শেষ বিকেলে জমা হলো শঙ্কার মেঘ

মশলাধার উইকেট, লাটিমের মতো ঘুরছে বল, স্পিনারদের লোভ বাড়িয়ে উড়ছে ধুলো। ঠেকাতে গেলে বল চুমু খায় গ্লাভসে বা আলত স্পর্শ নেয় ব্যাটের কানায় নয়তো ফাঁকি দিয়ে যায় সব। আর মারতে গেলে তো ঝুঁকি থাকেই। এসব কিছু বুঝে খেলতে পারলে রানও মিলবে। অর্থাৎ সারাক্ষণই কিছু না কিছু ঘটছে। এমন উইকেটে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে সারাদিন টিকে থাকা মুশকিল ছিল। তারা পারেওনি। সমস্যা হলো যাদের জন্য টিকে থাকা সহজ ছিল, অবস্থা ছিল সুবিধাজনক সেই বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানরাও পারছেন না টিকতে।
মুশি-মিরাজ
শঙ্কা নিয়ে দিন শেষে ফিরছেন মুশফিক ও মিরাজ। ছবি: ফিরোজ আহমেদ

মশলাধার উইকেট, লাটিমের মতো ঘুরছে বল, স্পিনারদের লোভ বাড়িয়ে উড়ছে ধুলো। ঠেকাতে গেলে বল চুমু খায় গ্লাভসে বা আলত স্পর্শ নেয় ব্যাটের কানায় নয়তো ফাঁকি দিয়ে যায় সব। আর মারতে গেলে তো ঝুঁকি থাকেই। এসব কিছু বুঝে খেলতে পারলে রানও মিলবে। অর্থাৎ সারাক্ষণই কিছু না কিছু ঘটছে। এমন উইকেটে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে সারাদিন টিকে থাকা মুশকিল ছিল। তারা পারেওনি। সমস্যা হলো যাদের জন্য টিকে থাকা সহজ ছিল, অবস্থা ছিল সুবিধাজনক সেই বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানরাও পারছেন না টিকতে।

উইকেট পতনের মিছিল চলতে থাকা শেষ সেশন সব হিসেব নিকেশ জট পাকিয়ে দিয়েছে। শুক্রবার চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে আগের দিনই মতই বারবার রঙ বদলেছে ম্যাচের চেহারা। দ্বিতীয় দিনেই ম্যাচে প্রাধান্য নেওয়ার বদলে বাংলাদেশকে তাড়া করছে হারের শঙ্কাও।

উইকেট স্পিনারদের জন্য এতই আগল খোলে রেখেছিল যে সারাদিনে দুদলের পেসাররা বল করেছেন মাত্র তিন ওভার। বাকি প্রায় ৮৬ ওভারই চলেছে ঘূর্ণি বল। দুদলের তিন ইনিংসের উইকেট পড়েছে ১৭টি। রান হয়েছে ৩১০।

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ২৪৬ রানে গুটিয়ে দিয়ে ৭৮ রানের লিড পেয়েছিল বাংলাদেশ। ৬১ রানে ৫ উইকেট নিয়ে সবচেয়ে কম বয়েসী হিসেবে পাঁচ উইকেট নেওয়ার বিশ্বরেকর্ড গড়েছিলেন নাঈম হাসান। তাকে নিয়েই উৎসব হতে পারত। কিন্তু ব্যাট করতে গিয়েই সেই উৎসবের রেশ আর  থাকেনি। দিনশেষে  ৫৫ রান তুলতেই যে ৫ উইকেট খুইয়ে বসেছে বাংলাদেশ  । 

শেষ ঘণ্টায় আবার ব্যাট করতে নামাই যেন কাল হয়েছে বাংলাদেশের। তালগোল পাকিয়ে হুড়মুড়িয়ে ভেঙ্গে পড়ে টপ অর্ডার। প্রথম ইনিংসে ধুঁকতে ধুঁকতে রান পাওয়া ইমরুল কায়েস এবার জোমেল ওয়ারিক্যানের বলে থতমত খেয়ে হয়েছেন বোল্ড। কেমার রোচকে মেরে শুরু করা সৌম্য সরকার রোস্টন চেজকে ক্যাচ দেন স্লিপে। খানিকপর মুমিনুল হককেও খেয়েছেন চেজ।

অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ফিরেছেন দিনের সবচেয়ে বাজে শটে। ডিপ স্কয়ার লেগে ফিল্ডার দেখেও স্লগ করে ওখানেই দিয়েছেন ক্যাচ। দেবেন্দ্র বিশুর সোজা বলে স্টাম্প খুইয়েছেন মোহাম্মদ মিঠুন।

দিনশেষে সব আলো থাকার কথা নাঈমের দিকে। কিন্তু বেচারা নাঈম, তাকে ছাপিয়ে গেছে ম্যাচের পরিস্থিতি। ওই পরিস্থিতির জন্য দায়ি বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরাই। উইকেটে মাইনফিল্ড পোঁতা তা প্রমাণেই ব্যস্ত হয়ে যান তারা। মারবেন কি ধরবেন, এগিয়ে ডিফেন্স করবেন নাকি পেছনে গিয়ে খেলবেন কোন কিছুরই একাগ্র মতি ছিলো না কারো। দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশের ব্যাটিং ধসে এই ম্যাচ এখন চতুর্থ দিনেই যাওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণ। 

