তৃতীয় পর্যায়ে ১১৭ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে

তৃতীয় পর্যায়ে দেশের ১১৭ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে। সাত বিভাগের ২৫ জেলায় আজ (২৪ মার্চ) এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
Upazila Polls Jenaidah
২৪ মার্চ ২০১৯, ঝিনাইদহ জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার আলাইপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র। সকাল ৮টায় শুরু হওয়া ভোটগ্রহণের দেড় ঘণ্টা অতিবাহিত হলেও কোনো ভোটার উপস্থিতি ছিলো না। ছবি: আজিবর রহমান

তৃতীয় পর্যায়ে দেশের ১১৭ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে। সাত বিভাগের ২৫ জেলায় আজ (২৪ মার্চ) এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

নির্বাচনে উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান এই তিনটি পদে দলীয় প্রতীকে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও আওয়ামী লীগ ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদ দুটিতে দলীয় মনোনয়ন না দিয়ে উন্মুক্ত রেখেছে।

এদিকে, নির্বাচন উপলক্ষে সংশ্লিষ্ট এলাকায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, তৃতীয় পর্যায়ে সাত বিভাগের ২৫ জেলার ১১৭টি উপজেলায় ১ হাজার ৩৭৬ জন প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৩৫৮ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬০৪ জন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪১৪ জন।

অন্যদিকে, এসব উপজেলায় মোট ভোটার ২ কোটি ৪৭ লাখ ৫৩ হাজার ১৪৮ জন। কেন্দ্র সংখ্যা ১০ হাজার ১৮টি। তৃতীয় পর্যায়ের নির্বাচনে কয়েকটি উপজেলায় ইভিএম ব্যবহার করবে নির্বাচন কমিশন।

উপজেলা নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে করতে নির্বাচনের আগের দুইদিন, নির্বাচনের দিন এবং নির্বাচনের পরের দুইদিনসহ মোট পাঁচদিন নির্বাচনী এলাকায় অতিরিক্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন থাকছে। নির্বাচনের দিন প্রতিটি সাধারণ কেন্দ্রে ১৪ জন এবং ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে ১৬ জন করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন থাকবে।

ইসির সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, তৃতীয় ধাপে ১২৭টি উপজেলার তফসিল ঘোষণা করা হলে এর মধ্যে ছয়টি উপজেলার সব পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ায় সেখানে ভোট হবে না। এছাড়াও, এই পর্যায় থেকে কক্সবাজার সদর ও নরসিংদী সদরের ভোট চতুর্থ পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে এবং উচ্চ আদালতের নির্দেশনায় কক্সবাজারের কুতুবদিয়া ও চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার ভোট স্থগিত রয়েছে।

Comments

The Daily Star  | English

Old, unfit vehicles running amok

The bus involved in yesterday’s accident that left 14 dead in Faridpur would not have been on the road had the government not caved in to transport associations’ demand for allowing over 20 years old buses on roads.

9h ago