উইন্ডিজকে উড়িয়ে দিল ভারত

লক্ষ্যটা ছিল মাঝারী। জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল দায়িত্বশীল ব্যাটিং। কিন্তু কোন ব্যাটসম্যানই পারলেন না দায়িত্ব নিতে। ভারতীয় বোলারদের তোপে তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ল ক্যারিবিয়ানদের ব্যাটিং লাইনআপ। ফলে ভারতের কাছে ১২৫ রানের বড় ব্যবধানেই হারতে হলো উইন্ডিজকে। তাতে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিশ্চিত হয়ে যায় তাদের। অন্যদিকে এ জয়ে সেমি-ফাইনালে এক পা দিয়ে রাখল দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ভারত।
ছবি: রয়টার্স

লক্ষ্যটা ছিল মাঝারী। জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল দায়িত্বশীল ব্যাটিং। কিন্তু কোন ব্যাটসম্যানই পারলেন না দায়িত্ব নিতে। ভারতীয় বোলারদের তোপে তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ল ক্যারিবিয়ানদের ব্যাটিং লাইনআপ। ফলে ভারতের কাছে ১২৫ রানের বড় ব্যবধানেই হারতে হলো উইন্ডিজকে। তাতে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিশ্চিত হয়ে যায় তাদের। অন্যদিকে এ জয়ে সেমি-ফাইনালে এক পা দিয়ে রাখল দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ভারত।

ভারতের দেওয়া ২৬৯ রানের লক্ষ্যে শুরুটা ভালো হয়নি উইন্ডিজের। দলীয় ১৬ রানেই বিদায় নেয় দুই ওপেনার। দ্বিতীয় উইকেটে নিকোলাস পুরানকে নিয়ে অবশ্য ইনিংস মেরামতের চেষ্টা করেছিলেন আরেক ওপেনার সুনিল আমব্রিস। ৫৫ রানের জুটি গড়ে প্রাথমিক চাপ সামলেও নিয়েছিলেন। কিন্তু এ জুটি ভাঙতেই উইকেট হারানোর মিছিলে যোগ দেয় উইন্ডিজের ব্যাটসম্যানরা। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে ১৪৩ রানেই গুটিয়ে যায় দলটি।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩১ রানের ইনিংস খেলেছেন আমব্রিস। পুরান করেন ২৮ রান। ভারতের পক্ষে মাত্র ১৬ রানের খরচায় ৪টি উইকেট নিয়েছেন মোহাম্মদ শামি। এছাড়া ৯ রানের বিনিময়ে জাসপ্রিত বুমরাহ পান ২টি উইকেট। ২টি উইকেট পান জুজবেন্দ্রু চাহালও।

তবে ম্যাচের সব আলো কেড়ে নিয়েছেন ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি। ক্রিকেট ইতিহাসের দ্বাদশ খেলোয়াড় হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে করলেন ২০ হাজার রান। ৪১৭টি ইনিংস খেলেই করলেন এ রান। যার ২২৮ ইনিংস খেলেছেন ওয়ানডেতে। বাকী ১৩১ ইনিংস টেস্টে এবং ৬২টি টি-টোয়েন্টিতে। মাঠে নামার আগে ছিলেন ৩৭ রান দূরে। জেসন হোল্ডারের করা ইনিংসের ২৫তম ওভারে সিঙ্গেল নিয়ে এ মাইলফলক স্পর্শ করেন তিনি।

রেকর্ড গড়ার পথে ভেঙেছেন স্বদেশী শচীন টেন্ডুলকার এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্রায়ান লারার রেকর্ড। ২০ হাজার রান পূর্ণ করতে দুজনেরই লেগেছিল ৪৫৩ ইনিংস। এ দুই কিংবদন্তি থেকে কোহলি ৩৬ ইনিংস কম খেলেই রেকর্ড গড়লেন কোহলি। এই তালিকায় বর্তমানে দ্বিতীয় স্থানে থাকা অস্ট্রেলিয়ান সাবেক অধিনায়ক রিকি পন্টিং খেলেছিলেন ৪৬৮ ইনিংস। এছাড়া তৃতীয় ভারতীয় খেলোয়াড় হিসেবে গড়লেন এ কীর্তি। শচীন ছাড়া এ ক্লাবের আরেক সদস্য রাহুল দ্রাবিড়।

এদিন টস জিতে ব্যাট করতে নামে ভারত। দলীয় ২৯ রানে রোহিত শর্মাকে হারালে ভাঙে ওপেনিং জুটি। তবে দ্বিতীয় উইকেটে ৬৯ রানের জুটি গড়েন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। এরপর পঞ্চম উইকেটে সাবেক অধিনায়ক এমএস ধোনির সঙ্গে গড়েন ৪০ রানের জুটি। এরপর কোহলি আউট হলে ষষ্ঠ উইকেটে হার্দিক পান্ডিয়ার সঙ্গে ৭০ রানের দারুণ এক জুটি গড়ে দলকে বড় সংগ্রহের ভিত গড়ে দেন ধোনি। ফলে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেটে ২৬৮ রান করে দলটি।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭২ রানের ইনিংস খেলেন কোহলি। ৮২ বলে ৮টি চারের সাহায্যে এ রান করেন তিনি। এছাড়া ধোনি শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থেকে করেন ৫৬ রান। ৬১ বলে ৩টি চার ও ২টি ছক্কায় নিজের ইনিংস সাজান তিনি। এছাড়া পান্ডিয়া ৪৬ ও লোকেশ রাহুল ৪৮ রান করেন। উইন্ডিজের পক্ষে ৩৬ রানের খরচায় ৩টি উইকেট নেন কেমার রোচ। ২টি করে উইকেট পান শেল্ডন কটরেল ও জেসন হোল্ডার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ভারত: ৫০ ওভারে ২৬৮/৭ (রাহুল ৪৮, রোহিত ১৮, কোহলি ৭২, শঙ্কর ১৪, কেদার ৭, ধোনি ৫৬*, পান্ডিয়া ৪৬, শামি ০, কুলদিপ ০*; কটরেল ২/৫০, রোচ ৩/৩৬, থমাস ০/৬৩, অ্যালেন ০/৫২, হোল্ডার ২/৩৩, ব্র্যাথওয়েট ০/৩৩)।

উইন্ডিজ: ৩৪.২ ওভারে ১৪৩ (গেইল ৬, আমব্রিস ৩১, হোপ ৫, পুরান ২৮, হেটমায়ের ১৮, হোল্ডার ৬, ব্র্যাথওয়েট ১, অ্যালেন ০, রোচ ১৪*, কটরেল ১০, থমাস ৬; শামি ৪/১৬, বুমরাহ ২/৯, পান্ডিয়া ১/২৮, কুলদিপ ১/২৩৫, কেদার ০/৪, চাহাল ২/৩৯)।

ফলাফল: ভারত ১২৫ রানে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: বিরাট কোহলি

Comments

The Daily Star  | English

Through the lens of Rafiqul Islam

National Professor Rafiqul Islam’s profound contribution to documenting the Language Movement in Bangladesh was the culmination of a lifelong passion for photography.

18h ago