এখনো হাতে শেষ ৫ উইকেট নিয়ে ১৩৩ রানের লিড সাকিব আল হাসানের দলের। চতুর্থ ইনিংসে এই উইকেটে দুশো রান তাড়াও ভীষণ কঠিন হবে। সেদিক থেকে আপাতত কাউকেই এগিয়ে রাখার উপায় নেই। কিন্তু বাংলাদেশকে তো আগে লিডটা দু’শো পার করতে হবে। সে ভার এখন পুরোটাই ক্রিজে থাকা মুশফিকুর রহিম, মেহেদী হাসান মিরাজ আর ব্যাট করতে বাকি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের উপর।

আগের দিনে ৮ উইকেটে ৩১৫ রান নিয়ে নেমে আর ৯ রান যোগ করেই থেমে যায় বাংলাদেশ। জবাবে নেমে প্রথম ঘন্টাখানেক নিবেদন দেখিয়েছিলেন ক্যারিবিয়ান দুই ওপেনার। এরপর খানিকের মধ্যে তাসের ঘর তাদের ইনিংস। তাইজুল ইসলাম কিরন পাওয়েলকে এলবডব্লিও করে আনেন প্রথম উইকেট। খানিক পরেই চোট কাটিয়ে ফেরা সাকিব আল হাসান নিজের প্রথম বলেই আউট করেন শাই হোপকে। ওই ওভারের শেষ বলে তুলে নেন ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েটকেও। মুশফিকুর রহিম ক্যাচ না ছাড়লে তিনি উইকেট নিতে পারতেন আরেকটি। তার বলে ক্যাচ ফেলেছেন মোস্তাফিজুর রহমান।

তখন ঘূর্ণি বলে জবাবহীন ওয়েস্ট ইন্ডিজ মনে হচ্ছিল অল্প রানেই গুটিয়ে যেতে যাচ্ছে। সে ভাবনায় বাধ সেধে ষষ্ঠ উইকেটে গিয়ে প্রতিরোধ গড়েন শেমরন হেটমায়ার ও শন ডাওরিচ। খেলার তাল মুহূর্তেই ঘুরিয়ে দেন হেটমায়ারই। আক্রমণকেই প্রতিরক্ষার মূল অস্ত্র বানিয়ে চালান আগ্রাসী ব্যাটিং। তরতরিয়ে বাড়তে থাকে রান। ৯২ রানের জুটি ভাঙেন মেহেদী হাসান মিরাজ। সারাদিন গড়পড়তা বল করা মিরাজ সম্ভবত দিনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উইকেটই নিয়েছেন। ৪৭ বলে ৬৩ রান করে মিরাজের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দেন হেটমায়ার। ৫ চার আর ৪টি ছক্কা মেরেছেন। যেভাবে রান বাড়াচ্ছিলেন আরও কয়েকওভার থাকলে ব্যবধান কমিয়ে ফেলতেন দ্রুত।

তাকে ফেরানো গেলেও তার সঙ্গী ডওরিচ টিকে যান শেষ পর্যন্ত। তিনিও ৬৩ রান করেছেন, কিন্তু খেলেছেন ১০১ বল। হেটমায়ারের সঙ্গে তার ব্যাটিং আসলে ম্যাচে টিকিয়ে রেখেছে ক্যারিবিয়ানদের আশা। না হলে প্রথম ইনিংসে দু’শো রান পেরুনো সম্ভব হতো না সফরকারীদের।

 

সংক্ষিপ্ত স্কোর: (দ্বিতীয় দিন শেষে)

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস: ৩২৪ 

উইন্ডিজ প্রথম ইনিংস: ২৪৬/১০ (৬৪ ওভার) (ব্র্যাথওয়েট ১৩, পাওয়েল ১৪, হোপ ১, আমব্রিস ১৯, চেজ ৩১, হেটমায়ার ৬৩, ডওরিচ ৬৩*, বিশু ৭, রোচ ২, ওয়ারিক্যান ১২, গ্যাব্রিয়েল ৬; মোস্তাফিজ ০/৪, মিরাজ ১/৬৭, তাইজুল ১/৫১, সাকিব ৩/৪৩, নাঈম ৫/৬১, মাহমুদউল্লাহ ০/৭)।

বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংস:  ৫৫/৫ (১৭ ওভার) ( ইমরুল ২, সৌম্য ১১, মুমিনুল ১২, মিঠুন ১৭, সাকিব ১, মুশফিক  ব্যাটিং ১১,  মিরাজ ব্যাটিং ০; রোচ ০/১১, ওয়ারিক্যান ২/২২, চেজ ২/১৬, বিশু ১/৫)।

Comments

The Daily Star  | English

288 Myanmar security personnel sent back from Bangladesh

Bangladesh this morning repatriated 288 members of Myanmar's security forces, who had crossed the border to flee the conflict between Myanmar's military junta and the Arakan Army

12m ago