টাঙ্গাইলে আ. লীগের ২ পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১০

টাঙ্গাইলের গোপালপুরে আওয়ামী লীগের ২ পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে সাংবাদিকসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।
আওয়ামী লীগের ২ পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। ছবি: সংগৃহীত

টাঙ্গাইলের গোপালপুরে আওয়ামী লীগের ২ পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে সাংবাদিকসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

আজ সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ভূঞাপুর পৌরসভার মেয়র মাসুদুল হক মাসুদ তার সমর্থকদের নিয়ে গাড়ি বহরসহ গোপালপুরের বিভিন্ন জায়গায় কম্বল বিতরণ করতে যান। গাড়ি বহরটি দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার আলমনগর বোর্ড বাজার এলাকায় পৌঁছালে গাড়ি বহরের ওপর অতর্কিত হামলা চালানো হয়। সেসময় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ককটেল বিস্ফোরণ ও গাড়ি ভাঙচুর করা হয়। এতে সাংবাদিকসহ ১০ জন আহত হন। আহতরা গোপালপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন প্রাইভেট ক্লিনিকে চিকিৎসা নিয়েছেন।

গোপালপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোশারফ হোসেন দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, 'খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এই ঘটনায় তাৎক্ষণিকভাবে কোনো পক্ষ থানায় অভিযোগ করেনি।'

মেয়র মাসুদ ডেইলি স্টারকে বলেন, 'এর পেছনে টাঙ্গাইল-২ (ভূঞাপুর-গোপালপুর) আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য তানভীর হাসানের সমর্থকরা দায়ী।'

এমপি তানভীর হাসান ডেইলি স্টারকে বলেন, 'বিগত ইউপি নির্বাচনে মেয়র মাসুদ ভূঞাপুরের ৬টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বিদ্রোহী প্রার্থীদের মদদ দেন। শুনেছি কম্বল বিতরণের নামে মেয়র মাসুদ এসব বিদ্রোহীদের সঙ্গে নিয়ে দলের স্থানীয় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে উসকানিমূলক কথাবার্তা বলায় তারা এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছে।'

এ বিষয়ে জানতে চাইলে গোপালপুর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও আলমনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মোমেন ডেইলি স্টারকে জানান, থানা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগকে না জানিয়ে কম্বল বিতরণের কর্মসূচি নেওয়ার বিষয়ে গতকাল মেয়রের সমর্থক স্থানীয় ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের এক বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের সঙ্গে স্থানীয় নেতাকর্মীদের বচসা হয়। আজ তারা কম্বল বিতরণ করতে এসে উসকানিমূলক কথাবার্তা বললে ২ পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয় এবং পরে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

Comments