চাঁদপুরের পুরানবাজারে দুই পক্ষের দফায় দফায় সংঘর্ষ, গুলিতে নিহত ১

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে এ সংঘর্ষ শুরু হয়ে রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত চলে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে শর্টগানের গুলি ও টিয়ারশেল ছুঁড়েছে পুলিশ।
ছবি: সংগৃহীত

চাঁদপুর শহরের পুরানবাজারে স্থানীয় দুই গ্রুপের দফায় দফায় হামলা, সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। গুলিতে একজন নিহত ও ২০ জন আহত হয়েছেন। 

নিহতের নাম আল আমিন। তিনি পুরানবাজার ১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল মজিদ খানের বড় ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে এ সংঘর্ষ শুরু হয়ে রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত চলে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে শর্টগানের গুলি ও টিয়ারশেল ছুঁড়েছে পুলিশ।

প্রত্যক্ষদর্শী আব্দুর রহিম ও মিজানুর রহমান দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, রাত সাড়ে ৯টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত পুরানবাজার পলাশের মোড় ও নিতাইগঞ্জ সড়কে দফায় দফায় দুই দল যুবকের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের সময় বৃষ্টির মতো ইট-পাটকেল ও কাঁচের বোতল নিক্ষেপ করা হয়। এসময় উভয় পক্ষের মধ্যে গোলাগুলি ও বোমাবাজির ঘটনাও ঘটেছে। 

আহতদের মধ্যে তিনজনকে রক্তাক্ত অবস্থায় চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে বলে স্থানীয়রা জানায়।

একাধিক সূত্রে জানা গেছে, পুরানবাজার মধুসূদন হাইস্কুল মাঠে আড্ডা দেওয়াকে কেন্দ্র করে নিতাইগঞ্জ ও ম্যারকাটিজ রোডের দুই গ্রুপ কিশোর ও তরুণের মধ্যে এই সংর্ঘষের সূত্রপাত। 

পরে খবর পেয়ে চাঁদপুর সদর মডেল থানা ও পুরানবাজার ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়।

জানতে চাইলে চাঁদপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মহসিন আলম গুলিতে একজনের মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেন। 

তিনি বলেন, 'আমরা এই ঘটনার কারণ এখনো জানতে পারিনি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে চার-পাঁচজন পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছে। তবে পরিস্থিতি এখন স্বাভাবিক আছে।'

এ ঘটনায় এখনো কোনো মামলা বা কাউকে আটক করা হয়নি। এ ব্যাপারে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

 

Comments