সিইসি একজন নির্বাচন কমিশনারের অস্তিত্বে আঘাত করেছেন: মাহবুব তালুকদার

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা ‘একজন নির্বাচন কমিশনারের অস্তিত্বে আঘাত করেছেন’ বলে অভিযোগ করেছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার।
mahbub talukder
নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার। ফাইল ছবি

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা ‘একজন নির্বাচন কমিশনারের অস্তিত্বে আঘাত করেছেন’ বলে অভিযোগ করেছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার।

আজ (১৯ ডিসেম্বর) আগারগাঁওয়ের নির্বাচন কমিশন ভবনে নিজ কক্ষে সাংবাদিকদের ডেকে দেওয়া এক লিখিত প্রতিবাদলিপিতে তিনি এ কথা বলেন।

মাহবুব তালুকদার তার বিবৃতিতে বলেন, “মাননীয় প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা গত ১৮ ডিসেম্বর রাঙামাটিতে বলেছেন, ‘নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নেই’ বলে আমি মিথ্যা কথা বলেছি। আমি তার এই বক্তব্যের কঠোর প্রতিবাদ জানাচ্ছি। কারণ, এ কথা বলে তিনি একজন নির্বাচন কমিশনারের অস্তিত্বে আঘাত করেছেন। একটা কথা মনে রাখতে হবে যে, সিইসিসহ সকল নির্বাচন কমিশনার সমান।”

এই নির্বাচন কমিশনার বলেন, “ইতিপূর্বে সিইসি মহোদয় আমার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে নানা রূপ বিরূপ উক্তি করেছেন। আমি কখনো তার কথার প্রতিবাদ করিনি। কিন্তু ‘নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নেই’ বলে আমি মিথ্যা বলেছি, এ কথার প্রতিবাদ না করে পারলাম না।”

“সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আমি গত ১৭ ডিসেম্বর বলেছিলাম, নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড আছে কী নেই তা সাংবাদিকেরা নিজেদের বিবেককে জিজ্ঞাসা করলেই উত্তর পেয়ে যাবেন। এখনও সংশ্লিষ্ট সবাইকে বলছি, আপনারা নিজেরা বিচার-বিবেচনা করে দেখুন, নিজেদের বিবেককে জিজ্ঞাসা করুন, নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড আছে, কী নেই?”

উল্লেখ্য, গতকাল (১৮ ডিসেম্বর) রাঙামাটিতে একাদশ সংসদ নির্বাচনে তিন পার্বত্য জেলার আইনশৃঙ্খলা-বিষয়ক মতবিনিময় সভা শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, “মাহবুব তালুকদার সত্য বলেননি। নির্বাচনের সামগ্রিক পরিস্থিতি ভালো রয়েছে।”

এর আগে, গত ১৭ ডিসেম্বর নির্বাচন কমিশনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে মাহবুব তালুকদার বলেন, “আমি মনে করি না নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড বলে কিছু আছে। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড কথাটা এখন অর্থহীন কথায় পর্যবসিত হয়েছে।”

আরও পড়ুন:

মাহবুব তালুকদার সত্য বলেননি: সিইসি

Comments

The Daily Star  | English

Foreign airlines’ $323m stuck in Bangladesh

The amount of foreign airlines’ money stuck in Bangladesh has increased to $323 million from $214 million in less than a year, according to the International Air Transport Association (IATA).

12h ago