বাইডেনের উপদেষ্টা দাবি করা মিয়া আরেফিকে গ্রামের মানুষ চেনেন বেলাল নামে

গ্রামের মানুষ জানেন, তিনি আমেরিকায় ডেমোক্রেটিক পার্টির নেতা।
মার্কিন প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা দাবি করা মিয়া আরেফি আটক
মিয়া আরেফিকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে আটক করা হয়। ছবি: সংগৃহীত

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের উপদেষ্টা দাবি করা মিয়া আরেফির বাড়ি সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার সলঙ্গা থানার মানিকদিয়ার গ্রামে।

৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে তিনি সপরিবারে যুক্তরাষ্ট্রে থাকেন। তবে, গ্রামের মানুষ তাকে বেলাল নামেই চেনেন।

গতকাল শনিবার নিজেকে জো বাইডেনের উপদেষ্টা পরিচয় দেওয়ার পর আলোচনায় আসেন তিনি। আজ সন্ধ্যায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ইমিগ্রেশন পুলিশ তাকে আটক করে ডিবি কর্মকর্তাদের কাছে হস্তান্তর করেছে।

গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা হওয়ায় তার সম্পর্কে খোঁজ নিতে মানিকদিয়ার গ্রামে যায় সলঙ্গা থানা পুলিশ।

সলঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. এনামুল হক দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, 'আমরা তার গ্রামে খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি, স্থানীয়রা তাকে বেলাল নামেই চেনেন। তার বাবা মৃত রওশন আলী আশির দশকে পাবনায় শিক্ষা অফিসে চাকরি করতেন। প্রায় ৩৫-৩৬ বছর আগে সপরিবারে আমেরিকায় বসবাস শুরু করেন মিয়া আরেফি ওরফে বেলাল।'

মিয়া আরেফির পরিবারের সবাই আমেরিকায় থাকলেও গ্রামে তার অনেক আত্মীয় রয়েছেন। নিজ গ্রামে খুব একটা আসতেন না তিনি। গ্রামের মানুষ জানেন, তিনি আমেরিকায় ডেমোক্রেটিক পার্টির নেতা।

গ্রামবাসী পুলিশকে জানায়, এলাকার মানুষের সঙ্গে তার কোনো যোগাযোগ নেই। অনেক বছর পর এ বছর কুরবানির ঈদের পর তিনি এলাকায় এসেছিলেন।

গ্রামবাসীর বরাত দিয়ে ওসি বলেন, 'মিয়া আরেফির পরিবার বিএনপিপন্থি হিসেবে পরিচিত। তার বাবা জীবিত থাকাকালে তাদের আমেরিকার বাড়িতে তৎকালীন বিএনপির সংসদ সদস্য আকবর আলি খানের যাতায়াত ছিল।'

মানিকদিয়ার গ্রামে মিয়া আরেফির জন্ম ও শৈশব কাটলেও পাবনায় তাদের বাড়ি রয়েছে বলে জানান ওসি।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মাসুদ আলম দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, 'ইতোমধ্যে মিয়া আরেফির ব্যাপারে খোঁজ নেওয়া হচ্ছে।'

Comments