অস্ট্রেলিয়া বিশ্বচ্যাম্পিয়ন, শ্রীলঙ্কা ধুঁকছে: আফগান অধিনায়ক

১৯৯৬ সালের বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন তারা। এরপর আরও দুইবার বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলেছে দলটি। যদিও সাম্প্রতিক সময়টা খুব একটা ভালো যাচ্ছে শ্রীলঙ্কার। কিন্তু ঐতিহ্য বলেও একটা কথা থাকে ক্রিকেটে। কিন্তু এসব পাত্তাই দিচ্ছেন না আফগানিস্তান অধিনায়ক গুলবাদিন নাইব। শ্রীলঙ্কার গত দুই বছরের পারফরম্যান্স মনে করেই দিলেন তিনি। পুরো ৫০ ওভার খেলতে পারলে তার দলই জিতবে বলে আত্মবিশ্বাসী আফগান অধিনায়ক।
ছবি: রয়টার্স

১৯৯৬ সালের বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন তারা। এরপর আরও দুইবার বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলেছে দলটি। যদিও সাম্প্রতিক সময়টা খুব একটা ভালো যাচ্ছে শ্রীলঙ্কার। কিন্তু ঐতিহ্য বলেও একটা কথা থাকে ক্রিকেটে। কিন্তু এসব পাত্তাই দিচ্ছেন না আফগানিস্তান অধিনায়ক গুলবাদিন নাইব। শ্রীলঙ্কার গত দুই বছরের পারফরম্যান্স মনে করেই দিলেন তিনি। পুরো ৫০ ওভার খেলতে পারলে তার দলই জিতবে বলে আত্মবিশ্বাসী আফগান অধিনায়ক।

কার্ডিফে মঙ্গলবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মাঠে নামবে আফগানিস্তান। এ ম্যাচে মাঠে নামার আগে দারুণ আত্মবিশ্বাসী গুলবাদিন। এমন অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হারেও আত্মবিশ্বাসে সামান্য চির ধরেনি তাদের। উল্টো দুই দলের বর্তমান চিত্র তুলে ধরলেন আফগান অধিনায়ক, 'অস্ট্রেলিয়া এবারের সেরা দল, তারা বর্তমান বিশ্বচ্যাম্পিয়ন। তারাও আমাদের সঙ্গে কষ্ট করেই জিতেছে। তাই এখান থেকে ইতিবাচক দিক গুলো নেওয়া উচিৎ। আপনি যদি শ্রীলঙ্কার দিকে তাকান তাহলে দেখবেন গত দুই বছর ধরে তারা ওয়ানডে ক্রিকেটে ধুঁকছে। তাই তাদের বিপক্ষে আমাদের ভালো করার সুযোগ রয়েছে।'

বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত একটি করে ম্যাচ খেলেছে দুই দলই। দুই দলই হেরেছে। তারপরও এসব নিয়ে ভাবছেন না গুলবাদিন। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হারলেও যে তারা ভালো খেলেছেন তার যুক্তিও উপস্থাপন করেন আফগান অধিনায়ক, 'আমার বার্তা একটাই, ইতিবাচক দিক গুলো দেখেন। যদি দেখেন, তাহলে দেখবেন, আমরা শুরুতে বাজে অবস্থায় ছিলাম এবং তারপরও আমরা ২০০ এর বেশি রান করেছি। যদি আমাদের হাতে উইকেট থাকতো তাহলে এটা ৩০০ এর বেশি হতো।'

পুরো ৫০ ওভার ম্যাচে থাকলে জয় আফগানিস্তানের হবে বলেই আত্মবিশ্বাসী গুলবাদিন, 'আমাদের উইকেটে পড়ে থাকতে হবে এবং সহজে উইকেট দেওয়া যাবে না। যদি আমাদের হাতে উইকেট থাকে আমাদের সামর্থ্য আছে শেষ ১০ ওভারে ৮০-৯০ রান কিংবা তারও বেশি করার। আমার বিশ্বাস আমরা যদি ৫০ ওভার ম্যাচে থাকি বিশেষ করে ব্যাটিংয়ে তাহলে হয়তো আমরা তাদের হারাতে পারি। কিন্তু তারা ভালো দল এবং আমরা তাদের সহজভাবে নিচ্ছি না।'

Comments

The Daily Star  | English

Through the lens of Rafiqul Islam

National Professor Rafiqul Islam’s profound contribution to documenting the Language Movement in Bangladesh was the culmination of a lifelong passion for photography.

18h ago