২৭ বছরের অপেক্ষার অবসান ঘটাবে ইংল্যান্ড?

১৯৯২ বিশ্বকাপের ফাইনালে ওঠার পথে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জিতেছিল ইংল্যান্ড। এরপর বিশ্ব মঞ্চে অসিদের আর হারানোর স্বাদ নেওয়া হয়নি তাদের। অস্ট্রেলিয়ার কাছে ২০০৩, ২০০৭ ও ২০১৫ আসরে হেরেছিল তারা। অর্থাৎ, ২৭ বছর ধরে বিশ্বকাপে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে জয়হীন ইংলিশরা।
england vs australia
ছবি: আইসিসি

১৯৯২ বিশ্বকাপের ফাইনালে ওঠার পথে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে জিতেছিল ইংল্যান্ড। এরপর বিশ্ব মঞ্চে অসিদের আর হারানোর স্বাদ নেওয়া হয়নি তাদের। সবশেষ তিন দেখায় অস্ট্রেলিয়ার কাছে ২০০৩, ২০০৭ ও ২০১৫ আসরে হেরেছিল তারা। অর্থাৎ, ২৭ বছর ধরে বিশ্বকাপে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীদের বিপক্ষে জয়হীন ইংলিশরা।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) বিশ্বকাপের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ড। ক্রিকেটের মক্কা খ্যাত লর্ডসে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর ম্যাচ শুরু বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে তিনটায়।

বিশ্বকাপের পয়েন্ট তালিকার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে অস্ট্রেলিয়া। ৬ ম্যাচে ৫ জয় ও ১ হারে তাদের অর্জন ১০ পয়েন্ট। সমান ম্যাচে ৪ জয় ও ২ হারে ইংল্যান্ডের পয়েন্ট ৮। তাদের অবস্থান পয়েন্ট তালিকার চারে।

সেমিফাইনালের টিকিট পাওয়ার পথে বেশ সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে অ্যারন ফিঞ্চের দল। এ ম্যাচে জয় পেলে তাদের সেমিতে জায়গা করে নেওয়াটা একরকম নিশ্চিতই হয়ে যাবে। বিপরীতে, কিছুটা চাপে আছেন ইয়ন মরগানরা। শেষ ম্যাচে অপ্রত্যাশিতভাবে লঙ্কানদের কাছে হেরে গেছেন তারা। তার ওপর হাতে থাকা তিন ম্যাচের তিনটিতেই কঠিন প্রতিপক্ষ তাদের সামনে। অস্ট্রেলিয়ার পর যথাক্রমে ভারত ও নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হবে ইংল্যান্ড। তাই এ ম্যাচে জয় দিয়ে চাপ হালকা করার পাশাপাশি সেমিতে ওঠার পথটা মসৃণ করে নিতে চাইবে তারাও।

পরিসংখ্যান:

মোট ম্যাচ: ১৪৭টি, অস্ট্রেলিয়া জয়ী: ৮১টি, ইংল্যান্ড জয়ী: ৬১টি, টাই: ২টি, পরিত্যক্ত: ৩টি।

বিশ্বকাপ পরিসংখ্যান:

মোট ম্যাচ: ৭টি, অস্ট্রেলিয়া জয়ী: ৫টি, ইংল্যান্ড জয়ী: ২টি।

সম্ভাব্য একাদশ:

অপরিবর্তিত একাদশ নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার মাঠে নামার সম্ভাবনা বেশি। নিজেদের সবশেষ ম্যাচে বাংলাদেশের বিপক্ষে তারা জিতেছিল ৪৮ রানে। অন্যদিকে, ইংল্যান্ড দলে আসতে পারে একটি বদল। শ্রীলঙ্কার কাছে সবশেষ ম্যাচে হেরে যাওয়া একাদশ থেকে বাদ পড়তে পারেন মার্ক উড। ফিরতে পারেন লিয়াম প্লাঙ্কেট। আর জেসন রয় এখনও ফিট না হওয়ায় জায়গা ধরে রাখবেন জেমস ভিন্স।

অস্ট্রেলিয়া:

ডেভিড ওয়ার্নার, অ্যারন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), উসমান খাওয়াজা, স্টিভেন স্মিথ, মার্কাস স্টয়নিস, অ্যালেক্স কেয়ারি (উইকেটরক্ষক), গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, নাথান কোল্টার-নাইল, প্যাট কামিন্স, মিচেল স্টার্ক, অ্যাডাম জাম্পা।

ইংল্যান্ড:

জেমস ভিন্স, জনি বেয়ারস্টো, জো রুট, ইয়ন মরগান (অধিনায়ক), বেন স্টোকস, জস বাটলার (উইকেটরক্ষক), মইন আলি, ক্রিস ওকস, আদিল রশিদ, জোফরা আর্চার, মার্ক উড।

Comments

The Daily Star  | English

Mirpur: From a backwater to an economic hotspot

Mirpur was best known as a garment manufacturing hub, a crime zone with rough roads, dirty alleyways, rundown buses, a capital of slums called home by apparel workers and a poor township marked by nondescript houses.

15h ago