বিশ্বকাপে বাংলাদেশ চমকে দিতে পারে: গ্রিনিজ

ইংল্যান্ডে ১৯৯৯ সালে তার কোচিংয়েই প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ খেলেছিল বাংলাদেশ। চমকেও দিয়েছিল সবাইকে। এবার ইংল্যান্ডেই আরেকটি বিশ্বকাপের আগে ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তি ক্রিকেটার গর্ডন গ্রিনিজ বাংলাদেশকে নিয়ে শুনিয়েছেন আশার কথা। তার মতে তুমুল প্রতিদ্বন্দিতাপূর্ণ এবারের বিশ্বকাপে চমকে দিতে পারে বাংলাদেশ।
gordon greenidge
গর্ডন গ্রিনিজ, ফাইল ছবি: এএফপি

ইংল্যান্ডে ১৯৯৯ সালে তার কোচিংয়েই প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ খেলেছিল বাংলাদেশ। চমকেও দিয়েছিল সবাইকে। এবার ইংল্যান্ডেই আরেকটি বিশ্বকাপের আগে ক্যারিবিয়ান কিংবদন্তি ক্রিকেটার গর্ডন গ্রিনিজ বাংলাদেশকে নিয়ে শুনিয়েছেন আশার কথা। তার মতে তুমুল প্রতিদ্বন্দিতাপূর্ণ এবারের বিশ্বকাপে চমকে দিতে পারে বাংলাদেশ।

গত বছরের মে মাসে বিসিবির আমন্ত্রণে একবার বাংলাদেশে এসেছিলেন গ্রিনিজ। আজ (বৃহস্পতিবার) এলেন আবার। তবে এবার ক্রিকেট নয়, গ্রিনিজ এসেছেন গলফ টুর্নামেন্টে। কুর্মিটোলা গলফ ক্লাব বঙ্গবন্ধু ওপেন টুর্নামেন্টের প্রোমোট করতে এসে অবশ্য অনুমিতভাবে গ্রিনিজকে কথা বলতে হয়েছে ক্রিকেট নিয়েই।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সময় অনেক বদলে গেছে। এক সময়ের পুচকে বাংলাদেশ এখন ওয়ানডে ক্রিকেটের পরাশক্তিদের একটি। ক্রিকেটের সঙ্গে অনেকদিন যুক্ত না থাকা গ্রিনিজ তার খবর টুকটাক রাখেন। সেই অল্পবিস্তর ধারণা থেকে আসছে বিশ্বকাপ নিয়ে তার ভাবনার কথা জানিয়েছেন,  ‘আশা করি বাংলাদেশ ভালো করবে। তবে ইংল্যান্ড সম্ভবত এগিয়ে থাকবে। টুর্নামেন্ট যেহেতু ইংল্যান্ডে হচ্ছে। তবে এই মুহূর্তে কোনো দল নেই যারা একাই ছড়ি ঘোরাচ্ছে। আমি তাই বলতে পারব না এরাই (ইংল্যান্ড) সবচেয়ে ফেভারিট। আপনি আশা করতে পারেন প্রতিদ্বন্দ্বিতার দিক দিয়ে সফল টুর্নামেন্টই হতে যাচ্ছে।’

১৯৯৯ সালের বিশ্বকাপে বাংলাদেশের পাকিস্তানকে হারিয়ে দেওয়া ছিল বড় অঘটন। তবে বদলে যাওয়া প্রেক্ষাপটে এখন বাংলাদেশ পাকিস্তানের মতো দলকে প্রায়ই হারায়। যেকারো বিপক্ষে বাংলাদেশের জেতাটাও এখন ধরা হয় না অঘটন হিসেবে। তবু গ্রিনিজ ধারাবাহিকতার অভাবের কারণে বাংলাদেশকে রাখছেন ছোটদের কাতারেই, ‘বাংলাদেশ যদি ভালো খেলে তারা অনেক বড় দলগুলোর বিপক্ষে অঘটন ঘটাতে পারে। আশা করি এই টুর্নামেন্টে তারা ধারাবাহিকভাবে ভালো খেলবে।’

তবে বর্তমান বাংলাদেশ দল সম্পর্কে অবশ্য তার ধারণা না থাকার কথাও জানিয়েছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটের বাঁক-বদলের অন্যতম এই কারিগর, ‘১৯৯৯ বিশ্বকাপে অনেক পরিশ্রম করেছিলাম আমরা। এখনকার দল সম্পর্কে পুরোপুরি ধারণা নেই। আমার কাছে অনেকে নতুন, যাদের ঠিক চিনি না। আশা করি বাংলাদেশ ভালো করবে। ভালো করতে ও টুর্নামেন্টে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে খেলোয়াড়েরা সবাই প্যাশোনেট। তাদের জন্য শুভকামনা থাকবে।’

 

Comments

The Daily Star  | English

Death came draped in smoke

Around 11:30, there were murmurs of one death. By then, the fire, which had begun at 9:50, had been burning for over an hour.

5h ago