেশের ১৫৩ জন প্রতিযোগী অংশ নেন। প্রতিটি শাখায় ৩ জন করে মোট ১৫ জনকে পুরস্কৃত করা হয়েছে।

প্রতিযোগিতার চতুর্থ শাখায় (শুদ্ধ উচ্চারণসহ ১৫ পারা কোরআন মুখস্ত) তৃতীয় হয়েছেন বাংলাদেশের সালেহ আহমেদ তাকরিম। 

এ ছাড়া প্রতিযোগিতার অন্যান্য বিজয়ীরা হলেন, সৌদি আরব, বাহরাইন, মিশর, সুদান, কাজাখস্তান, মরক্কো, ইন্দোনেশিয়া, গ্যাম্বিয়া, লিবিয়াসহ বেশ কয়েকটি দেশের নাগরিক।

চতুর্থ শাখায় তৃতীয় অবস্থান অর্জন করায় তাকরিমের হাতে তুলে দেওয়া হয় ১ লাখ রিয়াল মূল্যমানের পুরস্কার, বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ দাঁড়ায় অন্তত সাড়ে ২৭ লাখ টাকা। এ ছাড়া তার হাতে সনদ ও সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন অতিথিরা।

সৌদির বাদশাহ আবদুল আজিজের নামে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতা মুসলিম বিশ্বের অন্যতম মর্যাদাপূর্ণ একটি প্রতিযোগিতা।

পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজের উপদেষ্টা ও মক্কা নগরীর গভর্নর খালেদ আল ফয়সাল বিন আবদুল আজিজ; সৌদি আরবের ইসলাম ও দাওয়াহবিষয়ক মন্ত্রী আবদুল লতিফ বিন আবদুল আজিজ আলে শেখসহ গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে গত মার্চে ইরান আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় সালেহ আহমাদ তাকরীম প্রথম এবং মে মাসে লিবিয়ায় অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় সপ্তম স্থান অর্জন করে।

সালেহ আহমাদের গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলের নাগরপুর থানার ভাদ্রা গ্রামে। তার বাবা হাফেজ আবদুর রহমান একটি মাদ্রাসার শিক্ষক, মা গৃহিণী।

সালেহ ঢাকার মারকাযু ফয়জিল কোরআন আল ইসলামি মাদ্রাসার শিক্ষার্থী। 

 

Comments

The Daily Star  | English

Sylhet floods worsening

The flood situation in Sylhet has been deteriorating fast with the rivers inundating vast tracts of land and upending the lives of millions.

11h ago