‘৩০ বছরের আক্ষেপ মুছে গেলো এক নিমিষেই’

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন মিয়াভাই-খ্যাত চিত্রনায়ক আকবর হোসেন পাঠান (ফারুক)। ঢাকা-১৭ (গুলশান-বনানী ও ক্যান্টনমেন্ট) আসন থেকে তাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।
Faruk
নায়ক ফারুক। ছবি: শেখ মেহেদী মোর্শেদ/ স্টার ফাইল ফটো

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন ‘মিয়াভাই’-খ্যাত চিত্রনায়ক আকবর হোসেন পাঠান (ফারুক)। ঢাকা-১৭ (গুলশান-বনানী-ক্যান্টনমেন্ট) আসন থেকে তাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।

নায়ক ফারুক স্কুলজীবন থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত। ১৯৬৬ সালে ছয়দফা আন্দোলনে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত এই অভিনেতা।

মনোনয়ন পাওয়ার পর দ্য ডেইলি স্টার অনলাইনকে ফারুক বলেন, “ত্রিশ বছর ধরেই স্বপ্ন দেখেছি আওয়ামী লীগের হয়ে নির্বাচন করব। কিন্তু, নানা কারণে তা হয়ে উঠেনি। এবার মনোনয়ন পেয়েছি। বঙ্গবন্ধুকন্যা নেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে মনোনয়ন দিয়েছেন। এর ফলে আমার ত্রিশ বছরের আক্ষেপ মুছে গেলো এক নিমিষেই।”

তিনি আরও বলেন, “ঢাকা-১৭ আমার জন্য স্বপ্নের আসন। আমি একজন আবেগী মানুষ। নেত্রীর এই অসামান্য উপহারে কৃতজ্ঞতায় আমার চোখে বারবার পানি এসেছে। তিনি আমাকে দেশের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি আসনে প্রার্থী করেছেন। ভোটে নির্বাচিত হয়ে আমি এই উপহার ও বিশেষ আস্থার প্রতিদান দিতে চাই।”

“আর এই চলচ্চিত্রই আমাকে ফারুক বানিয়েছে। যেখানেই যাই চলচ্চিত্রের সঙ্গে বিচ্ছেদ হবে না কোনোদিন। সুযোগ পেলে অনেক কিছু করতে চাই এই শিল্পটির জন্য,” যোগ করেন ‘আলোর মিছিল’-অভিনেতা।

ফারুক একজন অভিনেতা ছাড়া চিত্রপরিচালক এবং প্রযোজক হিসেবেও পরিচিত।

তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য সিনেমার মধ্যে রয়েছে -‘সুজন সখী’, ‘নয়নমনি’, ‘সারেং বৌ’, ‘গোলাপী এখন ট্রেনে’, ‘সাহেব’, ‘লাঠিয়াল’, ‘দিন যায় কথা থাকে’ ইত্যাদি।

Comments

The Daily Star  | English

The bond behind the fried chicken stall in front of Charukala

For close to a quarter-century, a business built on mutual trust and respect between two people from different faiths has thrived in front of Dhaka University's Faculty of Fine Arts

20m ago