মৌসুমের অর্ধেক শেষ, তবু ইলিশের দেখা নেই চাঁদপুরে

অন্যান্য বছর এ সময় বাজারে প্রতিদিন এক থেকে দেড় হাজার মণ ইলিশ কেনাবেচা হতো। এখন সেখানে ১০০-১৫০ মণের বেশি ইলিশ আসছে না বলে ব্যবসায়ীরা জানান।
চাঁদপুর মাছঘাটে সরবরাহ কম থাকায় ইলিশের দাম অন্যান্য বছরের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ। ছবি: স্টার

ইলিশের মৌসুম প্রায় অর্ধেক শেষ। আর মাত্র এক থেকে দেড়মাস আছে মৌসুমের। কিন্তু চাঁদপুরে বাজারে ইলিশ নেই আগের বছরগুলোর মতো।

এ কারণে ইলিশের দামও অন্যান্য বছরের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ। এতে হতাশ চাঁদপুর মাছঘাটের ক্রেতা-বিক্রেতা সবাই।

বৃহস্পতিবার সরেজমিনে মাছঘাট বাজার ঘুরে দেখা যায়, আগের বছরগুলোর মতো ইলিশ নেই সেখানে।

ব্যবসায়ীরা জানান, জুলাই মাসে ইলিশের মৌসুম শুরু হলেও, মাছঘাটে ইলিশ মিলছে না আশানুরূপ। 

অন্যান্য বছর এ সময় বাজারে প্রতিদিন এক থেকে দেড় হাজার মণ ইলিশ কেনাবেচা হতো। এখন সেখানে প্রতিদিন ১০০-১৫০ মণের বেশি ইলিশ আসছে না। 

বিক্রেতারা জানান, এ বাজারে আগের বছরগুলোতে এ সময় দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা শতশত ক্রেতার ভিড় থাকত। ইলিশ কম থাকায় এখন মাছঘাটই ফাঁকা থাকে। 

এরপরও যারা ইলিশ কিনতে আসছেন, দাম শুনে অধিকাংশই খালি হাতে ফিরে যাচ্ছেন। 

মাছঘাটের আড়ৎদার শামিম হোসেন দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, 'ইলিশের মৌসুমে এর আগে কখনো এমন ইলিশ সংকট দেখা যায়নি। তবে গত ১ সপ্তাহ ধরে নোয়াখালীর হাতিয়া থেকে কিছু ইলিশ মাছঘাটে আসছে। এতে ইলিশের দাম কিছুটা কমেছে। 

'তবে ইলিশ মৌসুম অনুপাতে পরিমাণ স্বাভাবিক নয়, অস্বাভাবিক বলা চলে,' যোগ করেন তিনি।

তিনি জানান, মৌসুমের শুরুতে এক কেজির ইলিশ ২ হাজার ৪০০ থেকে ২ হাজার ৫০০ টাকা ছিল। সেই ইলিশ বর্তমান বাজারে ১ হাজার ৬০০ থেকে ১ হাজার ৭০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

চাঁদপুর মাছঘাটে ইলিশ কিনতে আসা হাসান আলী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক মনজুর আহমেদ ডেইলি স্টারকে বলেন, 'প্রতি বছর ইলিশের মৌসুমে ইলিশ খাওয়া হয়। কিন্তু এবার এখনো ইলিশ কিনে খেতে পারিনি। বাজারে যাই, দাম শুনে মিলাতে না পেরে অন্য মাছ বা মুরগি নিয়ে চলে আসি।'

যোগাযোগ করা হলে চাঁদপুর মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. আমিরুল ইসলাম ডেইলি স্টারকে বলেন, 'বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় ইলিশ সাগর থেকে এতদিন নদীতে আসতে পারেনি। তবে এখন বৃষ্টির সঙ্গে নদীতে পানি বাড়ায় ইলিশ আসতে শুরু করেছে।'

Comments