মাশরাফিদের দেখে অনুপ্রেরণা পান মৌসুমিরা

ফুটবলে হয়তো বিশ্বকাপের বাছাই পর্বটা খেলতেও আগে প্রাক বাছাই পর্ব খেলতে হয়। তবে ক্রিকেটে বাংলাদেশ বিশ্বকাপে প্রতিনিধিত্ব করছে সেই ১৯৯৯ সাল থেকেই। এইতো আগের দিনই আয়ারল্যান্ড সিরিজ ও বিশ্বকাপের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। এর মধ্যেই মৌসুমিরা খুঁজে নেন অনুপ্রেরণা। বড় ভাইদের মতো বিশ্বকাপে খেলতে চান তারাও।
ছবি: ফিরোজ আহমেদ

ফুটবলে হয়তো বিশ্বকাপের বাছাই পর্বটা খেলতেও আগে প্রাক বাছাই পর্ব খেলতে হয়। তবে ক্রিকেটে বাংলাদেশ বিশ্বকাপে প্রতিনিধিত্ব করছে সেই ১৯৯৯ সাল থেকেই। এইতো আগের দিনই আয়ারল্যান্ড সিরিজ ও বিশ্বকাপের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। এর মধ্যেই মৌসুমিরা খুঁজে নেন অনুপ্রেরণা। বড় ভাইদের মতো বিশ্বকাপে খেলতে চান তারাও।

আগামীকাল বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ আন্তর্জাতিক গোল্ডকাপের ফাইনালে লাওসের বিপক্ষে খেলবে বাংলাদেশ। প্রথমবারের মতো ঘরের মাঠে কোন আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টের শিরোপা জিততে চায় মেয়েরা। আবার এ দেশটির সঙ্গে ছেলেরা খেলবে বিশ্বকাপের প্রাক বাছাই পর্ব। লাওসের মেয়েদের হারিয়ে ছেলেদের সাহস যোগাতে চান বাংলাদেশের মেয়েরা।

'যখন ক্রিকেট দল বিশ্বকাপ খেলে। সেটা আমাদের জন্য অনুপ্রেরণা। যে আমাদের দেশের ভাইয়েরাই তো বিশ্বকাপ খেলছে। তো একদিন তাদের দেখাদেখি আমরাও বিশ্বকাপ খেলব। ঠিক তেমনই আমরা যদি লাওসকে হারিয়ে দিতে পারি তাহলে অবশ্যই ফুটবলের ভাইয়ারাও অনুপ্রাণিত হবে এবং লাওসকে হারাতে পারবেন।' -সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফিদের উদাহরণ টেনে এমনটাই বললেন অধিনায়ক মিসরাত জাহান মৌসুমী।

এখন পর্যন্ত দুর্দান্ত ফুটবল খেলে এসেছে লাওস। তিন ম্যাচে ১৮টি গোল। যে কিরগিজস্তানকে ২-১ গোলের ব্যবধানে হারাতে ঘাম ছুটে গিয়েছিল বাংলাদেশের, সে দলকে গোলবন্যায় ভাসিয়েছে লাওস। তবে নিজেদের নিয়ে আশাবাদী মৌসুমি। ফিনিশিং সমস্যাটা কাটিয়ে উঠতে পারলে জয় পাওয়া কঠিন কিছু হবে বলেই জানালেন অধিনায়ক, 'তিনটি ম্যাচেই সমান সুযোগ আমরা তৈরি করেছিলাম। হয়তো ফিনিশিং ঠিকঠাক হয়নি। তবে আমি মনে করি তৃতীয় ম্যাচে ভাল ফিনিশিং হয়েছে। আমি মনে করি ফরোয়ার্ডরা যদি ফিনিশিংটা ভাল করে, তবে আমরা জিততে পারবো।'

Comments

The Daily Star  | English
Dhaka Airport Third Terminal: 3rd terminal to open partially in October

HSIA’s terminal-3 to open in Oct

The much anticipated third terminal of the Dhaka airport is likely to be fully ready for use in October, enhancing the passenger and cargo handling capacity.

4h ago